বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২০, ০৪:০৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বাসুদেব মন্দিরে তারকব্রহ্ম মহানামযজ্ঞ উপলক্ষে সন্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে সরকারি ভূমি থেকে ২৭টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ নেওয়ার খানের পিতার মৃত্যুতে জগন্নাথপুর বিএনপির শোক প্রকাশ জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জ ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ চিকিৎসক দ্বারা দুইদিন ব্যাপি ফ্রি ডেন্টাল মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে আটঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সিদ্দিক আহমদ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বই উৎসব অনুষ্ঠিত বিশ্বনাথে শিশুদের প্রতিবন্ধী হয়ে জন্ম নেওয়া এক গ্রামের গল্প জগন্নাথপুরে দুইবছরের দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে জুয়ার আসর থেকে ১০ জুয়াড়ি আটক

দুই সতীনের ঝগড়া থামাতে গিয়ে দেবর নিহত

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৪ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৭৮ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
দুই সতীনের ঝগড়া থামাতে গিয়ে প্রাণ গেল দেবর আনু মিয়ার। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ সাতজনকে আটক করেছে।
মঙ্গলবার কুমিল্লার তিতাস উপজেলার কলাকান্দি ইউনিয়নের আফজাল কান্দি গ্রামে ঘটনা ঘটে। নিহত আনু মিয়া উপজেলার কলাকান্দি ইউনিয়নের আফজালকান্দি গ্রামের মৃত আবদুল ছালাম মিয়ার ছেলে। আজ বিকালে তিতাস থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মর্গে প্রেরণ করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার আফজালকান্দি গ্রামের মৃত আবদুল সালামের ছেলে মোস্তাফা ফকির দুই বিয়ে করেন। হাসিনা বেগমের (৫০) সাথে দ্বিতীয় স্ত্রী ফাতেমা বেগমের (৪০) পারিবারিক বিষয় নিয়ে ঝগড়া শুরু হয়। এক পর্যায়ে ছোট স্ত্রী ফাতেমা বেগম ও তার ছেলে-মেয়েরা বড় স্ত্রী হাসিনা বেগমকে মারধর শুরু করে। দেবর আনু মিয়া ঝগড়া থামাতে যান। ঝগড়া থামানোর এক পর্যায়ে ধাক্কা খেয়ে আনু মিয়া মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তখন আশেপাশের লোকজন তাকে মুরাদনগর উপজেলার বাখরাবাদের একটি ক্লিনিকে নিয়ে গেলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। লাশ নিয়ে বাড়ি আসার পর পুলিশ খবর পেয়ে আনু মিয়ার লাশসহ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে মোস্তাফা ফকিরের দুই স্ত্রী, ছেলে-মেয়েসহ সাতজনকে আটক করে নিয়ে যায়।

নিহত আনু মিয়ার স্ত্রী শিউলি বেগম বলেন, দুই সতীনের ঝগড়া থামাতে গিয়ে আমার স্বামী প্রাণ হারিয়েছে। আমার স্বামী তাদের আঘাতে নিহত হয়েছে, এর বিচার দাবি করছি।

তিতাস থানার ওসি মোঃ নুরুল আমিন বলেন, দুই সতীনের মধ্যে ঝগড়া থামাতে গিয়েছিল দেবর আনু মিয়া। তবে প্রাথমিক সুরতহালে তার শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পায়নি। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট ছাড়া কিছু বলা যাচ্ছে না। প্রাথমিক জিজ্ঞাসার জন্য ঝগড়ার সাথে যারা জড়িত তাদের সাতজনকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24