মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৪৩ পূর্বাহ্ন

নদী ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে জগন্নাথপুরের ফেচিরবাজার

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩ মার্চ, ২০১৬
  • ৬৩ Time View

অমিত দেব ও আলী আহমদ::
নদী ভাঙনে বিলীন হতে চলেছে জেলার শেষ সীমানার বিখ্যাত ফেচিরবাজার। বাজারের সিংহভাগ অংশ এখন নদীগর্ভে। ফেচির বাজারসহ আশপাশের এলাকার মানচিত্রই এখন বদলে গেছে। ১৫ বছর ধরে এই বাজার নদী ভাঙনে বিলীন হলেও ভাঙন ঠেকাতে কার্যকর কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। গত রোববার পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, এলাকার সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এবং পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল ইসলাম বীরপ্রতীক ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছেন।
হযরত শাহজালাল (র.)’এর সঙ্গীয় ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম হাফিজ ফছিই-হ (র.) আস্তানাকে ঘিরে ১৯৩২ সালে মূলত ফেচিরবাজার স্থাপন হয় এবং হাফিজ ফছিই-হ (র.) নামের আদ্যাক্ষরে নাম হয় ফেচিরবাজার। কলকাতা থেকে আসা বড় বড় জাহাজও এক সময় ফেচির বাজারের পাশের রাধানগরে এসে নোঙর করতো, যাত্রা বিরতি করতো। ছোট-খাটো নৌ-বন্দর ছিল এটি। প্রথমে কয়েকটি দোকান নিয়ে বাজারের যাত্রা শুরু হলেও প্রতিষ্ঠার ১০ বছরের মধ্যেই বাজারটি সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ ও সিলেট জেলার কিছু এলাকার মানুষের কেনা-বেচার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে। জগন্নাথপুর বাজারসহ এই উপজেলার অনেক ছোট ছোট বাজার, সিলেটের বালাগঞ্জের নয়বন্দরসহ কিছু ছোট ছোট বাজারের দোকানীরাও ঐ বাজার থেকে পাইকারী মাল এনে বিক্রি করতেন। কুশিয়ারার তীরে বাজার হওয়ায় ভৈরব, আজমিরিগঞ্জ এবং সিলেট থেকে শেরপুর হয়ে মালামাল পৌঁছাতো এই বাজারে। মরিচা গুড়ের জন্য বিখ্যাত ছিল বাজারটি। কিন্তু গত ১৫ বছর ধরে নদী ভাঙনে বিলীন হতে চলেছে ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন এই বাজারটি। স্থানীয় লোকজনের দাবি বাজারটি দ্রুত রক্ষা না করলে এক সময় নদী দেখিয়ে বলতে হবে নদীর মাঝখানে এক বাজার ছিল, এটি ইতিহাস হয়েই থাকবে, বাস্তবে বাজারের কোন অস্তিত্বই থাকবে না।
ফেচির বাজারের ব্যবসায়ী জিতেন্দ্র তালুকদার বলেন,‘ব্রিটিশ সময়কালের বাজার এটি। ঐ সময় সড়ক পথে যাতায়াত ছিল না বললেই চলে। পায়ে হেঁটে যাতায়াত ছিল। বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা ছোট ছোট দোকানীরা এখান থেকে মালামাল নিতো, পুরো বাজারটিই এখন বলতে গেলে নদীগর্ভে চলে গেছে’।
স্থানীয় যুব নেতা খায়রুল ইসলাম বলেন,‘এক সময় জগন্নাথপুর, নয়াবন্দর, দাওড়াই ও সৈয়দপুরসহ বিভিন্ন এলাকার দোকানীরা এই বাজারের পাইকার ছিল, এখনও বাজারের কয়েক কিলোমিটার এলাকার মানুষের, বিশেষ করে দীঘলবাক, কাতিয়া, আটঘর, খাড়গাঁও, রাধানগর, শুক্লাম্ভরপুর, কালাম্ভরপুরসহ ২০ টি গ্রামের মানুষ এখানেই কেনা-বেচা করেন। এখনও সপ্তাহের দুটি হাটবারে ৩-৪ হাজার মানুষ বাজারে আসেন’।
স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহ্ খায়রুল ইসলাম বলেন ‘ভারতের বরাকের মোহনা থেকে আসা কুশিয়ারা নদী বালাগঞ্জ, শেরপুর হয়ে ভাটির দিকে গেছে। গত ১৫ বছর ধরে বরাকের পানি যখন চাপ দেয়, নদীর ¯্রােত যখন তীব্র হয় তখন ফেচিরবাজার ভাঙতে থাকে। ভাঙতে ভাঙতে দু’শ’এর বেশি দোকানঘর নদীতে বিলীন হয়েছে। এর মধ্যে দুই তলা-তিন তলা ভবনও রয়েছে। ভাঙনে বাজারের ব্যবসায়ীদের ৩ কোটি টাকারও বেশি ক্ষতি হয়েছে। এখনো ভাঙতেই আছে’।
jagannathpur-02
রোববার পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি, স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি ও পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল ইসলাম বীরপ্রতীক এমপি ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছেন।
এসময় স্থানীয় জনসাধারণের উদ্দেশ্যে এম এ মান্নান বলেন,‘আমার নির্বাচনী এলাকার বাজারটি নদী ভাঙনে বিলীন হচ্ছে, মানুষ কষ্ট পাচ্ছে, এই বিষয়টি আমার অনুভবে রয়েছে, আমি এজন্য কষ্ট পাচ্ছি। আমি বিষয়টি পানিসম্পদ মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে জানিয়েছি। তিনি ভাঙন দেখতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন, সঙ্গে এসেছেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীও, তাঁরা আমাকে আশ্বস্ত করেছেন ভাঙন ঠেকাতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করবেন’।
পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন,‘ফেচির বাজারের ভাঙন ঠেকানোর জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য অনুরোধ করেছেন, আমরা ভাঙন এলাকা দেখে সংশ্লিষ্টদের বলেছি প্রাক্কলন তৈরি করার জন্য এবং যেভাবে দ্রুত কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া হয় সেই ব্যবস্থা করার জন্য’।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24