বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:২৩ অপরাহ্ন

নবজাতকের মৃত্যু ঘটানোর দায়ে সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালের ডাক্তার-নার্সসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা দায়ের

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ১২০ Time View

আল-হেলাল,সুনামগঞ্জ থেকে :সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন প্রসুতি রোগীনির নবজাতক কে হত্যার দায়ে নার্স-ডাক্তারসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে আদালতে খুনের মামলা দায়ের করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে আমল গ্রহনকারী জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট (সদর) আদালতে নিহত শিশুর নানী হেনা বেগম বাদীনি হয়ে এই মামলা দায়ের করেন। মামলা সুত্রে জানা যায়, প্রসব বেদনায় কাতর পরিবহন শ্রমিক বাদল মিয়া তার স্ত্রী পপি বেগমকে নিয়ে সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। ভর্তির কিছু সময় পরই স্বাভাবিকভাবে এক পুত্র সন্তানের জন্ম দেয় গর্ভবতী মা। জন্মের পর নবজাতক ও মা’কে সিট দেয়া নিয়ে রোগী ও নার্সদের মধ্যে কথাকাটাকাটির জের ধরে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে হাসপাতালের নার্স ও কর্মচারীরা ঐক্যবদ্ধভাবে জেলা সদর হাসপাতালের গেইট তালাবদ্ধ করে প্রসুতি রোগীনীর স্বামী বাদল, শ্বশুড় বৃদ্ধ জনর মিয়া ও শ্বাশুড়ি খোশনেহার বেগমকে বেদম মারপিঠক্রমে গুরুতর আহত করে থানা পুলিশে সোর্পদ করে। পরবর্তীতে বৃদ্ধ জনর মিয়াকে র‌্যাবের সহায়তায় চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হলেও বাদল মিয়া ও তার বৃদ্ধ মাতা খোশনেহার বেগমকে সরকারী কাজে বাধাঁদান ও নার্স-আয়াদের হাত ভেঙ্গে দেয়ার মিথ্যা অভিযোগ এনে থানায় মামলা রুজু করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। নবজাতকের পিতা ও তার দাদা দাদীকে থানা পুলিশে সোপর্দ করার পর, নানী হেনা বেগমকে নার্স আমিনা খাতুন, “তোমরা আমাদের সাথে যে আচরণ করেছো তা তোমার নবজাতক শিশুটিকে গলা টিপে হত্যা করলেও শান্তি পাওয়া যাবে না” মর্মে অবগত করে হুমকী দেয়। কিছুক্ষন পর নার্স আমেনা খাতুন এসে নবজাতককে দেখে বলে যে,তোমার বাচ্চার শরীর খারাপ হয়ে গেছে। তাকে ঔষধ খাওয়াতে হবে। নার্স আমেনা খাতুন নিজেই একটি ড্রপ এনে নবজাতকের মুখে ৬ ফোটা ড্রপ দিয়ে বাচ্চাকে খাওয়ায় এবং হাতে করে ড্রপটি নিয়ে যায়। কিছুক্ষন পরই নবজাতকটির পেট ফুলে যায় এবং গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে। এ নিয়ে নবজাতকের মাতা ও নানী মহাবিপদে পড়ে আত্মীয় স্বজনকে খবর দেয়। আত্মীয় স্বজনরা হাসপাতালে পৌছে সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুল হেকিমকে ঘটনার কথা অবহিত করেন এবং সিভিল সার্জন এসে নবজাতকটিকে সিলেট ওসমানীতে পাঠানোর জন্য রেফার্ড করলে নিকট আত্মীয় স্বজন না থাকায় ঐ দিন অর্থাৎ ২০ আগস্ট নেয়া সম্ভব হয়নি। পরদিন জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম ও পুলিশ সুপার মো: হারুন অর রশিদ জেলা সদর হাসপাতালে উপস্থিত হয়ে শিশুটিকে সিলেটস্থ এম.এ,জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে বাঁচানোর অনুরোধ করলে নবজাতকের নানী সিলেট নিয়ে যান। সেখানে দীর্ঘ ৭ দিন চিকিৎসার পর ২৮ আগষ্ট বিকাল সাড়ে ৫টায় মারা যায় নবজাতক। শিশুটির লিঙ্গ ও অন্ডাশয় ফেঠে যাওয়ায় সে মারা যায় বলে সেখানকার ডাক্তাররা উল্লেখ করেন। অথচ সুনামগঞ্জে সদর হাসপাতালের আরএমও ডা: রফিকুল ইসলাম বলেছিলেন নবজাতকের নিউমোনিয়া হয়েছে। নিউমোনিয়া হলে লিঙ্গ ও অন্ডাশয় ফেঠে যাবে কেন ? এ বিষয়টি একটি পরিকল্পিত শিশু হত্যা কান্ডের মতো জগন্যতম অপরাধ হিসেবে সকলের কাছে প্রমাণ হওয়ায় নিহত নবজাতকের নানী হেনা বেগম বাদীনি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ রফিকুল ইসলাম,নার্স শিপ্রা মন্ডল,আমিনা বেগম ও পরিচ্ছন্ন কর্মী মুন্নীলাল বেগীকে আসামী করা হয়েছে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে ওসি সদর থানাকে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন। এ ব্যাপারে সিভিল সার্জন ডা: আব্দুল হাকিম জানান, যে কেউ আদালতে বিচার চাইতে পারে। ঘটনার সাথে ডাক্তার ও নার্স জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24