মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

নবীগঞ্জের কসবা গ্রাম মৃতপুরী

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৯ জুন, ২০১৫
  • ৮৫ Time View

রাকিল হোসেন নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ) থেকে : নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের প্রায় ২০হাজার লোকের বসবাসকারী গ্রাম কসবা যেন মৃতপুরী। চলছে পুলিশের টহল। গত শনিবার হত্যাকান্ডের পর গ্রামটি পুরুষ শুন্য রয়েছে। হামলা ও পাল্টা হামলার ভয়ে মহিলা ও যুবতী মেয়েরা পার্শ্ববর্তী কয়েকটি ইউনিয়নসহ জগন্নাথপুর উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে শরনার্থীর মত আশ্রয় নিয়েছেন । শত শত গরু-বাছুর অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছেন। অনেকেই কম মুল্যে বিক্রি করছেন। প্রায় এক বছরে ওই গ্রামে ৫টি খুনের ঘটনা ঘটেছে। লুটপাট,অগ্নি সংযোগ ও ভাংচুরে ক্ষতি হয়েছে প্রায় কোটি টাকা। মধ্যযুগীয় কায়দায় করা হয়েছে নারী নির্যাতন। এমন পরিস্থিতিতে এলাকাবাসী উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। জানা যায়,বিগত ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলার এই বৃহত্তম গ্রামটি দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। পঞ্চায়েত পক্ষের প্রার্থী ছিলেন ওই গ্রামের দীঘরবাক ইউপি আওয়ামলিীগের সভাপতি গোলাম গোলাম হোসেন রব্বানী। অপর পক্ষে চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন আওয়ামীলীগ নেতা মরহুম শেখ লিপাই মিয়ার পুত্র রানা শেখ। উভয়ই নির্বাচনে পরাজিত হন। এরপর থেকে গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্বের শুরু। পঞ্চায়েত পক্ষে অবস্থান নেন ফারুক, গোলাম হোসেনগং। আর অপরপক্ষে রানা শেখ,স্বনগং। শুরু হয় গ্রামে দফায় দফায় সংঘর্ষ। কোন সময়ই সংঘর্ষে পঞ্চায়েত পক্ষের সামনে ঠিকে থাকতে পারেনি অপর পক্ষ। এই সুযোগে পঞ্চায়েতের লোকজন প্রতিপক্ষের বাড়িতে হামলা,লুটপাট,ভাংচুর,অগ্নিসংযোগসহ মধ্যযুগীয় কায়দায় নারী নির্যাতন করা হয়। অগ্নিসংযোগকালে শত শত ছাত্র-ছাত্রীর বই পুস্তক পুড়ে যাওয়ায় পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি গ্রামের শিক্ষার্থীরা। সর্ব শেষ গত বছরের প্রথম দিকে আবারো দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এর পর দিন গ্রামের পাশে বিবিয়ানা নদী থেকে ৩ জনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ । গত শুক্রবার বিকেলে সহকারী পরিচালক র‌্যাব-৯ কোম্পানী কোমান্ডার মাঈন উদ্দিন চৌধুরী কসবা গ্রামে অভিযান চালিয়ে ট্রিপল মার্ডার মামলার ৩নং আসামী ফারুক আহমদ ও ছমির হোসেনকে গ্রেফতার করেন। এর জের ধরে শনিবার বিকেল ৫টার সময় স্বপন আহমদ এর পক্ষের আজিজুল ইসলাম স্থানীয় ইনাতগঞ্জের বান্দের বাজার থেকে বাড়ি যাবার পথে ধৃত ফারুক আহমদের ভাতিজা তোফাজ্ঝল, ভাই ইছার উদ্দিনসহ ৭/৮ জনের একদল লোক আজিজুলের উপর হামলা চালিয়ে রামদা দিয়ে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত করলে সে গুরুতর আহত হয়। তার গলাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করা হয়। পরে স্থানীয় লোকজন আশংকাজনক অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গেলে রাতে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। বর্তমানে গ্রামে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। হত্যাকান্ডের ঘটনায় এখনো থানায় মামলা হয়নি বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। কসবা গ্রামের এই বিরোধটি মীমাংসার লক্ষে স্থানীয় নেতৃবৃন্দ এগিয়ে আসবেন এটাই প্রত্যাশা করছেন এলাকাবাসী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24