বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৩৫ অপরাহ্ন

নবীগঞ্জে কলেজ ছাত্রী তন্নী রায় হত্যাকান্ড। বান্ধবীসহ ৩জনকে জিজ্ঞাসাবাদ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ১১ Time View

রাকিল হোসেন: নবীগঞ্জের বরাক নদী থেকে হাত-পা বাধা বস্তাবন্দি কলেজ ছাত্রী তন্নী রায় (১৮) হত্যা মামলায় তন্নীর ঘনিষ্ট বান্ধবী কান্তা রায়, আইসিটি সেন্টারের প্রিন্সিপাল ফয়সল ও প্রশিক্ষক নাজনীন আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সন্ধায় তাদের থানায় খবর দিয়ে এনে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পুলিশ ওই ৩ জনেরও মোবাইল কল লিষ্ট সংগ্রহ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে। এদের জিজ্ঞাসাবাদকালে উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আ.স.ম সামছুর রহমান ভুইয়া, থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল বাতেন খান, ওসি (তদন্ত) কামরুল হাসান ও তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোবারক হোসেন।এদিকে লাশের সাথে বস্তায় ব্যবহৃত ছামিন কোং ইট জব্দ করেছে পুলিশ। ছামির কোং এর ইট দিয়ে জয়নগর এলাকায় সৈয়দ জাহির মিয়ার বাড়ির নির্মাণ কাজ চলছে। ওই বাড়ি থেকে ইট চুরি করে এনে বস্তায় বাধা হয় বলে অনেকে ধারণা করছেন। অন্যদিকে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে থানায় নিয়ে আসা তন্নীর বান্ধবীসহ ৩ জনের কাছ থেকে কোন তথ্য পাওয়া গেছে কি-না মামলার তদন্তের স্বার্থে তা জানাতে অপারগতা জানিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা মোবারক হোসেন। তিনি বলেন, অপরাধীদের গ্রেফতারে পুলিশ সর্বাত্মক চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। নিহত কলেজ ছাত্রী তন্নীর লাশ উদ্ধার এবং মামলা দায়েরের পর থেকেই পুলিশ ঘটনাস্থল এবং রানু রায়ের বাড়িসহ আশপাশের সম্ভাব্য ঘরবাড়িতে তল্লাশী অব্যাহত রয়েছে। ঘটনার তদন্তে হবিগঞ্জ থেকে ডিবি পুলিশও মাঠে কাজ করছে বলে জানা গেছে।একটি সুত্র দাবী করছে, তন্নী রায় নিখোঁজ হওয়ার দিন বিকালে বান্ধবী কান্তা রায়ের সাথে যোগাযোগ করে প্রেমিক রানু রায় প্রেমিকা তন্নীর খোজখবর নেয়। এ সময় রানু রায় কম্পিউটার সেন্টারের প্রিন্সিপাল ফয়সলের মোবাইল নম্বারটিও সংগ্রহ করে। রানু ওই দিন ফয়সলকে ফোন দিয়েছে কি-না তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। যা যাচাই এর প্রক্রিয়া চলছে। তবে ফয়সল আহমদ দাবী করেছেন, রানু রায়ের সাথে তার কোন প্রকার যোগাযোগ বা ফোনে কথা হয়নি। অপর দিকে বস্তাবন্দি নবীগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের মেধাবী ছাত্রী তন্নী রায়ের মৃত দেহ নদী থেকে উত্তোলনের সময় বস্তার ভিতরে ছামিন কোং ইট পাওয়া যায়। পুলিশ ঘটনাস্থল, প্রেমিক রানু রায়ের বাড়ি ও আশপাশ এলাকায় ওই কোম্পানীর ইট কোথায় রয়েছে কি-না তার সন্ধানকালে জয়নগর এলাকায় সৈয়দ জাহির মিয়ার নতুন বিল্ডিং নির্মাণ কাজে ব্যবহার করতে দেখতে পায়। যা ঘটনাস্থল নদী থেকে প্রায় দেড় শত ফুট এবং রানু রায়ের বাড়ি থেকে প্রায় ৭০ ফুট দুরত্বে হবে। ফলে এই লোমহর্ষক হত্যাকান্ডের তীর ধীরে ধীরে তন্নীর প্রেমিক রানু রায়ের দিকেই যাচ্ছে বলে অবস্থা দৃষ্টে ধারনা করা যাচ্ছে। রানু রায়কে গ্রেফতার করলেই হত্যাকান্ডের মূল রহস্য উদঘাটিত হতে পারে বলে দাবী সুশীল সমাজ। রানু রায় ব্যতিত তন্নী রায়ের অন্য কারো সাথে সম্পর্ক ছিল কি না তাও খতিয়ে দেখার প্রয়োজন বলে অনেকেই মত প্রকাশ করেন।প্রকাশ, গত শনিবার বেলা দেড় টার দিকে তন্মী রায় ইউ.কে আই,সিটি কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার জন্য বাসা থেকে বেড় হয়ে আর ফিরেনি। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরী করার ৩ দিনের মাথায় উক্ত কলেজ ছাত্রী তন্মী রায়ের বস্তাবন্দি লাশ নদী থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24