মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:১৪ পূর্বাহ্ন

নবীগঞ্জে পুলিশ শ্রমিক সংঘর্ষে গুলি নিক্ষেপ শহরে রণক্ষেত্র, পুলিশসহ আহত ১০

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৭ এপ্রিল, ২০১৫
  • ৬৫ Time View

রাকিল হোসেন, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) থেকে::হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে সিএনজি শ্রমিকদের সংর্ঘষ থামাতে গিয়ে পরিবহন শ্রমিকদের সাথে পুলিশের হট্রগোল, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, গুলি ও ইটপাটকেলের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল রবিবার বিকালে শহরের শেরপুর রোডস্থ এ ঘটনায় গোটা শহর রনক্ষেত্রে পরিনত হয়েছে। পুলিশ শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ ইয়াওর মিয়া এবং শ্রমিক সুমন মিয়াকে আটকের ঘটনায় এ পরিস্থিত সৃষ্টি হয়েছে। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় পুলিশসহ অনন্ত ১০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ ৪ জনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা করেছে। এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে নবীগঞ্জ উপজেলার আঞ্চলিক সকল সড়কের যানবাহন বন্ধ করে অর্নিদৃষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে বলে শ্রমিক ইউনিয়ন এবং মিনিবাস মালিক সমিতির সুত্রে জানাগেছে। এছাড়া আটককৃত শ্রমিক নেতা ইয়াওর মিয়াসহ ২ জনকে শ্রমিকদের বাধার মুখে জেকে হাইস্কুল পয়েন্টে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। ঘটনার খবর পেয়ে শত শত শ্রমিকরা রাস্তায় রাস্তায় ব্যরিকেট তৈরী করে শহরের গুরুত্বপুর্ণ সড়কে বিক্ষোভ মিছিল করেছে। উত্তেজিত শ্রমিকরা নবীগঞ্জ শহরের নতুন বাজার রাস্তার মধ্যে অবস্থান করছেন।
প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানাযায়, গতকাল রবিবার সকালে উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের সৈয়দপুর বাজারে অনুষ্টিত একটি শালিস বৈঠকে নবীগঞ্জ কাজিরবাজার ষ্ট্যান্ডের সিএনজি শ্রমিক নেতা মাওঃ রফি উদ্দিন ধনাই, আল আমিন, কাজল মিয়াসহ কয়েক জন শ্রমিক নেতাকে মারধোর করা হয়েছে। তারা নবীগঞ্জে ফিরে এসে শ্রমিকদের ঘটনাটি জানালে ওই ষ্ট্যান্ডের সিএনজি শ্রমিকরা লাটিসোটা নিয়ে শেরপুর রোডস্থ সিএনজি ষ্ট্যান্ডে গিয়ে আউশকান্দি এলাকার সিএনজি শ্রমিকদের খোজাঁখুজি করলে ওই এলাকায় উত্তেজনা ও ত্রাসের সৃষ্টি হয়। এই ঘটনার খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ লিয়াকত আলীর নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌছলে উত্তেজিত শ্রমিকরা দিকবেদিক ছুটাছুটি করে পালিয়ে যায়। এ সময় পুলিশের এসআই আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে কয়েক জন পুলিশ সদস্য শ্রমিক ইউনিয়ন নবীগঞ্জ আঞ্চলিক শাখার সভাপতি ইয়াওর মিয়ার ব্যবসা প্রতিষ্টান মা- হোটেলে সিএনজি শ্রমিকদের খোজতে যায়। এনিয়ে পুলিশ ও শ্রমিকনেতা ইয়াওর মিয়ার মধ্যে বাদানুবাদের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে উত্তেজিত শ্রমিকরা বিক্ষোভ করতে থাকে। এ সময় থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ লিয়াকত আলীর মাথায় ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ লাটিচার্জ শুরু করে এবং শ্রমিক নেতা ইয়াওর মিয়া ও শ্রমিক সুমন মিয়াকে আটক করে থানায় নিয়ে আসতে চাইলে বিক্ষোব্ধ শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে বোতল ও ইট দিয়ে ঢিল ছুড়লে পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলি নিক্ষেপ করে। এ সময় শ্রমিকরা কিছুটা পিছু হটলে আটকৃতদের থানায় নিয়ে যাবার পথে জেকে হাইস্কুল পয়েন্টে শ্রমিকদের বাধার মূখে তাদের ছেড় দেয় পুলিশ। ঘটনায় আহত শ্রমিক কংশু দাশ (৩০), কছরু মিয়া (২৫), তৌহিদুল হক(৪৫) ও জুয়েল মিয়া (২২ কে সিলেট প্রেরন করা হয়েছে। ঘটনার খবর পেয়ে মুহুর্তের মধ্যেই শত শত শ্রমিক উপজেলার সকল আঞ্চলিক সড়ক যোগাযোগ গাড়ী দিয়ে ব্যরিকেড তৈরি করে বন্ধ করে দেয়। এবং উত্তেজিত শ্রমিকরা শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে। উক্ত ঘটনায় শহরের ব্যবসায়ী, পথচারীসহ সাধারণ মানুষের মধ্যে চরম আতংক বিরাজ করছে। গাড়ী চলাচল না করায় যাত্রীদের দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত স্থানীয় সংসদ সদস্য এমএ মুনিম চৌধুরী বাবু, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলমগীর চৌধুরী, নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ মাসুম বিল¬াহ, মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদুল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার সাজিদুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব সাইফুল জাহান চৌধুরীর মধ্যস্থতায় শ্রমিক নেতা ইয়াওর মিয়া, মালিক সমিতির সভাপতি বজলুর রশীদ ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম সুমনকে নিয়ে জেকে হাইস্কুলে সমঝোতার বৈঠক চলছে বলে সুত্রে জানাগেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24