শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:১৫ পূর্বাহ্ন

নবীগঞ্জে সংঘর্ষে আহত চয়ন এর মৃত্যু আহত রতনের অবস্থা আশংকাজনক

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৫ আগস্ট, ২০১৫
  • ১৭৩ Time View

রাকিল হোসেন নবীগঞ্জ থেকে:
নবীগঞ্জ উপজেলার দৌলতপুর ও চৌকি দুই গ্রামবাসীর মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষে গুরুতর আহত চয়ন রায় শনিবার বেলা ১১টার সময় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মুত্যু বরন করেছেন। নিহত চয়ন দাশের ভাই অভিনাশ মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে বলেন,শনিবার সরকারী ছুটি থাকায় ময়না তদন্ত করা সম্ভব হচ্ছেনা। আজ রোববার ময়না তদন্ত শেসে মৃত দেহ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসা হবে। অপর আহত রতন দাশ ওরপে টিক্কার অবস্থাও আশংকাজনক বলে তিনি জানান।উলে¬খ্য গত বৃহস্পতিবার বানিয়াচং উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের সিরাজ মিয়ার পুত্র সম্ভল মিয়া নবীগঞ্জ উপজেলার চৌকি গ্রামের পিলু দাশের ফিশারীতে জোরপূর্ব মাছ ধরতে যায়। এতে পিলু দাশ বাধা দিলে সম্ভল মিয়া ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং তাকে প্রাণনাসসহ উচিত শিক্ষা দেয়ার হুমকি দেয়। এর জের ধরে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে দৌলতপুর গ্রামের মৃত চান মিযার পুত্র আবুল কালাম আজাদ ও মৃত সোলেমান মিযার পুত্র রব্বানী মিয়ার নেতৃত্বে প্রায় ২/৩শ’ লোক দেশীয় অস্ত্রেসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে অরবিন্দু দাশের বাড়িতে হামলা ও বাংচুর চালায। খবর পেযে পিলু দাশ ও চয়ন দাশ ঘটনা স্থলে গিযে তাদেরকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করলে উত্তেজিত লোকজন তাদের উপরও হামরা করে। এতে চয়ন দাশ গুরুতর আহত হন। এদের বাচাতে রতন দাশ এগিয়ে আসলে তার উপরও হামলা করা হয়। এক পর্যায়ে উভয় গ্রামের লোকদের মধ্যে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় দৌলতপুর গ্রামের লোকজন চৌকি গ্রামের সমীরণ দাশের একটি মটর সাইকেল ছিনিয়ে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ রয়েছে। খবর পেয়ে নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জ ও বানিয়াচং-এর মার্কুলী ফাঁড়ি পুলিশ ঘটনা স্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এদিকে ঘটনার পরপরই আহত চয়ন দাশ(৩০) ও রতন দাশ টিক্কা(৩৫)কে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তিকৃত চয়ন দাশের অবস্থার অবণতি ঘটলে শুক্রবার দুপুরে তাকে আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। ৩দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে শনিবার দুপুরে চয়ন দাশের মৃত্যু হয়। চয়ন দাশের মৃত্যুর খবরে এলাকায় উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে। চৌকি গ্রামের লোকজন জানান,তারা সংখ্যালঘু হওয়ার কারনে দেলতপুর গ্রামের লোকজন অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তাদের বাড়ি-ঘরে হামরা,ভাংচুর ও আহত করে। তাদের তান্ডবে রেহাই পায়নি শিব মন্দিরও। হামলাকারীরা উক্ত মন্দির ভাংচুর করে ব্যাপক ক্ষতি করেছে। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল বাতেন খাঁন আহত চয়নের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে বলেন,এখনো মামলা দেয়া হয়নি।নিহতের স্বজনরা মামলা দিলে সেটি গ্রহণ করাসহ আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24