শনিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২০, ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
পৌর মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহে হিন্দু কমিউনিটি নেতাদের শ্রদ্ধা নিবেদন চিরনিদ্রায় নিজের তৈরী কবরে শায়িত জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় জগন্নাথপুর পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আব্দুল মনাফকে শেষ বিদায়,জানাজায় শোকার্ত মানুষের ঢল পৌর মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহে পরিকল্পনা মন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন পৌর চত্বরে মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সন্মেলনে পরিবর্তনের পক্ষে তৃণমূল নেতাদের আওয়াজ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে:শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরে শিশুর মৃত্যু:’শিশুটি যখন মৃত্যুের যন্ত্রনায় চটপট করছিল,যখন ডাক্তার-নার্স ঘুমে’ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরের চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি

নামের ভুলে জেলে ১১ দিন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৭
  • ১০৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
নিরপরাধ ব্যক্তির নাম এস এম জাহাঙ্গীর আলম সরকার। আর আসামির নাম এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার ওরফে উজ্জ্বল। নামের এ সামান্য হেরফেরই চোখ ‘এড়িয়ে’ যায় পুলিশের। তাতেই জেলের ভাত খেতে হলো নিরপরাধ জাহাঙ্গীরকে।

অবশেষে ১১ দিন পর রোববার রাতে ঢাকার কেরানীগঞ্জ কারাগার থেকে তার মুক্তি মিলল তার। রাতেই তাকে জয়পুরহাটের আক্কেলপুরের বাড়িতে নিয়ে যান স্বজনরা।

এর আগে ঢাকার যুগ্ম দায়রা জজ পঞ্চম আদালতের বিচারক জিনাত হাসানের আদালতে জাহাঙ্গীর আলমের আইনজীবী সাখাওয়াত হোসেন তার মক্কেলের বিষয়টি উপস্থাপন করে তাকে মুক্তি দেওয়ার আবেদন জানান।

বিচারক সব তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে জাহাঙ্গীর আলমকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেন। একই সঙ্গে প্রকৃত আসামি পলাতক এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন সরদারকে অবিলম্বে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন।

নিরপরাধ জাহাঙ্গীরের চাচা নাসির উদ্দিন সরকার জানান, জাহাঙ্গীরের মাঝে মুক্তি আনন্দ দেখা গেলেও তাকে অনেক বিধ্বস্ত দেখা গেছে।

জানা যায়, জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলার কলেজপাড়ার তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম লেখাপড়া শেষ করেছেন বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজ থেকে। এখন তিনি চাকরির চেষ্টার পাশাপাশি গৃহশিক্ষকতা করেন। তিনি স্বেচ্ছাসেবক লীগ আক্কেলপুর উপজেলা কমিটির সহসভাপতি।

গত ৪ অক্টোবর গভীর রাতে আক্কেলপুর থানা পুলিশের একটি দল তাকে বাড়ি থেকে আটক করে। জাহাঙ্গীর আলমকে আটকের পরদিন তার বাবাসহ স্বজনরা থানায় গিয়ে তার অপরাধ সম্পর্কে জানতে চান। কিন্তু আক্কেলপুর থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম তাদের কোনো কথাই শোনেননি।

ইতোমধ্যে জাহাঙ্গীর আলমকে আটকের খবর ছড়িয়ে পড়ে এবং পুলিশের চরম গাফিলতি ধরা পড়ে। প্রকৃতপক্ষে পুলিশের কাছে ওয়ারেন্ট ছিল আক্কেলপুর কলেজগেট এলাকার তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার ওরফে উজ্জ্বলের বিরুদ্ধে। এ আসামির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে আক্কেলপুর মজিবর রহমান ডিগ্রি কলেজ মার্কেটে মেসার্স সরদার ট্রেডার্স নামে। পুলিশ নামের আংশিক মিল থাকায় জাহাঙ্গীর হোসেনের পরিবর্তে জাহাঙ্গীর আলমকে আটক করে জয়পুরহাট জেলে পাঠায়।

জাহাঙ্গীর হোসেন কীটনাশকসহ বিভিন্ন পণ্যের ব্যবসা করতেন। ব্যবসার সুবাদে তিনি ঢাকার বিভিন্ন ব্যাবসায়ীর কাছ থেকে মালপত্র আনতেন। ওই সময় ব্যবসায়ীদের কাছে টাকা বকেয়া পড়লে তা তিনি পরিশোধ করেননি।

পরে এক পাওনাদার ব্যবসায়ী ঢাকার একটি আদালতে তার বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা করেন। এর পর জাহাঙ্গীর হোসেনের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি হয়। তিনি গ্রেফতার হলেও ঢাকার আদালতে হাজির হবেন মর্মে জামিন পান। তবে তিনি কথা রাখেননি। তার অনুপস্থিতিতেই ঢাকার আদালত তাকে ৬ মাসের কারাদণ্ড ও ১১ লাখ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। সাজার ওয়ারেন্ট পাঠানো হয় আক্কেলপুর থানায়।

রোববার জয়পুরহাট চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ছেলের জামিনও চেয়েছিলেন জাহাঙ্গীর আলমের বাবা। তবে বিচারক ইসমত আরা তা নামঞ্জুর করে তাকে জেল হাজতে পাঠান। পরে তাকে কেরানীগঞ্জ কারাগারে পাঠানো হয়।

এ ব্যাপারে জয়পুরহাটের পুলিশ সুপার রশিদুল হাসান সোমবার জানান, ওই ঘটনার তদন্তে ইতোমধ্যে ৩ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24