সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:০৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের! জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত

নিজের দ্বিতীয় বিয়ের খবর জেনে যাওয়ায় স্ত্রীকে খুন

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট, ২০১৫
  • ১৭১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ের কাহিনী স্ত্রী জেনে যাওয়া নিজ স্ত্রীকে খুন করল পাষান্ড স্বামী জুয়েল বিশ্বাস।
ঘটনার রাতে হাসির ছলেই স্ত্রী নাছিমার হাত-পা বাধে জুয়েল। এরপর শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করে শিশু সন্তানকে নিয়ে পালিয়ে যায় জুয়েল।
রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর এলাকায় গত ২৮ জুন সংঘটিত ‘ক্লুলেস’ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন শেষে এ তথ্য জানায় পুলিশ।
বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা মহানগর পুলিশের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে লালবাগ বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মফিজ উদ্দিন আহম্মেদএ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, গত ৩০ জুন কামরাঙ্গীরচর থানার পশ্চিম রসুলপুর কামাল সুপার মার্টের পেছনের আনোয়ার মিয়ার বাড়ির একটি কক্ষ থেকে তালা ভেঙ্গে অজ্ঞাত এক নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়। একমাস পর পুলিশ এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হয়। পুলিশের কাছে জুয়েল স্ত্রী হত্যার কথা স্বীকার করেছে।
জুয়েল বিশ্বাসের বরাত দিয়ে মফিজ উদ্দিন বলেন, নাসিমা ২০০৮ সালের দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের একটি বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করত। জুয়েল বিশ্বাস পেশায় একজন রং মিস্ত্রী। সেও মোহাম্মদপুর এলাকার একটি মেসে ভাড়া থাকতো। জুয়েল নিজের নাম পরিবর্তন করে ইমন ছদ্মনামে নাসিমার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ায়।
এরপর ২০০৯ সালে তার ভুয়া নাম ঠিকানা দিয়েই নাসিমাকে বিয়ে করে জুয়েল। বিয়ের পর থেকে নাছিমা তার বাবার বাড়ি যশোরে ছিল। আর জুয়েল ঢাকাতেই থাকতো। মাঝেমাঝে যশোরে যেতো জুয়েল। এ অবস্থায় ২০১০ সালে দিপু নামে এক ছেলে সন্তানের জন্ম হয়।
জুয়েলের বাড়ি বরিশাল বললেও সত্যিকারের গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায়। সে ২০১২ বাড়িতে আরও একটি বিয়ে করে। দ্বিতীয় বিয়ে করার পর নাছিমা ক্ষোভ প্রকাশ করে। এরপর থেকে নাছিমাকে হত্যা করার পরিকল্পনা করে।
লালবাগ বিভাগের এ উপ-পুলিশ কমিশনার বলেন, স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর বাসার দরজায় বাইরে থেকে তালা দিয়ে ছেলেকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়া পালিয়ে যায় জুয়েল।বাড়িতে দ্বিতীয় স্ত্রীর কাছে ছেলেকে রেখে আবারও মোহাম্মদপুরের মেসে উঠে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24