সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:২৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের! জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল

নির্বাচনী রোডম্যাপ চূড়ান্ত-সংলাপ শুরু হবে ৩১ জুলাই

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১০ জুলাই, ২০১৭
  • ৬৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দেড় বছরের কাজের প্রস্তাবিত রোডম্যাপ চূড়ান্ত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আগামী ১৬ জুলাই তা (বই আকারে) প্রকাশ করার কথা রয়েছে। এ ছাড়া রাজনৈতিক দলসহ স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে ৩১ জুলাই থেকে সংলাপ শুরু করবে নির্বাচন কমিশন। অক্টোবর পর্যন্ত ধাপে ধাপে সুশীল সমাজ, গণমাধ্যম, পর্যবেক্ষক সংস্থা, সাবেক সিইসি-ইসি ও রাজনৈতিক দলের মতামত নেওয়া হবে। সংসদীয় আসনের সীমানা পুনর্বিন্যাস, আইন সংস্কারসহ অন্তত সাতটি বিষয়ে স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে সংলাপে আলোচনা হবে। তবে ইসির সংলাপে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) বিষয়টি আলোচ্যসূচিতে না থাকায় আগামী একাদশ সংসদে ইভিএম ব্যবহার করার সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন ইসির কর্মকর্তারা। গতকাল রোববার নির্বাচন ভবনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে কমিশনের বৈঠকে এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। পরে কমিশনের বৈঠক শেষে ইসি সচিব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ সাংবাদিকদের জানান, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রোডম্যাপ চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে কমিশন। এতে সাতটি বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ১৬ জুলাই কর্মপরিকল্পনা সূচিটি বই আকারে প্রকাশ করা হবে। সংলাপের বিষয়ে সচিব বলেন, প্রাথমিকভাবে ৩০ জুলাই সংলাপ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও তাতে পরিবর্তন করা হয়েছে। সিইসি মহোদয় বিদেশ সফর শেষে ওইদিন বিকালে দেশে ফেরার কথা রয়েছে। তাই বৈঠকটি ৩১ তারিখ বিকাল ৩টা থেকে শুরু হবে। পর্যায়ক্রমে গণমাধ্যমের প্রতিনিধি, নির্বাচন পর্যবেক্ষক, সাবেক সিইসি-নির্বাচন কমিশনার ও রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ করা হবে বলে জানান তিনি। আলোচনার অন্যতম এজেন্ডাগুলো হলো— আইনি কাঠামোসমূহ পর্যালোচনা ও সংস্কার, কর্ম-পরিকল্পনার ওপর পরামর্শ গ্রহণ, সংসদীয় এলাকার নির্বাচনী সীমানা পুনর্নির্ধারণ, জাতীয় পরিচয়পত্র প্রস্তুতকরণ এবং বিতরণ, ভোটকেন্দ্র স্থাপন, নতুন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন এবং নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের নীরিক্ষা এবং নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট সবার সক্ষমতা বৃদ্ধির কার্যক্রম গ্রহণ। আগস্ট থেকে অক্টোবর পর্যন্ত রাজনৈতিক দলগুলোর সংলাপ করা হবে। সীমানা পুনর্নির্ধারণ ও আইন সংস্কারে দুজন পরামর্শক নিয়োগ দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি। রোডম্যাপে জুলাই থেকে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আইন সংস্কারের পরিকল্পনা রাখা হয়েছে। এ জন্য জুলাই থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ধাপে ধাপে সুশীল সমাজ, গণমাধ্যম, পর্যবেক্ষক সংস্থা, সাবেক সিইসি-ইসি ও রাজনৈতিক দলের মতামত নেওয়া হবে। আর সংসদীয় আসনের সীমানা নির্ধারণের বিষয়ে প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে— আইন সংস্কারের বিষয়ে শুধু জনসংখ্যাকে বিবেচনায় না এনে জনসংখ্যা, ভোটার সংখ্যা ও আয়তনকে বিবেচনায় আনা যেতে পারে। রাজধানীর মতো বড় শহরে আসন সংখ্যা সীমিত করে নির্দিষ্ট করা যায়। এ ছাড়া গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশে (আরপিও) বেশ কিছু বিষয় স্পষ্ট করার পরিকল্পনাও নেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে দেশে ও বিদেশে অবস্থানরত ভোটারদের পোস্টাল ব্যালটে ভোট দেওয়ার পদ্ধতি সহজ করার চিন্তাও করা হচ্ছে। অন্যদিকে আগামী নির্বাচনের জন্য সম্ভাব্য ভোটকেন্দ্র নির্ধারণের সময়সূচি নির্ধারণ করা হয়েছে ২০১৮ সালের জুন মাসে। জুলাইয়ে খসড়া প্রকাশ, আগস্টে দাবি/আপত্তি নিষ্পত্তি করার পরিকল্পনা রয়েছে ইসির। আর ভোটগ্রহণের ৩৫ দিন আগে কমিশন তা গেজেট আকারে প্রকাশ করবে। আর আগামী অক্টোবরের মধ্যে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের নিবন্ধনের শর্তাদি পালন করছে কিনা সে বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করবে ইসি। আগামী বছরের জানুয়ারিতে সেই অনুযায়ী তাদের নিবন্ধন বহাল রাখার বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। এর আগে চলতি বছরের অক্টোবরে নতুন দলের নিবন্ধনের জন্য দরখাস্ত আহ্বান করবে ইসি। আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে নতুন দলের নিবন্ধন চূড়ান্ত করা হবে। জানা গেছে, ২০১৮ সালের নভেম্বরের মাঝামাঝিতে একাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে ডিসেম্বরের শেষে অথবা জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে ভোট গ্রহণের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে নির্বাচন কমিশন। ভোটের জন্য প্রস্তুত থাকতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে ইসির মাঠ কর্মকর্তাদের। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতায় সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্বের ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসি। এ কর্মযজ্ঞকে এগিয়ে নিতে চার নির্বাচন কমিশনারকে নিয়ে আলাদা আলাদা চারটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির আগের ৯০ দিনের মধ্যে একাদশ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের বাধ্যবাধকতা রয়েছে বলে জানিয়েছে ইসি।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে ইভিএমে ভোট হচ্ছে না— ইসি : ইভিএম ব্যবহার নিয়ে বিএনপির বিরোধিতার মুখে একাদশ সংসদ নির্বাচনে এ প্রযুক্তি ব্যবহার না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এ জন্য রাজনৈতিক দলসহ অংশীজনের সংলাপেই বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত রাখা হয়নি। জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশন সচিব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বলেন, ইভিএম প্রসঙ্গটি বাদ রেখেই ইসি রোডম্যাপ চূড়ান্ত করেছে। এতে নিশ্চিত করে বলা যায়, আসন্ন সংসদ নির্বাচনে তা ব্যবহার করা হচ্ছে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24