শনিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২০, ০৭:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
চিরনিদ্রায় নিজের তৈরী কবরে শায়িত জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় জগন্নাথপুর পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আব্দুল মনাফকে শেষ বিদায়,জানাজায় শোকার্ত মানুষের ঢল পৌর মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহে পরিকল্পনা মন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন পৌর চত্বরে মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সন্মেলনে পরিবর্তনের পক্ষে তৃণমূল নেতাদের আওয়াজ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে:শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরে শিশুর মৃত্যু:’শিশুটি যখন মৃত্যুের যন্ত্রনায় চটপট করছিল,যখন ডাক্তার-নার্স ঘুমে’ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরের চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান ডা. আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী বারডেমের নতুন অতিরিক্ত মহাপরিচালক

পিটিআই সুনামগঞ্জে একদিন ||আব্দুল মতিন

স্টাফ রিপোর্টার
  • Update Time : শুক্রবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ৪৫৯ Time View
পিটিআই, সুনামগঞ্জ।হঠাৎ গেলাম।নিজের প্রয়োজনে নয়। এক শিক্ষার্থীর প্রয়োজনে।নেটিজেনরা বাবা দিবস পালন করছে। ফেসবুকে।

শিক্ষক ও শিক্ষা অফিসার বৃন্দের প্রশিক্ষণ ক্লাস চলছে।একদম ক্লাসের মতো।বারান্দায় একবার চুপিসারে হেঁঁটে এলাম। বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাসের দিন গুলো ছুঁয়ে গেল। হৃদয়ে।

ছুঁয়ে গেল সাস্টের এক কিলোতে বর্ষায় রিক্সায় পলিথিন ধরা স্মৃতি। বৃষ্টি থেকে বাঁচতে ছাতা টানা বন্ধুদের উল্লাসের মুখগুলো। মুখাবয়ব অস্পষ্ট।কেন অস্পষ্ট ? কোথায় তাঁরা আজ? কোন মায়াজালে বন্দী আগুন পাখি ?

জীবনের জন্য চাকুরী করে।সংসার করে। ধূসর রঙের ভবনে ক্লাসে বেড়ে উঠা যৌবনের সাথী গুলো আজ নিজেই এক একটি ধূসর ভবন। দেশে – প্রবাসে।সময়  কতো দ্রুত চলে যায়! সময়ের গর্ভে।

পিটিআই’র দুপাশে বিল্ডিংয়ে ঘেরা ক্যাম্পাস নিরব। ক্যাম্পাসের গোলচত্ত্বরের বাগানের কলাবতী,গোলাপ নৈঃশব্দ্যে দাঁড়িয়ে আছে।এক কোণে নিরব বধ্য ভূমি। যুুদ্ধের সময় যাঁদের নিষ্ঠুরভাবে  হায়েনারা জীবন কেড়ে নিয়েছে ।তাঁদের আত্মা দেখছে আমায়।এই নিরবতায়। শহীদদের বুকের উপর প্রশাসনিক ভবন! নাম সাঁটানো হয়নি কোথাও।রাষ্ট্র স্বাধীন। আমরা স্বাধীন। ভোগ করি স্বাধীনতা।

ইনট্রসপেকশন দিয়ে দেখলাম।অনেক কিছু।কেউ বুঝতে পারল না! কেউ কেন বুঝবে? সাথে থাকা সিএনজির দিকে তাকালাম। ড্রাইভার নেই।গেটের বাইরে গেছে।আমি একা।পরনে হাফশার্ট।পুরাতন প্যান্ট।পায়ে চামড়ার স্যান্ডেল।আউরি বাতাসে এলোমেলো চুল।

কাঁচা জামের রঙের শাড়ীপড়া শতাধিক শিক্ষিকারাএকসাথে বের হয়েছেন। বয়স্ক শিক্ষকরা ও। মুখে দাঁড়ি। বয়সের চাপ স্পষ্ট। ক্লান্ত। আমি গোল চত্ত্বরে একা। ড্রাইভার কে মোবাইলে খুঁজি। নাম্বার বিজি।অন্য মনস্কের ভান করি । অনধিকার চর্চার অনুতাপ মনে। কে আমি?

কেউ একজন সালাম দিল।কাঁচা জামের রঙের শাড়ির বহর থেকে।স্যার,আপনি ভাল আছেন? চিনার আগেই পা ছুঁয়ে  সালাম।সবার মনযোগ আমার দিকে। মুখ তুলতেই দেখি কলেজের সাবেক ছাত্রী ফাহিমা। শিক্ষক প্রশিক্ষণার্থী।আট বছর আগে কলেজে পড়িয়েছিলাম।

সে ডাকছে আরেক শিক্ষার্থীকে,এই গীতা ! স্যার এসেছেন।প্রিন্সিপাল স্যার।গীতা ও দৌড়ে এসে পা ছুয়ে সালাম করলো। বাঁধা সত্ত্বেও।চোখে তাঁদের প্রাপ্তির আনন্দ।শিক্ষক কে পেয়ে।প্রশিক্ষণের ক্লান্তিরা নিয়েছে ছুটি।

ক্লাসে দাঁড়িয়ে পড়ান শিক্ষকরা।শিক্ষার্থীরা বসে শিখে।সেই ক্লাসে দাঁড়ানো শিক্ষকদের শিক্ষার্থীরা আজীবন সম্মান করে।শিক্ষক হয়ে শিক্ষককে সম্মান দিতে  তাঁরা এগুলো করছে।এরই নাম শিক্ষকতা। একটু আগেও তাঁরা কোন একটি বিষয়ে স্মরণ করেছিল আমায়। শুনে খুশি হলাম। এতক্ষণে নিরবতা ভাঙল ।একটা পরিচয় বের হলো আগন্তকের।

মায়ের শাড়ীর ঘ্রাণে অন্ধকারে চিনে শিশু।অন্ধ হলেও। শিক্ষক কে দেখে সম্মান দিতে ভুল করেনা শিক্ষার্থীরা। বয়স যতই হোক। যে পেশায় থাকুক। যত বড়ই হোক। এভাবেই বেঁচে থাকেন শিক্ষকরা।

একযুগ আগে পাশ করা  রাহিমা ছুটে এলো। ছুটে এলো আলেয়া। ফারহানা,রুজি,শেফা কেমন আছে?জানতে চাইলাম।শেফা সড়ক দূর্ঘটনায় মারাত্মক আহত হয়েছে। খুব কষ্ট পেলাম।  


ফাহিমা,গীতা,রাহিমা এখন সংসার চালায়।তাঁদের সন্তান আছে। চাকুরী আছে। সবাই বাসায় যেতে অনুরোধ করলো।অন্যদিন যাবো।অন্য দিন কখন আসবে?জানিনা।মনে পড়ল তাঁদের সাথের দেশে-প্রবাসের শিক্ষার্থীদের। ক্যাম্পাস ভরা ফুল গুলোকে। যারা আজ বিশ্বব্যাপী গন্ধ বিলায়। বিভিন্ন পদে।

শিক্ষক ব্যতিক্রম ফুল গাছ। একটি ফুল গাছ থেকে একই বর্ণের,গন্ধের ফুল ফুটে। শিক্ষক নামক ফুল গাছ হরেক বর্ণের, গন্ধের ফুল ফুটায়। যে ফুল গুলোর নাম প্রিয় শিক্ষার্থী।শিক্ষকের কাছে মমতার।সন্তানের মতো। এঁরা কখনো সাবেক হয়না। এ বন্ধন শ্রদ্ধার, ভালবাসার। অমর।

প্রশিক্ষকদের আতিথেয়তায় মুগ্ধ হয়ে বিদায় নিলাম।তবু মনের ক্যাম্পাসে উঁকি দিল ওরা। বারবার উঁকি দিল।ভাল থেকো শিক্ষার্থীরা। যে যেখানে আছো। খুব ভাল থেকো।


লেখক: প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ,
শাহজালাল মহাবিদ্যালয়,জগন্নাথপুর,সুনামগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ ২০১৭।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24