শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০২:১৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১ জেলা আ.লীগের গণমিছিল ৫ বছরেও শেষ হয়নি জগন্নাথপুরের ভবেরবাজার-গোয়ালাবাজার সড়কের কাজ,দুর্ভোগ লাখো মানুষের “জুম্মু কাশ্মীরে,গণতহ্যা শুরু করেছে মোদী সরকার”

বউয়ের জ্বালায় হোটেলেও আত্মগোপনে থাকা হলো না ব্যবসায়ীর!

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৩৩ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

কোহিনুর মামলার এজাহারে অভিযোগ করেন, চট্টগ্রাম নগরীর রিয়াজউদ্দিন বাজারের কাঁচাবাজারে তার স্বামী জসিম উদ্দিনের একটি আড়ৎ আছে। বুধবার বিকেল ৪টার দিকে জসিম উদ্দিন আড়ৎ থেকে নগরীর চান্দগাঁও থানার তৈয়বিয়া সাত্তার হাউজিং সোসাইটিতে বাসায় যান। রাত সাড়ে ১২টার দিকে বাসা থেকে বেরিয়ে তিনি আর ফেরেননি। তার ধারণা, ব্যবসায়ী স্বামী জসিম উদ্দিনকে অপহরণ করা হয়েছে। তবে কারা অপহরণ করেছে এই ব্যাপারে সুনির্দিষ্টভাবে কাউকে দায়ী করেননি তিনি।
এজাহার মুলে মামলা দায়েরের পর পুলিশ ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিনের খোঁজে তাৎক্ষনিকভাবে মাঠে নেমে পড়েন। শহরের অলি-গলিতে খোঁজাখুঁিজর খবর পৌঁছে যায় হোটেলে আত্মগোপনে থাকা জসিম উদ্দিনের কাছেও। ফলে নিরুপায় হয়ে তিনি বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে আড়তে ফিরে আসেন। সেখানে গিয়েও দেখেন একদল পুলিশ বসা। একপর্যায়ে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া করে বাসা থেকে বেরিয়ে হোটেলে আত্মœগোপনের কথা স্বীকার করেন জসিম উদ্দিন।
নগর কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন এ প্রসঙ্গে বলেন, বুধবার বিকেল ৪টার দিকে জসিম উদ্দিন আড়ত থেকে বাসায় যান। বাসায় পারিবারিক বিষয় নিয়ে ঝগড়া হয়। কিন্তু ঝগড়ার বিষয়টি জানাননি স্ত্রী কোহিনুর। রাত সাড়ে ১২টার দিকে তিনি বাসা থেকে বেরিয়ে যান। রাতে কোতোয়ালী এলাকায় একটি আবাসিক হোটেলে আত্মগোপন করেন। পুলিশ খোঁজাখুঁিজর পর বৃহ¯পতিবার রাতে তিনি আড়তে গিয়ে দেখেন, সেখানে পুলিশ অবস্থান করছে।
জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তিনি আর কোনোদিন এই ধরনের কর্মকান্ড করে পরিবারের সদস্যদের দুশ্চিন্তায় ফেলবেন না মর্মে পুলিশকে মুচলেকা দেন।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন বলেন, ভাই স্ত্রীর জ্বালায় ঘর ছেড়ে হোটেলে গেলাম সেখানেও থাকতে পারলাম না। পুলিশ যেখানে আমার স্ত্রীকে শাসানো দরকার সেখানে উল্টো আমাকে শাসিয়ে গেলো। মুচলেকা নিল, যেন এ রকম আমি আর না করি। এখন দেখছি কবরই নিরাপদ।
স্ত্রীর জ্বালাটা কি রকম জানতে চাইলে জসিম উদ্দিন বলেন, ভাই ঘরের কথা বাইরে বলা ভাল না। পারিবারিক অশান্তি আর কি? এগুলো কি বলা যায়। বললে এগুলো নিয়ে বাইরের লোকে আরও হাসহাসি করবে। তাই থাক..।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24