রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট মিরপুর ইউপি নির্বাচনে মনোনয়ন বাছাই,চেয়ারম্যান ৭প্রার্থীসহ ৬৫ জন বৈধ, দুই প্রার্থী বাতিল কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নতুন ২ কাণ্ডারির পরিচিতি জনগণের মৌলিক অধিকার ও আইনের শাসনে গুরুত্ব দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী দ.সুনামগঞ্জে বিদেশী রিভলবারসহ গ্রেফতার ১ সাংবাদিক এ এস রায়হানের পিতার মৃত্যু, জানাজা সম্পন্ন পাটলী উইমেন্স কলেজ উন্নয়নে প্রবাসীদের ১২ লাখ টাকার অনুদান জগন্নাথপুরে শ্রমিক-ব্যবসায়ীদের দ্বন্দ্বের নিস্পত্তি, পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার বাংলাদেশে ঢুকে মসজিদ নির্মাণে বিএসএফ’র বাধা প্রদান জগন্নাথপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন

বর্ণ মালার মুক্তির মিছিল প্রসঙ্গ অধ্যক্ষ মো. আব্দুল মতিন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭
  • ৭০ Time View

শিমুল,পলাশের বনে লাল রঙের আগুন লাগা সৌন্দর্যে
বারবার মনেপরে ৮ই ফাল্গুন,২১শে ফেব্রুয়ারি;মাতৃভাষার জন্য সালাম,বরকত,রফিক,
জব্বার,শফিউল এর বিরল আত্মত্যাগ আর মাতৃভাষা
বাংলার শৃঙ্খল মুক্তির দিন আর বেদনার নীল রঙের দুখিনি বর্ণমালার মুক্তির সূদীর্ঘ ইতিহাসের কথা।

ভাষা তত্ত্ববিদ ড.মুহম্মদ শহীদুল্লাহ এর মতে,’গৌড়ি
প্রাকৃত’ থেকে নানা বিবর্তনের মধ্য দিয়ে বাংলা ভাষার
উৎপত্তি ও বিকাশ লাভ করেছে। কেউকেউ উৎস হিসেবে চর্যাপদ কে চিহৃিত করেছেন যা বৌদ্ধ সহজিয়াদের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। ৬৪০ খ্রিস্টাব্দে
ভারত বর্ষে ইসলামপ্রচার শুরু হলে তুরস্ক, মিশর ,ইয়েমেন প্রভৃতি অঞ্চল থেকে আসা প্রচারকগন বাংলা ভাষা শিখে ধর্মের সৌন্দর্য সবার সামনে তুলে ধরতেন। ১২০১সালে ইখতিয়ারউদ্দিন মুহম্মদ বিন বখতিয়ার খলজি যখন ১৭জন ঘোড় সরয়ার নিয়ে লক্ষণ সেনকে পরাজিত করেবাংলা বিজয় করেন তখন থেকে মানুষের জীবনের সাথে জড়িত হলো বাংলা।
ড.দীনেশ চন্দ্র সেন এর কথাটি স্মর্তব্য,’মুসলমান আগমনের পুর্বে বঙ্গ ভাষা কোন কৃষক রমণীর ন্যায়
দীনহীন বেশে পল্লী কুটিরে বাস করতেছিল’।
১৩৫২খ্রিস্টবাদে সুলতান শামসুদ্দিন ইলিয়াছ শাহ
যে স্বাধীন বাংলা প্রতিস্টা করেছিলেন তা দীর্ঘ দু’শ
বছরের অধিক কাল স্থায়ী ছিল। বাংলা সাহিত্যের সর্বাধিক বিস্তার ঘটল।সপ্তদশ শতাব্দীর কবি ছিলেন আব্দুলহাকিম,সৈয়দআলাওল,মুহম্মদসগীর,সৈয়দহামজা,শেখ ফয়জুল্লাহ,শেখ চান্দ, শাহগরিবুল্লাহ প্রমুখ।
১৭৫৭ সালের ২৩ শে জুন পলাশীর ঘাতকতা বাংলার
স্বাধীনতা সূর্য অস্থ গেলে ইস্টইন্ডিয়া কোম্পানীর প্রায় দু’শ বছরের ছোবলে পরে দুখিনী বাংলা ভাষা। দূর্বোধ্য
সংস্কৃত বহুল বাংলায় সাহিত্য চর্চা ভাটা পড়ে।
১৯৪৭সালে দ্বিজাতি তত্বের ভিত্তিতে ভারত,পাকিস্তান নামে দুটি স্বাধীন রাষ্টের জন্ম হয়। ব্রিটিশরা তাদের ‘ভাগকর,শাষন কর’ নীতির প্রয়োগরেখে ভারত ছাড়ে।
শুধু ধর্মের কারনে পাকিস্তানে পরে যায় তখনকার পুর্ব বাংলা,আজকের বাংলাদেশ।
১৯৪৭থেকে ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত শুধু দুখিনি মায়ের ভাষা বাংলাকে প্রতিষ্টার জন্য রক্তাক্ত সংঘাত করে,প্রাণ দিয়ে তাঁঁর সন্তানেরা পাকিস্তানি উর্দুর কবল থেকে বাংলাকে উদ্ধার করে। সেদিন থেকে ২১ আমাদের অসাম্প্রদায়িক চেতনার শক্তির উৎস; যে চেতনার উৎস ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রচন্ড শক্তি,সাহস দিয়ে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্টা করে।
১৯৯৯ সালে জাতিসংঘের অংগসংঠন ইউনেস্কো ২১ ফেব্রুয়ারী কে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ঘোষণা দেয় যা আমাদের বৈশ্বিক মর্যাদা দিয়েছে। বিভিন্ন দেশের নাগরিক কোরিয়ার হেজিন,চীনের সোকামলিন,
নিউজিল্যান্ডের জনমেকমুলান,যুক্তরাষ্ট্রের জেকির মেইয়ার,ফিনল্যান্ডের আরিয়্যা তৈডাইনেন,কানাডার ডানিয়েললালন্ডে,ব্রিটিশ নাগরিক এলিজাবেথ জেম সিম্পসন আজ বাংলা ভাষা শিখে বাংলাভাষা ও সংস্কৃতির প্রশংসা করে তখন গর্বে বুক স্ফিত হয়ে উঠে।
লেখক : মো.আব্দুল মতিন
প্রতিষ্টাতা অধ্যক্ষ,শাহজালাল মহাবিদ্যালয়
জগন্নাথপুর,সুনামগঞ্জ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24