বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:২৪ পূর্বাহ্ন

‘বাবা’ দর্শনে বউ হারালেন দিনমজুর কমলেশ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৯ আগস্ট, ২০১৭
  • ৪৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
কি এক নিয়তি! সংসারে অশান্তি। অভাব লেগেই আছে। স্ত্রী গুড্ডি দেবীকে তাই সঙ্গে নিয়ে স্বঘোষিত ধর্মগুরু রাম রহিম সিংয়ের ডেরায় পা রেখেছিলেন দিনমজুর কমলেশ রাইগর। আশা, যদি ভাগ্য ফেরে! ‘বাবা’ দর্শন তিনি পেয়েছেন বটে, তবে সুখ পাননি। শান্তি পাননি কমলেশ। উল্টো নিজের স্ত্রীটাকেই হারিয়েছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার স্ত্রী ফিরে পাননি তিনি। জানেন না ‘বাবা’র ডেরায় কি অবস্থায় তাকে রাখা হয়েছিল, তার সম্ভ্রম রক্ষা হয়েছে কিনা। কমলেশের এ খবরটি গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করছে ভারতের মিডিয়া। তাতে বলা হচ্ছে, কমলেশের বাড়ি রাজস্থানের জয়পুরে। সেখান থেকে ২০১৫ সালে তিনি স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে যান হরিয়ানায় রাম রহিমের ডেরার উদ্দেশে। পৌঁছেও যান সিরসায় ওই ডেরায়। সেখানে সাক্ষাৎ পান ভারতের বহুল আলোচিত স্বঘোষিত ধর্মগুরু রাম রহিমের। তার পায়ে সমর্পণ করেন নিজেদের। ডেরার সাচ্ছা সৌদা সদর দপ্তরের ভিতরে যে আশ্রম রয়েছে সেখানে অবস্থান করেন ২৪শে মার্চ থেকে ২৮শে মার্চ পর্যন্ত। তারা ‘বাবা’র সাক্ষাৎ পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে যান। মনে মনে ভাবেন, সংসারের অভাব কেটে যাবে। শান্তি ফিরবে দাম্পত্যে। তাই ভেবে জয়পুরে বাড়ির পানে পা রাখবেন তারা এমন সময় ২৮শে মার্চ সকালে ডেরার অন্দরমহল থেকে ডাক পড়ে কমলেশের স্ত্রী গুড্ডির। এ বিষয়ে আনন্দবাজার পত্রিকা লিখেছে, এক ‘সেবকদার’ এসে কমলেশকে বলে, ‘ডেরা প্রমুখের সেবা আছে। তোমার বৌ তাতে স্থান পেয়েছে। সে ভাগ্যবতী।’ এ কথায় কমলেশ তার স্ত্রীকে অন্দরমহলে যাওয়ার অনুমতি দেন। তিনি ভেবেছিলেন, ভালোই হলো। সরাসরি গুরুর ডাক পেয়েছেন গুড্ডি। এবার নিশ্চয়ই তাদের কপাল ফিরবে।
আসলে কপাল ফিরেছিল না ছাই! উল্টো কপাল পুড়েছিল তার। দু’দিন কেটে যায়। গুড্ডি আর ফেরেন না। অস্থির হয়ে পড়েন কমলেশ। তিনি স্ত্রীর খোঁজ নিতে যান ডেরার আধিকারিকদের কাছে। তাকে বলা হয়, ‘বৌ ভালো আছে। তুমি এখন বাড়ি যাও। ঠিক সময়ে গুড্ডি ফিরে যাবে।’ নিজেকে এ সময় অসহায় মনে হয় কমলেশের। তিনি উপায়ান্তর না পেয়ে ছুটে যান সিরসা থানায়। থানা থেকে তাকে বলে দেয়া হয় ‘যেখান থেকে এসেছ, সেখানেও অভিযোগ করো।’ চার ও ছয় বছরের ছেলের হাত ধরে রাজস্থানে ফিরে যান কমলেশ। জয়পুরের জওহর সার্কেল থানায় ডেরা ও তার প্রধান গুরমিতের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন কমলেশ। তাতে তিনি বলেন, গুড্ডিকে ওই আশ্রমে সেবাদাসী করে রাখা হয়েছে বলে আশঙ্কা তার।
শুরু হয় তদন্ত। কিন্তু তদন্তকারী অফিসারদেরই গা-ছাড়া মনোভাব দেখে আদালতের দ্বারস্থ হন কমলেশ। তার আইনজীবী বাবুলাল বৈরোয়া বলেন, ‘প্রভাব খাটিয়ে তদন্ত হাল্কা করার চেষ্টা করছিল ডেরা। ২০১৫-র ২১শে মে আদালতে শুনানির দু’দিন আগে কমলেশকে অপহরণ করে ডেরা-আশ্রিত দুষ্কৃতকারীরা। কমলেশকে আদালতে নিয়ে মামলা তুলে নেয়ার পরিকল্পনা ছিল তাদের। আমি ওইদিন কমলেশকে আদালতে দেখতে পেয়ে দলবল নিয়ে ছাড়িয়ে আনি।’ তার পরেও একাধিকবার সিরসার ডেরা সদরে স্ত্রীর খোঁজে গিয়েছিলেন কমলেশ। প্রতি বার তাকে বলা হয়েছে, স্ত্রী সমাধিতে রয়েছেন। ঠিক সময়ে বাড়ি ফিরবেন।
৭ই সেপ্টেম্বর ফের শুনানি হয় মামলার। তার আগে আদালত গুরমিতকে ধর্ষণের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করায় কিছুটা বল পাচ্ছেন নিরাপদ স্থানে গা-ঢাকা দিয়ে থাকা কমলেশ। আশা, গুরমিতের শাস্তি হলে মুক্তি পাবেন গুড্ডি। কিন্তু কমলেশের ঘনিষ্ঠরা ততটা আশাবাদী নন। বাবুলালের আশঙ্কা, ‘মেয়ে পাচার থেকে অঙ্গ বিক্রি- সব দুষ্কর্মই হয় সিরসাতে।’ তাহলে কি ঘটেছে গুড্ডির ভাগ্যে! তাকে কি পাচার করা হয়েছে, নাকি নারীলোভী ধর্মগুরু রাম রহিমের লালসার শিকার হয়েছেন! এসব বিষয় এখনও অজানা। তবে রোববার গুরমিতের সাবেক গাড়িচালক খট্টা সিংহের বছর দশেক আগেকার একটি সাক্ষাৎকার সমপ্রচার করেছে একটি চ্যানেল। সিবিআইয়ের অন্যতম সাক্ষী খট্টা তাতে অভিযোগ করেছেন, নিজের পার্শ্বচর রঞ্জিৎ সিংহের বোনকে ধর্ষণ করেছিলেন গুরমিত। সূত্রের দাবি, সেই সাধ্বীই গোটা ঘটনা জানিয়ে চিঠি লেখেন প্রধানমন্ত্রীকে। আর তাতেই তদন্তে নামে সিবিআই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24