রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

ভারতীয় সেনাবাহিনীতে বাংলাদেশি!

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২ অক্টোবর, ২০১৭
  • ২৪ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: : দীর্ঘ ৩০ বছর ভারতীয় সেনাবাহিনীতে দায়িত্ব পালন করে অবসরে গেছেন গোয়াহাটির বাসিন্দা মোহাম্মদ আজমল হক। কিন্তু আসাম পুলিশের দাবি, পরিচয় গোপন করে আজমল হক সেনাবাহিনীতে কাজ করেছেন। আদতে তিনি বাংলাদেশের নাগরিক। তার বিরুদ্ধে তথ্য গোপনের অভিযোগে পুলিশ মামলাও করেছে। আগামী ১৩ অক্টোবর যার শুনানি হওয়ার কথা।

কিন্তু ছায়াগাঁও’এর বাসিন্দা আজমল হক বলছেন, এটা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন তথ্য। গত বছর জুনিয়র কমিশন্ড অফিসার হিসেবে অবসরে যাওয়ার সময়ও তার ভেরিফিকেশন হয়েছে। চাকরি জীবনের ৩০ বছরেও এমন অভিযোগ ওঠেনি। তবে এখন কেন?
ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি’কে তিনি বলেন, ‘পুলিশের এমন অভিযোগের পর আমার মন ভেঙ্গে গেছে। জীবনের ৩০টি বছর কি তাহলে অপমানিত হওয়ার জন্য দেশের সেবায় নিয়োজিত ছিলাম?’
বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ পেলে নিন্দার ঝড় ওঠে। পুলিশের এমন কাণ্ডজ্ঞানহীন কর্মকাণ্ডের নিন্দা জানিয়েছেন অনেকেই। এমনকি এই বিস্ফোরক তথ্যে নড়েচড়ে বসেছে খোদ আসাম সরকারও। বিষয়টি তদন্ত করে দেখার কথা রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।
তবে পুলিশের কর্মকাণ্ড নিয়ে যে প্রশ্ন উঠেছে তার উত্তর মেলেনি। আজমল হকের দাবি, ‘সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে হলে পুলিশের তদন্ত অত্যাবশ্যক বিষয়। এছাড়া চাকুরি জীবনেও সবার মতোই তার একাধিকবার পুলিশি তদন্ত হয়েছে। তাহলে জীবনের শেষ দিকে এসে কেনো এমন কলঙ্ক মাথায় নিতে হচ্ছে?’
তার প্রশ্ন, ‘যদি বাংলাদেশিই হয়ে থাকি তবে কেনো গত ৩০ বছরে তথ্যটি সামনে আসেনি?’ অভিযোগ তুললেও আজমল হকের প্রশ্নের জবাব এখনও দেয়নি আসামের পুলিশ প্রশাসন।
আসাম রাজ্যে বাংলাদেশিদের অনুপ্রবেশের অভিযোগটি দীর্ঘদিনের। সংবেদনশীলও বটে… ২০০১ সালে রাজ্যটির অন্তত ৬টি অঞ্চলে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল। এক দশকে যা বেড়ে ৯টিতে দাঁড়ায়।
গত বছর রাজ্যের ক্ষমতা গ্রহণের পর অবৈধ অনুপ্রবেশের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপের ঘোষণা দেয় বিজেপি। কিন্তু স্থানীয়রা বলছেন, অবৈধ নাগরিক খোঁজার নামে তাদেরই নানাভাবে হয়রানি করা হচ্ছে।
আজমল হক জানান, ২০১২ সালে তার স্ত্রী মমতাজ বেগমকেও একই ধরনের অভিযোগের মুখোমুখি হতে হয়। ওই সময় সব ধরনের বৈধ কাগজ-পত্র দেখিয়ে সে যাত্রা রক্ষা পান। সেবার আদালত মমতাজ বেগমকে বৈধ ভারতীয় নাগরিক হিসেবে রায় দেয়।
এমন অবস্থায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীরা রাজ্যের পুলিশ প্রশাসনকে আরও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের পরামর্শ দিয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24