মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:৫৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

ভূমি উন্নয়ন কর ‘খাজনা’ বাড়ছে

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৫ জুলাই, ২০১৫
  • ১৫৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: বিশ বছর পর ভূমি উন্নয়ন কর হালনাগাদ করেছে ভূমি মন্ত্রণালয়। এতে ২৫ বিঘা পর্যন্ত কৃষি জমি করের আওয়ামুক্ত থাকলেও বেড়েছে অন্যান্য খাতের জমির কর। অকৃষি জমিকে ব্যবহারভিত্তিক বাণিজ্যিক, শিল্প ও আবাসিকসহ অন্যান্য খাত হিসেবে উল্লেখ করে ভূমি উন্নয়ন কর বাড়ানো হয়েছে। এ বিষয়ে ৩০ জুন মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পুনর্নির্ধারিত ভূমি উন্নয়ন কর চলতি মাসের পহেলা জুলাই থেকে কার্যকর হবে। খাস জমি ছাড়া সব সরকারি, বেসরকারি সংস্থা, পরিবার বা ব্যক্তিমালিকানাধীন জমির ক্ষেত্রে ভূমি উন্নয়ন কর প্রযোজ্য হবে।
এদিকে নতুন কর হার বলবৎ করার মধ্য দিয়ে এর আগে ১৯৯৫ সালের ৩০ মে জারি করা এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন বাতিল করা হয়েছে। নতুন কর হার অনুযায়ী কোনো জমি ব্যবহারের প্রকৃতি পরিবর্তন হলে জমির মালিককে নিজ উদ্যোগে এসি ল্যান্ড অফিসে গিয়ে কর পুনর্নির্ধারণ করে নিতে হবে। এ সংক্রান্ত আবেদন পাওয়ার পর সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) ৪৫ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে। এছাড়া এবারের প্রজ্ঞাপনে নতুন বেশ কিছু বিষয় সংযুক্ত করাসহ সব ক্ষেত্রে সুস্পষ্টিকরণ করা হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের নীতিনির্ধারণী মহল প্রত্যাশা করছেন, নতুন কর হার যথাযথভাবে কার্যকর হলে সরকারের রাজস্ব আয় যেমন বাড়বে, তেমনি এ সেক্টরে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও শৃঙ্খলা আরও সুচারুরূপে প্রতিষ্ঠিত হবে। জারিকৃত প্রজ্ঞাপনে আগের মতো কৃষি ও অকৃষি জমির জন্য পৃথকভাবে ভূমি উন্নয়ন কর নির্ধারণ করা হয়েছে। কৃষি জমির ক্ষেত্রে ব্যক্তি ও পরিবারভিত্তিক কৃষি জমির পরিমাণ ২৫ বিঘা (৮ দশমিক ২৫ একর) হলে কোনো ভূমি উন্নয়ন কর দিতে হবে না। বাণিজ্যিকভাবে মাছ চাষ ছাড়া এই মওকুফের আওতায় আখ ও লবণ চাষ এবং কৃষকের পুকুরের জমি আওতামুক্ত থাকবে। তবে ২৫ বিঘার ওপরে হলে বা কোনো সংস্থা কর্তৃক যে কোনো পরিমাণ কৃষি জমি অধিকৃত হলে (এখানে সংস্থা বলতে সরকারি-বেসরকারি কোনো প্রতিষ্ঠানের নিয়ন্ত্রণ বা দখলে কৃষি জমি থাকলে বোঝাবে), অথবা চা, কফি, রাবার, ফুল-ফলের বাগান, বাণিজ্যিকভাবে মাছ চাষ, চিংড়ি চাষ, হাঁস-মুরগি ও গবাদিপশুর খামার ইত্যাদি বিশেষ কাজে ভূমি ব্যবহার করলে ভূমির পরিমাণ যাই হোক না কেন, প্রতি শতকে বছরে ২ টাকা হারে কর দিতে হবে। আর এই কৃষি জমি গ্রামে বা পৌর এলাকা কিংবা যেখানেই হোক না কেন, সব স্থানেই একই শর্ত প্রযোজ্য হবে। এছাড়া যেসব জমি ভূমি উন্নয়ন কর মওকুফের আওতায় থাকবে সংশ্লিষ্ট জমির প্রতিটি হোল্ডিংয়ের ভূমি উন্নয়ন কর মওকুফ বাবদ দাখিলা প্রদানের জন্য জমির মালিকের কাছ থেকে বার্ষিক ১০ টাকা আদায় করতে হবে।
বিশ বছর আগের প্রজ্ঞাপনে শুধু ২৫ বিঘা পর্যন্ত কৃষি জমি করের আওতামুক্ত রাখা হয়েছিল। কিন্তু উল্লিখিত দিকনির্দেশনার কিছুই ছিল না। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নতুন নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে প্রকৃত কৃষি জমি ছাড়া কারও পক্ষে ২৫ বিঘার ওপরে কিংবা নিচে জমি থাকলেও করমুক্ত সুবিধা ভোগ করা সম্ভব হবে না।
অকৃষি জমির ভূমি উন্নয়ন কর নির্ধারণে এলাকাভিত্তিক ছয়টি ধাপ সৃষ্টি করা হয়েছে। এর মধ্যে ‘ক’ ধাপে রয়েছে- ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনভুক্ত এলাকা। এখানে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর প্রতি শতকে ৩শ’ টাকা, শিল্প কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ১৫০ টাকা এবং আবাসিক ও অন্যান্য কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ৬০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে বাণিজ্যিক ও শিল্পে ব্যবহৃত জমির জন্য ১২৫ টাকা এবং আবাসিকসহ অন্যান্য জমির ক্ষেত্রে ভূমি উন্নয়ন কর ছিল ২২ টাকা।
‘খ’ ধাপে রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, রংপুর, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনভুক্ত এলাকা। ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জ উপজেলা, সাভার, ধামরাই, চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড, হাটহাজারী ও কক্সবাজার জেলা সদরের পৌর এলাকা। নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার তারাবো পৌর এলাকা এবং সোনারগাঁ উপজেলার কাঁচপুর ও মেঘনাঘাট এলাকা। এছাড়া ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ি, জামিরদিয়া, ধানসুর, ভানডাব, কাঁঠালি ও মেহেরবাড়ি মৌজা। নোয়াখালী জেলার চৌমুহনী পৌর এলাকা। এছাড়া রয়েছে রাজউকের আওতাধীন পূর্বাচল আবাসিক এলাকা।
এখানে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর প্রতি শতকে ২৫০ টাকা, শিল্প কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ১৫০ টাকা এবং আবাসিক ও অন্যান্য কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে এই ধাপে বাণিজ্যিক ও শিল্পে ব্যবহৃত জমির জন্য ১২৫ টাকা এবং আবাসিকসহ অন্যান্য জমির ক্ষেত্রে ভূমি উন্নয়ন কর ছিল ২২ টাকা।
‘গ’ ধাপে ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, নোয়াখালী, পাবনা, বগুড়া, দিনাজপুর, কৃষ্টিয়া, যশোর ও পটুয়াখালী জেলা সদরের পৌর এলাকা। গাজীপুর জেলার শ্রীপুর, কালিয়াকৈর, কালীগঞ্জ, খুলনা জেলার ফুলতলা উপজেলার আটরা গিলাতলা ইউনিয়ন ও দামোদর ইউনিয়নের মশিখালী মৌজা। নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার কাঞ্চন পৌর এলাকা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ, কুমিল্লা জেলার লাকসাম ও চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলা। ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা পৌর এলাকা এবং টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর পৌর এলাকা। নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর পৌরসভা। এছাড়া রয়েছে কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরববাজার পৌর এলাকা।
এখানে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর প্রতি শতকে ২শ’ টাকা, শিল্প কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ১২৫ টাকা এবং আবাসিক ও অন্যান্য কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ৪০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে এই ধাপে বাণিজ্যিক ও শিল্পে ব্যবহৃত জমির জন্য ১২৫ টাকা এবং আবাসিকসহ অন্যান্য জমির ক্ষেত্রে ভূমি উন্নয়ন কর ছিল ২২ টাকা।
‘ঘ’ ধাপে অন্যান্য জেলা সদরের পৌর এলাকা। অন্যান্য সব প্রথম শ্রেণীর পৌর এলাকা। নোয়াখালী জেলার সোনাইমুরি ও চাটখিল পৌর এলাকা এবং লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ ও রায়পুর পৌর এলাকা। নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়ন। বগুড়া জেলার শান্তাহার পৌর এলাকা ও শেরপুর পৌর এলাকা। জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি পৌর এলাকা এবং পাবনা জেলার ঈশ্বরদী পৌর এলাকা। খুলনা জেলার দীঘলিয়া উপজেলার যৌগীপুর ইউনিয়ন ও আড়ংঘাটা ইউনিয়ন, বটিয়াঘাটা উপজেলার জলমা ইউনিয়ন, ডুমুরিয়া উপজেলার গুটুদিয়া ইউনিয়ন এবং যশোর জেলার অভয়নগর পৌরসভা। দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর পৌরসভা। এছাড়া এই ধাপে রয়েছে নোয়াখালী জেলার বশুরহাট পৌর এলাকা।
এখানে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর প্রতি শতকে ১শ’ টাকা, শিল্প কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ৭৫ টাকা এবং আবাসিক ও অন্যান্য কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে এই ধাপে বাণিজ্যিক ও শিল্পে ব্যবহৃত জমির জন্য ২২ টাকা এবং আবাসিকসহ অন্যান্য জমির ক্ষেত্রে ভূমি উন্নয়ন কর ছিল ৭ টাকা।
‘ঙ’ ধাপে অন্য সব পৌর এলাকা। এখানে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর প্রতি শতকে নির্ধারণ করা হয়েছে ৬০ টাকা, শিল্প কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ৪০ টাকা এবং আবাসিক ও অন্যান্য কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ১৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে এই ধাপে বাণিজ্যিক ও শিল্প ব্যবহৃত জমির জন্য ১৭ টাকা এবং আবাসিকসহ অন্যান্য জমির ক্ষেত্রে ভূমি উন্নয়ন কর ছিল ৬ টাকা।
সবশেষে ‘চ’ ধাপে পৌর এলাকা ঘোষিত হয়নি এমন এলাকা ভূমি উন্নয়ন করের আওতায় আসবে। এখানে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর প্রতি শতকে ৪০ টাকা, শিল্প কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ৩০ টাকা এবং আবাসিক ও অন্যান্য কাজে ব্যবহৃত জমির উন্নয়ন কর ১০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে এই ধাপে বাণিজ্যিক ও শিল্প ব্যবহৃত জমির জন্য ১৫ টাকা এবং আবাসিকসহ অন্যান্য জমির ক্ষেত্রে ভূমি উন্নয়ন কর ছিল ৫ টাকা।
জানা গেছে, আবাসিক ও অন্যান্য শ্রেণীতে রাস্তা এবং সরকারি-বেসরকারি সংস্থার (১নং খাস খতিয়ানভুক্ত জমি ছাড়া) আবাসিক ও দাপ্তরিক ভবনাদি বিবেচনা করতে হবে। ‘চ’ ধাপে তথা পৌর এলাকা ঘোষিত হয়নি এমন এলাকার আবাসিক জমি বলতে পাকা ভিটির বাড়ি বা তৎসংলগ্ন আঙিনাকে বোঝাবে।
এদিকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়েছে, ভূমি উন্নয়ন কর আদায়যোগ্য কোনো জমির পরিমাণে শতকের ভগ্নাংশ থাকলে তা পরবর্তী পূর্ণ শতক ধরে ভূমি উন্নয়ন কর নির্ধারিত হবে। এছাড়া সার্বিকভাবে ভূমি উন্নয়ন কর নির্ধারণের ক্ষেত্রে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তাকে নিজ উদ্যোগে এলাকা পরিদর্শন করে ভূমি ব্যবহারের প্রকৃত ধরন অনুযায়ী প্রযোজ্য হারে ভূমি উন্নয়ন কর আদায় নিশ্চিত করতে হবে। ভূমি ব্যবহারের প্রকৃতি পরিবর্তনের কারণে ভূমি উন্নয়ন কর পুনর্নির্ধারণের ক্ষেত্রে ইউনিয়ন বা পৌর ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে সংশ্লিষ্ট সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) অবহিত করে অনুমোদন নিতে হবে। কোনো জমি ব্যবহারের প্রকৃতি পরিবর্তন হলে জমির মালিককে নিজ উদ্যোগে এ সংক্রান্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। এজন্য তাকে নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে সার্ভেয়ারের মাধ্যমে জমি জরিপ করে প্রকৃত ব্যবহারের ভিত্তিতে ভূমি উন্নয়ন কর পুনর্নির্ধারণ করে নিতে হবে। এ ধরনের আবেদন পাওয়ার পর সহকারী ভূমি অফিসার বা এসি ল্যান্ডকে ৪৫ দিনের মধ্যে তা নিষ্পত্তি করতে হবে। আর কেউ এসি ল্যান্ডের সিদ্ধান্তে সংক্ষুব্ধ হলে তিনি সংশ্লিষ্ট জেলার এডিসি (রাজস্ব) বরাবর আপিল করতে পারবেন। একইভাবে তিনি যদি এডিসির সিদ্ধান্তে সংক্ষুব্ধ হন তবে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আপিল করতে পারবেন। এরপর কেউ চাইলে বিভাগীয় কমিশনারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ভূমি আপিল বোর্ডেও যেতে পারবেন। ভূমি আপিল বোর্ডকে এ ধরনের কেস একটি যুক্তিসঙ্গত সময়ের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে। এছাড়া এডিসি, বিভাগীয় কমিশনার পর্যায়ের আপিল ৪৫ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি হতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24