শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:০৪ অপরাহ্ন

মঙ্গল গ্রহে বসবাস করা যাবে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৮৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: পৃথিবীর বাইরে অন্য কোন গ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব আছে কি না কিংবা বসবাস করা সম্ভব হবে কিনা তা নিয়ে অনেক আগে থেকেই গবেষক-বিজ্ঞানীরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আসছেন। বিশেষ করে মঙ্গলে গ্রহে প্রাণের অস্তিত্বের সন্ধান পেতে দীর্ঘদিন ধরে অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে। প্রাণের অস্তিত্বের জন্য মূল উপাদান পানির সন্ধান করছেন বিজ্ঞানীরা মঙ্গল গ্রহে।

অবশেষে মঙ্গলে দীর্ঘ অভিযানের পর সোমবার নাসার বিজ্ঞানীরা ঘোষণা দিলেন সেখানে পানির প্রবাহ রয়েছে। তাদের এ ঘোষণায় আশার আলো দেখা দিয়েছে সবার মনে। কিন্তু বাস্তবে সত্যিই কী সম্ভব হবে মঙ্গলে বসবাস করা সম্ভব হবে? যদি হয় তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে কতদিন। নাসার ঘোষণার পর এ ধরনের নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে এখন মানুষের মনে।

সৌরজগতের চতুর্থ গ্রহ হচ্ছে মঙ্গল গ্রহ। পৃথিবী থেকে অনেকটা লাল দেখানোর কারণে এর অপর নাম হচ্ছে লাল গ্রহ। পৃথিবীর মত ভূ-ত্বক রয়েছে এ গ্রহে। এর ভূ-ত্বকে রয়েছে চাঁদের মত অসংখ্য খাদ, আর পৃথিবীর মত আগ্নেয়গিরি, মরুভূমি এবং মেরুদেশীয় বরফ। সৌর জগতের সর্ববৃহৎ পাহাড় এই গ্রহে অবস্থিত। এর নাম অলিম্পাস মন্‌স। সর্ববৃহৎ গভীর গিরিখাতও এই গ্রহে যার নাম ভ্যালিস মেরিনারিস।

১৯৬৫ সালে মেরিনার ৪ মহাকাশযান প্রথমবারের মত মঙ্গল গ্রহ অভিযানে যায়। এই অভিযানের পর থেকে অনেকেই ধারণা করে আসছিলেন যে মঙ্গলে তরল পানির অস্তিত্ব আছে। মঙ্গল থেকে পাওয়া আলো এবং আঁধারের তরঙ্গের মধ্যে পর্যাবৃত্ত পরিবর্তন পর্যবেক্ষণ করে এই ধারণা করা হয়। বিশেষত মঙ্গলের মেরু অঞ্চল থেকে এ ধরণের পরিবর্তন চোখে পড়ে, যা মহাসাগর বা জলাশয়ের প্রমাণ হিসেবে অনেকেই গ্রহণ করেছিল।

বর্তমান গবেষণায় এটি প্রতীয়মান হয়েছে যে, গ্রহীয় বাসযোগ্যতা তথা একটি গ্রহে প্রাণের বিকাশ ঘটার সম্ভবনার পরিমাণ বহুলাংশে এর পৃষ্ঠতলে পানির অস্তিত্বের উপর নির্ভর করে। এই শর্তটি পূর্ণ করার জন্য গ্রহটিকে অবশ্যই বাসযোগ্য অঞ্চলে থাকতে হবে। বর্তমানে সূর্যের বাসযোগ্য অঞ্চলের ভিতর পৃথিবী অবস্থান করছে। কিন্তু মঙ্গল গ্রহ এই অঞ্চল থেকে মাত্র অর্ধেক জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক একক দূরে অবস্থিত।

এ কারণে এর পৃষ্ঠতলের সব পানি জমে যায় এরকম ধারণা পূর্বে থাকলেও গত ২৮ সেপ্টেম্বর নাসা ঘোষণা দেয় মঙ্গলে তরল পানি প্রবাহের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। সংবাদ সম্মেলনে নাসার প্ল্যানেটারি সায়েন্স বিভাগের পরিচালক জিম গ্রিন ঘোষণা দেন, ‘এতদিন ভাবা হত মঙ্গল একটি শুষ্ক গ্রহ। কিন্তু তা নয়, মঙ্গলে বিশেষ পরিবেশে তরল পানির সন্ধান মিলেছে । এর অর্থ মঙ্গলে এখনও প্রাণের উদ্ভবের পরিবেশ রয়েছে।’

নাসার কৃত্রিম উপগ্রহ মঙ্গলের ‘রেকারিং স্লোপ লিনেই’ এর উপরের স্তরের যে ছবি পাঠিয়েছে, তা জমাট লবণের। এই লবণ মঙ্গলের হালকা বাতাসে থাকা পানির বরফ হওয়া কিংবা বাষ্পে পরিবর্তিত হওয়াকে নিয়ন্ত্রণ করে একে তরল আকারে প্রবাহিত করতে পারে।

২০১১ সালে প্রথম নাসার উপগ্রহ চিত্রে মঙ্গলে আরএসএল ধরা পড়ে; যা গ্রীষ্মকালে দেখা যায়, কিন্তু তাপমাত্রা কমলে মিলিয়ে যেতে শুরু করে। তাপমাত্রা মাইনাস ১০ ডিগ্রির উপরে থাকলেও তা দেখা যায়। মহাকাশযান মার্স রোজন্যান্স অর্বিটারের পাঠানো মঙ্গলের ‘কেমিকেল ম্যাপ’ বিশ্লেষণে নতুন একটি পদ্ধতি খুঁজে বের করেছেন বিজ্ঞানীরা। তারা দেখেছেন, মঙ্গলপৃষ্ঠে বিষুবীয় অঞ্চলের কয়েক স্থানে আরএসএলে ওই লবণ জমে একমাত্র পানির উপস্থিতিতে।

প্রসঙ্গত, এ বছরের শুরুর দিকে নাসার পাঠানো কিউরিওসিটি রোভার মঙ্গলের পৃষ্ঠের কাছাকাছি তরল পানি খুঁজে পেয়েছিল। এই আবিষ্কারের পর মঙ্গল গ্রহ যে একেবারেই ঠান্ডা ও শুষ্ক সে ধারণা থেকে সরে আসেন গবেষকেরা। বিজ্ঞানীরা মনে করেন, মঙ্গলের পৃষ্ঠে এক ধরনের লবণের অস্তিত্ব আছে যা তরল পানিকে ফ্রিজিং পয়েন্টের নিচে একটি অবস্থায় যেতে সাহায্য করে।

নাসার সোমবারের ঘোষণায় বিশ্ব জুড়ে হৈ-চৈ ফেলে দিয়েছে। কেননা, মঙ্গলে পানি থাকা মানেই সেখানে প্রাণের অস্তিত্বের সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে এই লাল গ্রহে ভবিষ্যতে মানুষের বসতি স্থাপনের সম্ভাবনা তৈরি হলো।

শুধু তাই নয়, অবিশ্বাস্য চাঞ্চল্যকর সব তথ্য পাওয়া গেছে মঙ্গলে। রহস্যময়, রক্তিম এ গ্রহে পানির পাশাপাশি আছে অক্সিজেনও। যা প্রাণের জন্য অত্যাবশ্যক। এর মানে এখানে জীবনেরও অস্তিত্ত্ব আছে। তাছাড়া মঙ্গলে অনেক মূল্যবান খনিজ পদার্থেরও সন্ধান পাওয়া গেছে বলে নাসার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। ফলে মানুষের জন্য সম্ভাব্য বাসস্থানের একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

নাসার গবেষকেরা জানিয়েছেন, তারা মঙ্গলের পৃষ্ঠে খনিজ পদার্থের থাকার প্রমাণ পেয়েছেন। তারা এর পৃষ্ঠের ঢালে রহস্যময় দাগও দেখতে পেয়েছেন। বেশ লম্বা সময় ধরে চলা পানির প্রবাহ আর ভাটার টানেই এই দাগের সৃষ্টি হয়েছে বলে তারা জানিয়েছেন। মঙ্গলে যখন গ্রীষ্মকাল, তখন কিছু এলাকায় তাপমাত্রা থাকে –২৩ ডিগ্রি।

কিন্তু বিভিন্ন ধাতব লবণ থাকে বলে সেই পানি এত কম তাপমাত্রাতেও তরল অবস্থায় থাকতে পারে। তখন তা বিভিন্ন টিলা, পাহাড় থেকে স্রোতের মতো নেমে আসে ছোট ছোট খাল বা নালাপথ ধরে। আবার শীতকালের শুরু থেকেই তা শুকিয়ে যায়। মঙ্গলের বিভিন্ন স্থানে তারা এইরূপ জল প্রবাহের অস্তিত্ত্বের সন্ধান পেয়েছেন।

নাসার সহযোগী প্রশাসক জন গ্রুনসফেল্ড বলেন, ‘ মঙ্গলে আমরা পানিকে অনুসরণ করছিলাম, পৃথিবীর বাইরে প্রাণের সন্ধানে আমাদের যে অনুসন্ধান এটা তারই অংশ। এখন আমরা বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নিয়ে বলতে পারি, আমরা যা ভেবেছিলাম, তাই পাচ্ছি। এখন প্রায় নিশ্চিতভাবেই বলতে পারি, মঙ্গলে প্রবাহমান পানি আছে এবং তা এই সময়েই।

নাসার কৃত্রিম উপগ্রহ মঙ্গলের ‘রেকারিং স্লোপ লিনেই’ এর উপরের স্তরের যে ছবি পাঠিয়েছে, তা জমাট লবণের। এই লবণ মঙ্গলের হালকা বাতাসে থাকা পানির বরফ হওয়া কিংবা বাষ্পে পরিবর্তিত হওয়াকে নিয়ন্ত্রণ করে একে তরল আকারে প্রবাহিত করতে পারে। এই নোনা পানি ফিল্টার করে পানযোগ্য সুপেয় পানিতে রূপান্তর সম্ভব বলে নাসা জানিয়েছে।

ওয়াশিংটনে নাসার সদর দপ্তরের মার্স এক্সপ্লোরেশন প্রোগ্রামের নেতৃত্বদানকারী বিজ্ঞানী মাইকেল মেয়ার বলেন. ‘ বছরের পর বছর ধরে মঙ্গলের রহস্য উদঘাটনের জন্য একাধিক মহাকাশযান ব্যবহার করা হয়। আর আজ আমরা জানতে পারলাম, শীতল ও মরু মঙ্গলের বুকে তরল জল বইছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘এবার আমরা আরও জানতে পারলাম, যতোই আমরা এই গ্রহ নিয়ে গবেষণা করবো ততো বেশি আমরা এ সম্পর্কে জানতে পারবো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24