সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের! জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল

মহানবীর (সা.) অনুপম বৈশিষ্ট্য

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২১ জুলাই, ২০১৭
  • ২৭ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
মানবতার ইতিহাসের সবচেয়ে নিকৃষ্ট যুগে মহানবীর (সা.) আবির্ভাব ঘটে। প্রথমত, যে সময়ে তিনি আগমন করেন, সেটিকে ইতিহাসের ভাষায় ‘আইয়ামে জাহেলিয়া’ তথা অন্ধকারের যুগ বা অজ্ঞান তমসাচ্ছন্নতার যুগ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। দ্বিতীয়ত, যে সময়ে তিনি আসেন তখন গোটা পৃথিবীটাই ছিল অরাজকতায় পরিপূর্ণ। তৃতীয়ত, তখনকার সময়ে সবচেয়ে বর্বর, নিষ্ঠুর, অমানবিক আর সর্বপ্রকার জেহালতের মোড়কে জঘন্য হয়ে উঠেছিল আরব সমাজ। যার ফলে আরবের মরুর বুকেই মানবতার সতেজতা নিয়ে আবির্ভূত হয়েছিলেন সর্বশ্রেষ্ঠ মানব মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)। মাত্র কয়েক বছরের ব্যবধানে মানবেতিহাসের সর্বনিকৃষ্ট সমাজ মহানবীর (সা.) অনুপম পরশে হয়ে উঠেছিল মানবেতিহাসের সর্বোৎকৃষ্ট সমাজের নমুনা হিসেবে। তার অবিশ্বাস্য ও তুলনাহীন ব্যক্তিত্বের স্পর্শে এবং অনুসরণীয়-অনুকরণীয় মানবতাবাদী ও মহত্তর আদর্শের বদৌলতে তদানীন্তন নির্দয় ও বর্বর পৃথিবী খুঁজে পেয়েছিল এক সর্বমানবিক, উদার ও অসাম্প্রদায়িক-মানবতাবাদী সমাজ; যার নির্মাতা হিসেবে মহানবী (সা.) ঘোষণা দিতে পেরেছিলেন- ‘খায়রুল কুরুনি কারনি, সুম্মাল্লাযিনা য়ালুনাহুম সুম্মাল্লাযিনা য়ালুনাহুম’ অর্থাৎ আমার যুগ হচ্ছে ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ যুগ, তারপরে শ্রেষ্ঠ হচ্ছে এরপরের যুগ এবং তারপরে শ্রেষ্ঠ হচ্ছে তার পরবর্তী যুগ। আর এখানেই নিহিত রয়েছে মহানবীর (সা.) জীবনের অনুপম বৈশিষ্ট্যাবলির কার্যকারিতা; যার মাধ্যমে তিনি অসাধ্য সাধন করতে পেরেছিলেন।

মহানবীর (সা.) গোটা জীবনটাই বিস্ময় ও কৃতিত্বে পরিপূর্ণ এবং অবস্থান ও মর্যাদাগত উচ্চতা, অনন্যতা ও সাফল্যগাথায় তিনি অবিস্মরণীয়। তার আগমনের প্রেক্ষাপট, জন্মরহস্য, শৈশব-কৈশোর, পিতৃবিয়োগ, মাতৃহারা, দাদা-চাচার তত্ত্বাবধান, যৌবন, বিয়ে-শাদি, নবুয়ত-রেসালত, মোজেজা, মেরাজ, হিজরত, বদর-উহুদ-খন্দকসহ অন্যান্য যুদ্ধ, ইসলামের প্রচার-প্রসার, ব্যক্তিগত-পারিবারিক-সামাজিক বিষয়াদি, স্বামী-পিতা বা নানা হিসেবে তার আচরণাদি, সাহাবিদের প্রাণাধিক প্রিয় হিসেবে তার অবস্থান, বক্তব্যে-কথায়-আচরণে পরিশীলিত রুচিবোধ, চারিত্রিক মাধুর্যে, সমাজ-শোধনে ও সমাজে সত্য-ন্যায়-ইনসাফের অনুপম সৌধ নির্মাণে, মুহাজির-আনসারদের তত্ত্বাবধানে, অসাম্প্রদায়িক-মানবতাবাদী মদিনা রাষ্ট্র গঠনে- সর্বোপরি অশান্ত, বিশৃঙ্খল ও বেদনাক্লিষ্ট সমাজব্যবস্থার ভিতের ওপর ইসলাম নামক জীবন বিধানের পরিপূর্ণতায় তার অবদান বিশ্বসভ্যতায় সুউচ্চ আসন অলঙ্কৃত করে আছে।

মহান আল্লাহ পবিত্র কোরআনে মহানবীকে (সা.) ‘নূর’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। আল্লাহপাক বলেন- ‘কাদ জাআকুম মিনাল্লাহে নূর’ অর্থাৎ অবশ্যই আল্লাহর পক্ষ থেকে তোমাদের কাছে এসেছে নূর। ‘নূর’ মানে আলো, যা অন্ধকারের বিপরীত। কিন্তু উলি্লখিত বাণীতে বিবৃত ‘নূর’ মানে হলো বিশ্বনবী মুহাম্মদ (সা.)। মহানবীর (সা.) শানে বিবৃত আরেকটি বাণীতে উলি্লখিত হয়েছে- ‘আউয়ালু মা খালাকাল্লাহু নূরি’ অর্থাৎ সর্বপ্রথম মহান আল্লাহ যা সৃষ্টি করেছেন তা হচ্ছে মহানবীর (সা.) নূর। পবিত্র কোরআনে মহানবীকে (সা.) ‘সিরাজে মুনির’ তথা প্রদীপ্ত দীপশিখা বলা হয়েছে। আর এসবের মর্মকথা হলো, মহানবী (সা.) হচ্ছেন নূর বা আলো; সেই আলো হচ্ছে জ্ঞানের আলোকবর্তিকা। আরবিতে বলা হয়- ‘আল ইলমু নুরুন’ অর্থাৎ জ্ঞানই হচ্ছে আলো। আইয়ামে জাহেলিয়ার অন্ধকারকে মহানবী (সা.) তার ওপর প্রদত্ত অহির জ্ঞানের আলোকমালায় উদ্ভাসিত করেছিলেন, সব জেহালতকে দূরীভূত করতে পেরেছিলেন। অভিযোগ আর অপরাধের সীমা-সংখ্যা ছিল না যে সমাজে সে সমাজের আমূল পরিবর্তন হয়ে এমন অবস্থায় উপনীত হলো যে, সেখানে আর কোনো অপরাধ সংঘটিত হতো না। এমনকি কারও বিরুদ্ধে নূ্যনতম কোনো অভিযোগও ছিল না। অশান্তি আর অকল্যাণই ছিল যে সমাজের নিত্যদিনের বিষয়, পরম শান্তি বিরাজিত আর অপরের কল্যাণ বিধানে সদা তৎপরতা চালানোই হয়ে গিয়েছিল তাদের পরিবর্তিত অভ্যাস। আর এসবই সম্ভব হয়েছিল মহানবীর (সা.) হিরণ্ময় ছোঁয়ায়।

আইয়ামে জাহেলিয়াতে নবুয়ত লাভের আগেও মহানবী (সা.) ছিলেন বিরল গুণাবলির অধিকারী। সকলেই তাকে ডাকত ‘আল-আমিন’ বা বিশ্বস্ত বলে। চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি আর হস্তচ্যুতির ভয়ে অনেকেই তাদের সহায়-সম্পদ, অর্থরাজি বা অন্যান্য মূল্যবান জিনিসপত্র মহানবীর (সা.) কাছে আমানত রাখত। কেননা তার কাছে গচ্ছিত সম্পদের পুনঃপ্রাপ্তির নিশ্চয়তা ছিল শতভাগ, যা বর্বর আরব সমাজে ছিল কল্পনারও বাইরে। ধনাঢ্য ও বিদুষী নারী খাদিজাতুত তাহিরা তাকে চিনতে পেরেছিলেন ষোলআনা। তাই তো তাকে সর্বস্ব বিলিয়ে একান্ত আপন করে নিলেন। মহানবী (সা.) খাদিজার (রা.) ভালোবাসার প্রতিদানে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন, তা স্বামী-স্ত্রীর মধুময় সম্পর্কের ইতিহাসে এক অনন্য নজির। ইসলামের ইতিহাসে খাদিজার (রা.) ত্যাগের যেমন তুলনা হয় না, ঠিক তেমনি মানবজাতির দাম্পত্য ইতিহাসেও মহানবী (সা.)-বিবি খাদিজার (রা.) ঘনিষ্ঠতার কোনো তুলনা হয় না। মহানবীর (সা.) কোনো কোনো সমালোচক তার দাম্পত্য জীবনে একাধিক স্ত্রী গ্রহণের বিষয়টিকে ভিন্নভাবে উপস্থাপন করে থাকেন। তারা বলতে চান যে, মহানবী (সা.) তার অধিক যৌন প্রবৃত্তি চরিতার্থ করার জন্য একাধিক স্ত্রী গ্রহণ করেছেন। এ ধরনের অভিযোগের সঙ্গে প্রকৃতপক্ষে মহানবীর (সা.) জীবনের বাস্তবতার কোনো মিল পাওয়া যাবে না। তিনি যদি যৌন প্রবৃত্তি নিবারণের জন্যই একাধিক স্ত্রী গ্রহণ করবেন, তাহলে জীবনের প্রথমে মাত্র ২৫ বছরের যুবক হয়ে কী করে তিনি ৪০ বছরের বিগত যৌবনা, অধিকন্তু যার ইতিপূর্বে আরও দুটি বিয়ে হয়েছিল তাকে কেন বিয়ে করবেন। এমনকি যতদিন হজরত খাদিজা (রা.) বেঁচেছিলেন ততদিন মহানবী (সা.) আর কোনো স্ত্রী গ্রহণ করেননি। মহানবীর (সা.) সন্তানাদি কেবল ইব্রাহিম বাদে বাকি সকলেই হজরত খাদিজার ঔরসজাত ছিলেন। বস্তুত ইসলামের প্রচার-প্রসারের সুবিধার্থে এবং সমসাময়িক নানাবিধ কারণে তাকে একাধিক বিয়ে করতে হয়েছে।

মহানবী (সা.) মানবজাতির ইতিহাসে সবচেয়ে বন্ধুবৎসল মানুষ ছিলেন। সহকর্মীদের মূল্যায়নে তিনি অনন্য নজির স্থাপন করেছেন। সাহাবায়ে কেরামের ব্যাপারে তার ঐতিহাসিক ঘোষণা হচ্ছে- ‘আস সাহাবি কান্নুজুম বিআইয়ি ইকতিদাইতুম ইহতিদাইতুম’ অর্থাৎ আমার সাহাবিরা একেকজন আকাশের দেদীপ্যমান জ্যোতিষ্ক সদৃশ; তোমরা তাদের যাকেই অনুসরণ করবে সেই সরল-সঠিক পথপ্রাপ্ত হবে। সাথি, বন্ধু বা সহকর্মীদের ব্যাপারে এমন সম্মানজনক ঘোষণা মানবেতিহাসে বিরল। মহানবীর (সা.) সাহাবিরাও ছিলেন বিরল গুণাবলির অধিকারী। তাদের ত্যাগ-তিতিক্ষা, বীরত্ব-সাহসিকতা, কৌশল আর বুদ্ধিদীপ্ততার কোনো তুলনা নেই। মহানবীকে (সা.) ভালোবাসার ক্ষেত্রে এবং ইসলামের যে কোনো স্বার্থ সংরক্ষণে তাদের জুড়ি নেই। তাই তো মহান আল্লাহ সন্তুষ্টচিত্তে তাদের সার্টিফিকেট প্রদান করেছেন_ ‘রাদিয়াল্লাহু আনহুম ওয়ারাদু আনহু’ অর্থাৎ মহান আল্লাহ তাদের প্রতি সন্তুষ্ট আর তারাও মহান আল্লাহর প্রতি সন্তুষ্ট।

মহানবীর (সা.) অনুপম বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত জীবনের বিস্তৃত অংশ হতে সামান্য কয়টি দিক এখানে তুলে ধরা হবে- আল্লাহ চাহেতু উপরোলি্লখিত বিষয়ে উপস্থাপনার এ ধারা অব্যাহত থাকবে।

ড. মোহাম্মদ বাহাউদ্দিন
লেখক ও গবেষক; অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
সুত্র-সমকাল

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24