মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন

মানবাধিকার : প্রেক্ষিত বাংলাদেশ- এডভোকেট জিয়াউর রহিম শাহিন

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২২ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১৪০ Time View

মানবাধিকার। প্রত্যেকটি আদম সন্তান জন্মগত ভাবে যে সব অধিকার রাষ্ট্র থেকে পেয়ে থাকে তাই মানবাধিকার। সকল নাগরিকের মানবাধিকারের গ্যারান্টি সরকারকেই দিতে হয়। মানবাধিকার বা ঐটগঅঘ জওএঐঞঝ বলতে জাতি, গোত্র, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল নাগরিকের আত্মোপলদ্ধি এবং ব্যক্তিত্ব বিকাশের সর্বজনগ্রাহ্য অধিকার গুলোকেই বুঝিয়ে থাকে। কোন রাষ্ট্রের জনগণের মৌলিক অধিকার যখন খর্ব হতে থাকে, যখন মানবতা আর মানবাধিকার ভুলুন্ঠিত হতে থাকে তখন রাষ্ট্রের মূল চরিত্রে ক্রমান্বয়েই ধস্ নামতে থাকে- সমাজে অশান্তি আর অরাজকতা বিরাজ করতে থাকে। জুলুম নির্যাতনের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে থাকলে পুরো রাষ্ট্র থেকেই শান্তির সু-বাতাস নির্বাসিত হতে থাকে। একটি কল্যাণ রাষ্ট্র কায়েম করতে বৃহত্তর সমাজ জীবনে শান্তি, সাম্য , ভালোবাসা ও ভাতৃত্ববোধ, পরস্পরের প্রতি মর্যাদাবোধ চির জাগরুক রাখতে হয়। সমাজে শান্তি শৃংখলা বজায় রেখে দায়িত্বশীল হয়ে শান্তিপূর্ন সমাজ ব্যবস্থা সু-প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বিশ্বনবী হতে পবিত্র বোখারী শরীফে বর্ণিত আছে, “তোমাদের পরস্পরের মধ্যে বিদ্বেষভাব রেখোনা, হিংসা করোনা, বিচ্ছেদাত্মক আচরণ করোনা এবং সবাই এক আল্লাহর বান্দা হয়ে ভাই ভাই হয়ে যাও”। ১৯৪৮ সনের ১০ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক প্রণীত সার্বজনীন মানবাধিকার সংক্রান্ত ঘোষনাই হলো মানবাধিকার রক্ষায় মূল রক্ষাকবচ। রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস যখন চরম পর্যায়ে পৌছায় তখন জনগণ নানাভাবে আক্রান্ত হয় এবং তখন সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় মূল্যবোধের লেশমাত্র থাকে না। আগ্রাসী অপতৎপরতার কালো মেঘে ছেয়ে যায় গোটা রাষ্ট্রই। পদলেহী একটি মহলের তৈলমর্দনের প্রবনতা যখন বৃদ্ধি পায় তখন যে কোন সমাজ বা রাষ্ট্রের জন্য তা খুবই ভয়ংকর রূপ ধারণ করে। সাংবাদিক অ্যান্থনী মাসকারেনহাস তাঁর ‘দ্যা রেইপ অব বাংলাদেশ’ নামক বইটিতে পাকিস্তানের সেই বিভীষিকাময় দমন পীড়নের বর্ণনা দিতে গিয়ে যথার্থই বলেছেন, প্রভুতোষন ও তৈলমর্দন মোটেই সুখকর নয় আর সেটাই ছিল পাকিস্তানের ‘গণতান্ত্রিক’ ঐতিহ্যের স্বচ্ছ নমুনা।
মানবাধিকার সংক্রান্ত সার্বজনীন ঘোষনাপত্রে সুস্পষ্ঠভাবে উল্লেখ রয়েছে, “আইনের কাছে সকলেরই সমান অধিকার থাকবে, কাউকে খেয়াল খুশিমতো গ্রেফতার, আটক বা নির্বাসন দেয়া যাবে না। সকল নাগরিকের সামাজিক নিরাপত্তার পূর্ন অধিকার থাকবে, সকলের মত প্রকাশের স্বাধীনতা থাকবে। থাকবে সভা-সমাবেশের অধিকার। শিক্ষার্জনের অধিকার সুরক্ষিত থাকবে ইত্যাদি”। মূলতঃ মানুষ খুবই দুর্বল। জন্মের পরই এক বিস্ময়ের রাজ্যে সে চলে আসে। সারকথা হলো, দুর্বলতার মাঝে সবলতা এবং সবলতার মাঝে দুর্বলতা এ নিয়েই মানুষ। একজন প্রকৃত মানুষের কাছে তার নিজের ভাবনা-চিন্তা খুবই বড় এবং গভীরও বটে। সামাজিক ধর্মীয় কিংবা রাষ্ট্রীয় পরিমন্ডলে এর ব্যতিক্রম ঘটেনি কখনো। ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ তে শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতাপূর্ব রাজনীতি ও রাজনৈতিক চরিত্র সম্পর্কে বর্ণনা দিতে গিয়ে অকপটে অত্যন্ত চমৎকার ভাবে উল্লেখ করেছেন, “আমাদের গণপরিষদের কতেক সদস্য কিছু একটা কোটারীর সৃষ্টি করে রাজত্ব কায়েম করে নিয়েছে। পূর্ব বাংলা প্রাদেশিক নির্বাচনে পরাজিত হয়েও এদের ঘুম ভাংলো না। এরা ষড়যন্ত্র করে পূর্ব বাংলার নির্বাচনকে বানচাল করে জরুরী অবস্থা ঘোষনা করে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করলো”। সততা, বিশ্বস্থতা, ন্যায়পরায়নতা সর্বোপরি মানবিক অধিকার সমূহের প্রতি অবজ্ঞা বা ঘৃণা মানবজাতির বিবেকের পক্ষে চরম অপমানজনক এবং বর্বরোচিত। মানবাধিকার লংঘন তথা জুলুম নির্যাতন সম্পর্কে আমাদের প্রতিপালক মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন পবিত্র কোরআনের সূরা আশ-শুআরায় বলেছেন, “জুলুমবাজরা তাদের জুলুমের পরিণতি অচিরেই জানতে পারবে”। এ বিষয়ে বায়হাকি শরীফে বর্ণিত আছে, সাইয়্যেদুল মুরছালিন, শাফেউল মুজনীবিন বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) বলেছেন, “সাবধান, তোমরা জুলুম করোনা”। প্রত্যেক অপরাধীকে নিজের অপরাধের জন্য কেয়ামতের দিন আল্লাহর দরবারে জবাবদিহি করতেই হবে। আল্লাহর রাসুল বলেছেন, একের অপরাধের জন্য অন্যকে শাস্তি দেয়া যাবে না। আধাঁর যুগের মিথ্যা, কুসংস্কার বলে বিশ্বনবী যাহা পরিহার করতে বলেছেন বর্তমান যুগের কথিত অতি আধুনিক যুগের প্রগতিশীলতার অপকর্মের সাথে তার অনেক তাত্ত্বিক মিল রয়েছে। মৌলিক অধিকার ও মানবাধিকারের মধ্যে যথেষ্ট সাদৃশ্য থাকলেও উভয়ের মধ্যে বৈসাদৃশ্য ও পরিলক্ষিত হয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নাৎসিবাদ ও ফ্যাসিবাদে যে ধ্বংসযঞ্জ হয়েছিল তৎপ্রেক্ষিতে বিশ্বমানবতা শংকিত ও উৎকণ্ঠিত হয়ে পড়লো অত:পর বিশ্বযুদ্ধ অবসানের কিছু পরেই জাতিসংঘ গঠিত হয় এবং এর মাধ্যমে জাতিসংঘ সনদ গৃহিত হয়। এ সনদে মানবাধিকার ও মৌলিক অধিকার সংরক্ষণ, বাস্তবায়ন ও উন্নয়নের সুদৃঢ় পদক্ষেপ নেয়া হয়। বস্তুত: মানবের যে সকল অধিকার ব্যাপক অর্থে আন্তর্জাতিক ভাবে স্বীকৃত তাই মানবাধিকার। রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃত অধিকারগুলো মৌলিক অধিকার। অসংখ্য আদম সন্তানের আত্মত্যাগের বিনিময়ে প্রাপ্ত স্বাধীন সার্বভোম বাংলাদেশের চলমান অস্থিতিশীল অবস্থায় প্রত্যেকটি বিবেকবান এবং আত্মমর্যাদাশীল মানুষই আতংকিত, বিচলিত। গণতন্ত্র, মানবাধিকার, নিষ্ঠুর নির্যাতন-নিপীড়ন, পেট্রোল বোমার ছড়াছড়ি ইত্যাদিতে প্রিয় জন্মভূমিটা শ্বশ্মান বা বিরান ভূমিতে পরিনত হোক তাতো কারো কাম্য নয়। যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক ১৯৪৫ সনের ৬ আগষ্ট হিরোশিমাতে প্রথম পারমানবিক বোমা নিক্ষেপের পর ৬ সেপ্টেম্বর এ নিয়ে টোকিওতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে মার্কিন সামরিক বাহিনীর ব্রিগেডিয়ার ফারেরু বলেছিলেন, বিষ্ফোরণের এক মাস পরে অনেক রোগী তেজস্ক্রিয়তার কারণে মৃত্যুবরণ করেছে-যারা বেচে ছিলো তারাও ছিল মৃত প্রায়। হিরোশিমা এবং নাগাসাকির জনগণের ভাগ্যে সেই একই অবস্থা বিরাজ করেছিল।

সবুজ শ্যামলীমায় ভরপুর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপরূপ লীলা নিকেতন অলি-আউলিয়ার পদধুলিতে ধন্য এ বাংলাদেশটি আমার প্রাণের চেয়েও প্রিয়। অনেক তো হলো। চিরস্থায়ী শান্তির প্রত্যাশায় সবুজ পৃথিবীর প্রত্যাশা পূরণে আমাদের সকলকে এগিয়ে আসা আজ সময়ের একমাত্র দাবী। মানবাধিকার, মৌলিক অধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় বিচারক এবং আইন পেশার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের ভূমিকা অপরিসীম। ন্যায় বিচার এবাদতের শামিল। বিচার প্রক্রিয়ায় সততার কোন বিকল্প নেই। বৃষ্টি কিংবা অস্পষ্ট কুয়াশাকে অতিক্রম করে প্রকৃত মানুষেরাই এগিয়ে যায়। অবৈধ সম্পদ অর্জনের নেশায় কারো সঠিক পথ থেকে বি”্যুত হওয়ার কোন অবকাশ নেই। অতিরিক্ত লোভ লালসা অনেককে পশুত্বের পর্যায়ে নিয়ে যায়। নয়নাভিরাম সুনামগঞ্জ-এতো বাংলাভাষী বিশ্বের রাজধানী হিসেবে সুপরিচিত। এখানের বিচার ব্যবস্থার যতেষ্ট সুখ্যাতি রয়েছে। যেমনটি রয়েছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। শান্তিময় এ জনপদের সমৃদ্ধ মানুষের হৃদয় কন্দরে লুকায়িত প্রেম প্রীতি ভালবাসা আর আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীলতার নজির মুগ্ধ করেছে অনেককে। বিচার প্রার্থী সাধারণ জনগণের প্রত্যাশা পূরণে আইন পেশায় নিয়োজিতদের দায়িত্বশীল ভূমিকা সকলেরই কাম্য। পেট্রোল বোমা, কাসিমপুর কারাগার, বালুর ট্রাক, গণগ্রেফতার আর বারুদের কালো ধোঁয়া কখনো কারো পথ চলাকে মসৃন করতে পারে না। প্রাচুর্য্যমন্ডিত একটি শান্তিপূর্ন বাসযোগ্য বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে জাতীয় নেতৃবৃন্দ সহ আমাদের সকলকেই হাতে হাত ধরে বায়ান্ন কিংবা একাত্তরের সেই মুক্তির মিছিলে নতুন আঙ্গিকে শরিক হওয়া ছাড়া আজ আর কোন বিকল্প নেই। গণতন্ত্র হত্যা আর গণতন্ত্র রক্ষার নামে বাংলাদেশে যা হচ্ছে তাতে অনেক ক্ষেত্রেই মানবাধিকার, মৌলিক অধিকার ক্ষুন্ন হচ্ছে বলে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন ব্যক্তি ও সংস্থা অব্যাহতভাবে মতামত ব্যক্ত করছেন। জাতি এর পরিত্রাণ চায়। মানবতার কল্যাণে এবং আম-জনতার মুক্তির লক্ষ্যে মানবতা, মানবাধিকার, টেকসই গণতন্ত্র ধর্মীয় মূল্যবোধ সর্বোপরি আমাদের ভাতৃত্ব বন্ধন সুদৃঢ় করতে প্রতিহিংসা পরায়ন না হয়ে আল্লাহর ওয়াস্তে সকলকেই স্ব-স্ব অবস্থান থেকে এক্ষনি দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে না পারলে আমাদের ছোট্ট ললাটে আরো দু:খ আছে তাতে সন্দেহ নেই। লেখক-সম্পাদক, সাপ্তাহিক সুরমা এক্সপ্রেস ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24