সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

মালয়েশিয়ায় আদম পাচার: দক্ষিণ সুনামগঞ্জে নিখোঁজ সন্তানের খুঁজে এক মায়ের আর্তনাদ

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন, ২০১৫
  • ৬২ Time View

হোসাইন আহমদ,দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থেকে ::
পরিবারে স্বচ্ছলতা আর একটু বাড়তি সুখের আশায় দালালদের খপ্পড়ে পড়ে অবৈধ ভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য নিখোঁজ হন দক্ষিণ সুনামগঞ্জের মির্জাপুর গ্রামের আতাউর রহমান নামে এক যুবক। সমুদ্র পথেই পাড়ি দেয়ার পর এক বছর চার মাস কেটে গেলেও খোঁজ মেলেনি এখনো তার। সম্প্রতি গণমাধ্যমে মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডের গণকবর থেকে উদ্ধার হওয়া লাশের খবর পাওয়ার পর তার পরিবারে চলছে এখন শোকের মাতম। চলছে নিখোঁজ সন্তানের খোঁজে এক মায়ের আর্তনাদ। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামের নোয়াব আলীর ছেলে আলফত মিয়া,আব্দুস সহি মিয়ার ছেলে জয়নাল মিয়া ও শিমুলবাক ইউনিয়নের জাহানপুর গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে মাসুক মিয়া আত্মীয়তার সূত্রে নিঁখোজ আতাউর রহমানের বাড়ীতে আসা যাওয়া করতো। আতাউরের মা সুবেতারা বিবির কাছে দালাল জয়নাল মিয়া জানায় তার ভাই মালয়েশিয়া থাকে এবং সাগরপথে সে লোক পাঠাইয়া থাকে। সুবেতারা বিবি ছেলে আতাউর রহমানকে মালয়েশিয়া পাঠানোর কথা বললে দালাল জয়নাল মিয়া চার লক্ষ টাকা লাগবে বলে জানায় এবং তাৎক্ষনিক দুই লক্ষ টাকা এবং মালয়েশিয়ায় গিয়ে পৌছার পর দুই লক্ষ টাকা পরিশোধ করিতে হইবে । এ নিয়ে উভয় পক্ষের আলোচনায় দালাল আলফত মিয়া,জয়নাল ও মাসুক মিয়া মিলে বিগত ২০১৪ সালের ফ্রেব্রুয়ারী মাসের ১৫ তারিখে সুবেতারা বিবির বাড়ীতে এসে নগদ দুই লক্ষ টাকা সমজিয়া নিয়া নিখোঁজ আতাউর রহমানকে মালয়েশিয়া পাঠাইবে বলে সঙ্গে নিয়ে চলে যায়। উক্ত ঘটনার দুই মাস পর দালালগণ জানায়, আতাউর মালয়েশিয়ায় রিসিভ ঘরে আছে এবং অবশিষ্ট টাকা এই মূহুর্তে পরিশোধ করিতে হইবে। দালালদের নিকট টাকা পরিশোধের পরও এখন পর্যন্ত এক বছর চার মাস অতিবাহিত হলেও নিখোঁজ আতাউর তার বাড়ীতে কোন যোগাযোগ করে নাই। সুবেতারা বিবি জানান, আমার ছেলে আতাউরের খোঁজে বার বার দালালদের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে আমার ছেলে মালয়েশিয়ায় আছে বলে জানায়। এ নিয়ে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে সালিশ বৈঠকে আমার ছেলের সন্ধান ও টাকা ফেরত দেয়ার কথা বললেও এখন পর্যন্ত দালালরা আমার ছেলের সন্ধান ও টাকা ফেরত দেয়নি। বরং আমার ছেলে আতাউর মালয়েশিয়া রিসিভ ঘরে থাকাকালীন সময়ে আমার দেয়া টাকায় দালাল আলফতের ভাই সাজ্জাদ ও দালাল জয়নালের ভাই কফিলকে ঐ দেশে থাকা জয়নালের ভাই মহিম উদ্দিন ঐ দু’জনকে মাফিয়াদের কাছ থেকে রিসিভ ঘর থেকে ছাড়িয়ে নেয়। কিন্তু আমার ছেলে আতাউরকে উদ্ধার না করায় হয়তো মাফিয়ারা মেরে ফেলেছে। আমি আমার ছেলের সন্ধান চাই। বর্তমানে সুবেতারা বিবি শয্যাশায়ী। ছেলেকে বুকে ফিরে পাওয়ার আশায় তিনি দিন গুনছেন। ছেলের খোঁজ না পেয়ে দিনরাত কান্নাকাটি করে বুক চাপড়াচ্ছেন আর বলছেন, তার ছেলে কবে ফিরবে বাড়িতে। নিঁখোজ আতাউর রহমানের ভাই জানান,খলিলুর রহমান জানান, আমার ভাই আতাউর দীর্ঘ এক বছরের অধিক সময় ধরে নিঁখোজ। একাধিক বার সালিশ বৈঠক হলেও দালালরা তার কোন সন্ধান দিতে পারছেনা। আমাদের আইনের আশ্রয় ছাড়া আর কোন পথ নেই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24