মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ০১:০৫ পূর্বাহ্ন

মোবাইল ফোন ব্যবহারের ১ শতাংশ হারে সারচার্জ আরোপের বিধান মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ, ২০১৫
  • ১৪৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক- মোবাইল ফোন ব্যবহারের ওপর ১ শতাংশ হারে সারচার্জ আরোপের বিধান রেখে ‘উন্নয়ন সারচার্জ ও লেভি (আরোপ ও আদায়) আইন, ২০১৫’-এর খসড়া নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সভাকক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের বলেন, মোবাইল কোম্পানিগুলো গ্রাহকদের কাছ থেকে যে বিল নিচ্ছে তার সঙ্গে এই ১ শতাংশ সারচার্জ যোগ হবে। সরকার মোবাইল অপারেটরদের কাছ থেকে সরাসরি এই সারচার্জ আদায় করবে। মোবাইল ফোনে যত ধরনের সেবা রয়েছে তার সবগুলোর ওপরই এই সারচার্জ প্রযোজ্য হবে। জাতীয় সংসদে আইন পাস হলে এই সারচার্জ কার্যকর হবে। তিনি বলেন, মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীরা যেসব সেবা গ্রহণ করেন, সে মূল্যের ওপর ১ শতাংশ হারে সারচার্জ ধার্য করা হবে। কেউ এক হাজার টাকা ব্যবহার করলে ১০ টাকা সারচার্জ দিতে হবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এ সারচার্জের মাধ্যমে সরকার বছরে অতিরিক্ত ১৪০ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করবে। এ অর্থ শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে ব্যয় করা হবে। এর আগে গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর সারচার্জ আদায় সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছিল মন্ত্রিসভা। তখন অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ ‘উন্নয়ন সারচার্জ আরোপের লক্ষ্যে মোবাইল অপারেটরদের সিম বা রিম কার্ড ব্যবহারেরর মাধ্যমে প্রদত্ত সেবার বিনিময়ে প্রাপ্ত অর্থের ওপর ১ শতাংশ হারে সারচার্জ আরোপের প্রস্তাব উপস্থাপন করেছিল। মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা বলেন, ১৫ই সেপ্টেম্বরের প্রস্তাবটি আইন মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদবিষয়ক বিভাগে ভেটিংয়ের (পরীক্ষা-নিরীক্ষা) জন্য পাঠানো হলে তারা বলেছে, একটি আইনের মাধ্যমে এটি করা হলে যথাযথ হবে। এজন্য তারা একটি খসড়াও করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, কোন কোন বিষয়ের ওপর কি হারে উন্নয়ন সারচার্জ ও লেভি আদায় করা যাবে, তা আইনের তফসিলে থাকবে। অনুমোদন পাওয়া আইনের তফসিলে বলা আছে, মোবাইল অপারেটর কর্তৃক সিম বা রিম কার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে প্রদত্ত সেবার বিনিময়ে প্রাপ্ত সমুদয় অর্থ বা আয়। সারচার্জের হার ১ শতাংশ। সরকার সময়ে সময়ে এ তফসিল সংশোধন করতে পারবে। আইনের ৪ নম্বর ধারা অনুযায়ী সরকার গেজেট জারির মাধ্যমে উন্নয়ন সারচার্জ ও লেভি আদায় করতে পারবে। তিনি বলেন, গত বাজেট অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সংসদে মোবাইল ফোন ব্যবহারের ওপর এক শতাংশ হারে সারচার্জ আরোপের কথা বলেছিলেন। সারচার্জের অতিরিক্ত রাজস্ব শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে ব্যয় করার কথাও জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। ওই পরিপ্রেক্ষিতে অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ এ বিষয়টি নিয়ে কাজ করে।
নিরাপত্তা ও দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি স্থানান্তরে ইউএই’র সঙ্গে চুক্তি অনুসমর্থন: দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি স্থানান্তর ও নিরাপত্তা সহযোগিতার জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) সঙ্গে স্বাক্ষরিত দুটি চুক্তির অনুসমর্থনের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞা বলেন, গত অক্টোবরে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে সাজাপ্রাপ্ত আসামি স্থানান্তর ও নিরাপত্তা সহযোগিতাসহ তিনটি চুক্তিতে সই করে বাংলাদেশ। এর মধ্যে ‘সাজাপ্রাপ্ত আসামি স্থানান্তর’ ও ‘নিরাপত্তা বিষয়ক সহযোগিতা’ চুক্তিতে সই করেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এবং আমিরাতের উপ- প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ সাইফ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান। সাজাপ্রাপ্ত আসামি স্থানান্তর চুক্তির আওতায় উভয় দেশ আলোচনার মাধ্যমে আসামি হস্তান্তর করতে পারবে। নিরাপত্তা বিষয়ক চুক্তিটি করা হয়েছে সন্ত্রাসবাদ, অস্ত্র, মাদক ও মানবপাচার রোধে সহযোগিতা বাড়ানোর জন্য। সাজাপ্রাপ্ত আসামি স্থানান্তর নিয়ে চুক্তির খসড়াটি ভূতাপেক্ষ অনুমোদন ও অনুসমর্থনের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর হাতে ডব্লিউআইপি গ্লোবাল ফোরাম অ্যাওয়ার্ড: প্রধানমন্ত্রীর হাতে ‘ওম্যান ইন পার্লামেন্ট (ডব্লিউআইপি) গ্লোবাল ফোরাম অ্যাওয়ার্ড’ তুলে দেয়া হয়েছে মন্ত্রিসভা বৈঠকে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, রাজনীতিতে নারী-পুরুষের বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালনের জন্য বাংলাদেশ ‘ওম্যান ইন পার্লামেন্ট (ডব্লিউআইপি) গ্লোবাল ফোরাম অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছে। গত ২৫শে মার্চ ইথিওপিয়ার আদ্দিস আবাবায় ডব্লিউআইপি সামিটের সমাপনী অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এ পদক গ্রহণ করেন। তিনি বলেন, বৈঠকের শুরুতে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর হাতে এ পদক তুলে দেন। এদিকে আধুনিক সিঙ্গাপুরের রূপকার ও প্রথম প্রধানমন্ত্রী লি কুয়ান ইউ’র মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছে মন্ত্রিসভা। লি কুয়ান গত ২৩শে মার্চ ৯১ বছর বয়সে মারা যান। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, লি কুয়ান ছিলেন বাংলাদেশের শুভানুধ্যায়ী। তার নির্দেশিত বৈদেশিক নীতির কারণে সিঙ্গাপুরের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কে উপর্যুপরি শক্তিশালী হয়েছে। তার মৃত্যুতে মন্ত্রিসভা শোক প্রস্তাব গ্রহণ করেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24