মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

রমজান আসতেই জগন্নাথপুরের হাট বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়তে শুরু করেছে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৭ জুন, ২০১৫
  • ২২৩ Time View

শংকর রায়:: পবিত্র রমজান মাসকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরের হাটবাজারে মানুষের উপচেপড়া ভিড়। রোজা শুরুর আগেই সারা মাসের বাজার সম্পন্ন করতে ব্যস্ত হয়ে পড়ায় গত ক’দিন ধরে প্রচন্ড চাপে ব্যবসায়ী। অন্যদিকে,অতিরিক্ত চাহিদাকে সুযোগ হিসেবে গ্রহণ করে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারে দাম বৃদ্ধির আশংকা করছেন সাধারণ ক্রেতারা। কাঁচা বাজারে এরই মধ্যে জিনিসপত্রের দাম এক দফা বেড়ে গেছে। অন্যান্য পণ্যের দাম স্থিতিশীল থাকলেও খুচরা বাজারে পেঁয়াজ, রসুন, আদা ও ছোলার দাম বেড়েছে। বাজার নিয়ন্ত্রণে দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে রমজানে নিত্যপণ্যের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে উঠার আশংকা করছেন ক্রেতারা। বুধবার সরেজমিনে জগন্নাথপুর বাজার ঘুরে দেখা গেছে, রমজানের আগেই কাঁচা বাজারে জিনিসপত্রের দাম বাড়তে শুরু করেছে। গত সপ্তাহে যে কাঁচা মরিচের দাম ছিল ২০-২৫ টাকা, তা এখন ৩০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। কাঁচা বাজারের প্রায় সব পণ্যের দাম ৫ থেকে ১০ টাকা হারে বেড়েছে। আবার কোন কোন পণ্যে বেড়েছে ১৫ থেকে ২০ টাকা। সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে অন্তত ১০ টাকা। গত সপ্তাহে ২৫ থেকে বেড়ে ৩৫ টাকা আদা ছিল ১শ’ ২০ টাকা , তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১শ’ ৩৫ টাকায়। রসুন ছিল ৮৫ থেকে ৯০ টাকা, দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১শ’ থেকে ১শ’ ৫ টাকায়। ছোলা ছিল ৫২ টাকা থেকে বেড়ে বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। ডাল ১০০ টাকা থেকে বেড়ে ১২০ টাকা হয়েছে।, চিনি, সয়াবিনসহ অন্যান্য পণ্যের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। কাচা বাজারে দাম বেড়েছে জালি কুমড়া গত সপ্তাহে ছিল ২০ টাকা, এখন ২৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।
ঝিঙ্গা ৩৫ টাকা, মুলা ৩৫ টাকা, টমেটো ৪০ টাকা, পেঁপে ৩৫ টাকা, চিচিংগা ৩৫ টাকা, গাঁজর ৪৫ টাকা, কাকরোল ৩০ টাকা, পটল ২০ টাকা, বরবটি ৩৫ টাকা, মুকি ৪০-৪৫ টাকা, বেগুন ৪০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে ধনিয়া পাতা প্রতি কেজিতে ৪০ টাকা করে বেড়ে গেছে। বর্তমানে ২শ’ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে ধনিয়া পাতা। মোরগ সাদা ১২৫ কেজি এখন ১৪৫ টাকা। লাল মোরগ ৩২০ টাকা কেজির দাম বেড়েছে ৩৩০টাকা বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি গরুর মাংস ৩শ’ ৪০ টাকা, থেকে ৪২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খাসি ৪শ’ ৫০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। তবে, ভালো খাসির মাংস অনেক সময় ৫শ টাকায়ও বিক্রি হয়।
দেশী ডিম প্রতি হালি ৪৫ টাকা এবং ব্রয়লার ডিম মোরগ ৩৫ টাকা ও হাসের ৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দুটির দাম বেড়েছে।
কাঁচা বাজারে দাম বেড়ে যাওয়া প্রসঙ্গে ব্যবসায়ীরা বলছেন, একদিনে সারা মাসের বাজার করার প্রবণতার কারণেই পণ্যের সরবরাহে টান পড়েছে। ফলে দাম বেড়েছে। পাশাপাশি টানা বৃষ্টিপাতের কারণেও পণ্যের দাম বেড়েছে বলে তারা জানান। এদিকে,সব বাজার ও দোকানের সামনে পণ্যের মূল্য তালিকা টাঙ্গানোর নির্দেশ থাকলেও গতকাল বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ রকম তালিকার দেখা যায়নি।
মাছের বাজারে আগুন লেগেছে। ইলিশের কেজি সর্বনি¤œ ৮শ’ থেকে দেড় হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। টেংরা ৪শ’ থেকে ৫শ’ টাকা, মলা ৪শ’ থেকে ৫শ’ টাকা, তেলাপিয়া ১শ’ ৪০ থেকে ১শ’ ৮০ টাকা, ইন্ডিয়ান রুই ২শ’ থেকে ২শ‘ ২৫ টাকা, বড় রুই আড়াইশ’ টাকা, ইন্ডিয়ান বোয়াল ৪শ’ টাকা, গলদা চিংড়ি ৭শ’ ও মাঝারি সাইজের চিংড়ি ৫শ’ টাকা, টেংরা ৪শ’ টাকা, ফিশারীর কৈ ২শ’ থেকে ২৫০ টাকা, ফিসারির শিং ৫শ’ থেকে ৬শ’ টাকা, বাইম ৫শ’ টাকা, ইন্ডিয়ান বাইম ৩শ’ থেকে ৪শ’ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। জগন্নাথপুর মৎস্য আডতের মাছ ব্যবসায়ী দিনু দাস জানান, এখন মাছের মৌসুম না থাকায় দাম কিছুটা বাড়তি রয়েছে। রমজানকে সামনে রেখে দাম আরো বাড়তে পারে বলে মনে করেন ওই ব্যবসায়ী। অপরদিকে কাচা বাজারের ব্যবসায়ী হিরন মিয়া বলেন, রমজান আসার আগেই কাচা বাজারের প্রায় সব পণ্যতে কয়েকটাকা দাম বেড়েছে।
অসাধু ব্যবসায়ীরা প্রতিবছরের ন্যায় রমজানকে সামনে রেখে বাজার অস্থিতিশীল করে তুলতে পারে বলে আশংকায় উপজেলা প্রশাসন মোবাইলকোট পরিচালনা সহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। মঙ্গলবার সভা করে বাজার স্থিতিশীল রাখার দাবী জানানো হয়।
জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির বলেন, পবিত্র রমজান মাসে জগন্নাথপুরের হাট বাজারের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রবাদীর দাম স্থিতিশীল রাখা ও রমজানের পবিত্রতা অক্ষুন্ন রাখতে ব্যবসায়ীদের নিয়ে সভা করেছি। তিনি বলেন এবিষয়ে উপজেলা প্রশাসন নজরদারী অব্যাহত রাখবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24