বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৩৪ অপরাহ্ন

রাজাকার সালাহ উদ্দিন চৌধুরীর আপিলের রায় আজ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৯ জুলাই, ২০১৫
  • ৫৪ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর আপিলের রায় আজ। এই রায়েই চূড়ান্ত হবে চট্টগ্রামের রাউজান-ফটিকছড়ি থেকে ছয়বার নির্বাচিত এই এমপির সাজা। ব্যঙ্গাত্মক ও হাস্যরসাত্মক আচরণের কারণে আলোচিত-সমালোচিত এই বিএনপি নেতাকে ট্রাইব্যুনাল থেকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছিল। এ রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে রাজধানীজুড়ে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সুপ্রিমকোর্টসহ ট্রাইব্যুনালের আশপাশের এলাকায় পর্যাপ্ত আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হবে। চট্টগ্রামে মামলার সাক্ষীদের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।
প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের বেঞ্চ বুধবার এই রায় ঘোষণা করবেন। রায়ের জন্য বিষয়টি আপিল বিভাগে আজকের কার্যতালিকায় এক নম্বরে আছে। বেঞ্চের অপর তিন সদস্য হচ্ছেন বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।
এদিকে রায় ঘোষণার আগেই গণজাগরণ মঞ্চ, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বেশ কয়েকটি সংগঠন সাকা চৌধুরীর ফাঁসির দাবিতে আন্দোলন করছে। সংগঠনগুলোর আন্দোলনকে আদালত অবমাননার শামিল বলে দাবি করেছেন সাকা চৌধুরীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন। তবে অ্যাটর্নি জেনারেল এ আন্দোলনকে আদালত অবমাননার শামিল বলতে রাজি নন।
মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে খন্দকার মাহবুব বলেন, ‘সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মামলা এখনও আদালতে বিচারাধীন। অথচ তার ফাঁসির দাবিতে গণজাগরণ মঞ্চসহ বিভিন্ন সংগঠন আন্দোলন করছে। আদালতে বিচারাধীন কারও ফাঁসির দাবিতে স্লোগান দেয়া, অবস্থান করা আদালত অবমাননার সমতুল্য।’
তিনি আরও বলেন, ‘আসামিকে ফাঁসি দিতে গণজাগরণ মঞ্চসহ বিভিন্ন সংগঠন রাজপথে নেমেছে। আমি অবাক হই যে, দেশে বিন্দুমাত্র আইনের শাসন আছে সেখানে একটি বিচারাধীন মামলায় সাজা কি ধরনের হবে তা একটি বিশেষ গোষ্ঠী বলে দেবে? রাজপথে পুলিশি প্রটেকশন নিয়ে একটি বিশেষ গোষ্ঠী তার ফাঁসি চাচ্ছে। এটা বিচার বিভাগের ওপর সরাসরি হস্তক্ষেপ। আশা করছি সুপ্রিমকোর্ট এ বিষয়ে কঠোর মনোভাব দেখাবেন।’
সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি খন্দকার মাহবুব অভিযোগ করে আরও বলেন, ‘আমরা আদালতে বিশেষভাবে বলেছি ঘটনার সময় সাকা চৌধুরী দেশে ছিলেন না। তিনি পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ে ছিলেন। এর সপক্ষে প্রমাণও দাখিল করেছি। আমরা আশা করি সাক্ষ্য-প্রমাণ বিচারে তিনি খালাস পাবেন। কিন্তু গণজাগরণ মঞ্চসহ বিভিন্ন মহলকে দিয়ে সাকা চৌধুরীর ফাঁসি দিতে সরকার আদালতের ওপর চাপ প্রয়োগ করছে। তবে আমরা বিশ্বাস করি আপিল বিভাগ সব চাপ উপেক্ষা করে ন্যায়বিচার করবেন এবং এ মামলা থেকে সাকা চৌধুরীকে খালাস দেবেন।’
এই বক্তব্যের পর সাংবাদিকরা যান রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের কাছে। অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাকার আইনজীবীর দাবি অস্বীকার করে বলেন, ‘ফাঁসির দাবিতে গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলনকে আদালত অবমাননা বলে মনে করি না। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশেই অপরাধীদের বিচারের দাবিতে আন্দোলন হয়। আমেরিকায় এক ব্যক্তিকে পুলিশ গুলি করে হত্যা করেছিল। সেই হত্যার বিচার দাবিতে জনগণ রাজপথে নেমে এসেছিল। জাহানারা ইমাম প্রথম যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবি করেছিলেন। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবি, ফাঁসি চাওয়া নতুন কিছু নয়। প্রত্যেকের ক্ষেত্রেই এটা ঘটেছে। এই দাবি এদেশের মানুষের দীর্ঘদিনের। সরকার মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করছে।’
মাহবুবে আলম আরও বলেন, ‘তারা যুক্তিনির্ভর আন্দোলন করে আসছে। বরং সাকা চৌধুরীর আইনজীবী বিচার বিভাগকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে রায়ের খসড়া ফাঁস করেছিলেন। রায়ের খসড়া ফাঁসে জড়িত আইনজীবীদের বিচার চলছে। আপিল বিভাগে সাকা চৌধুরীর ফাঁসির রায় বহাল থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।
২০১০ সালের ২৬ জুন হরতালের আগের রাতে রাজধানীর মগবাজার এলাকায় গাড়ি ভাংচুর ও গাড়ি পোড়ানোর অভিযোগে সাকা চৌধুরীর বিরুদ্ধে রমনা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। ওই মামলায় একই বছরের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের প্রত্যুষে গ্রেফতার করা হয় তাকে। ১৯ ডিসেম্বর একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয় সাকা চৌধুরীকে। পরে ৩০ ডিসেম্বর প্রথমবারের মতো সাকা চৌধুরীকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। এরপর বিচার শেষে ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়ে রায় ঘোষণা করেন। এতে তার বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের আনা ২৩টি অভিযোগের মধ্যে নয়টি (২ থেকে ৮ এবং ১৭ ও ১৮ নম্বর অভিযোগ) সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়। বাকি ১৪টি অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেয়া হয়।
রায়ে রাউজানে কুণ্ডেশ্বরী ঔষধালয়ের মালিক নূতন চন্দ্র সিংহকে হত্যা, সুলতানপুর ও ঊনসত্তরপাড়ায় হিন্দু বসতিতে গণহত্যা এবং হাটহাজারীর এক আওয়ামী লীগ নেতা ও তার ছেলেকে অপহরণ করে খুনের মোট চারটি অভিযোগে পৃথকভাবে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। এছাড়া হত্যা, গণহত্যার পরিকল্পনায় সহযোগিতা এবং লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও দেশান্তরে বাধ্য করার মতো তিনটি অভিযোগে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্যকে দেয়া হয় ২০ বছর করে কারাদণ্ড। অপহরণ ও নির্যাতনের দুটি ঘটনায় তাকে দেয়া হয় পাঁচ বছর করে কারাদণ্ড। ২০১৩ সালের ২৯ অক্টোবর সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় সালাহউদ্দিন কাদেরের খালাস চেয়ে আপিল দায়ের করেন তার আইনজীবীরা।
গত ১৬ জুন থেকে এই আপিলের ওপর শুনানি শুরু হয়। দীর্ঘ ১৩ কার্যদিবস শুনানি গ্রহণ শেষে আপিল বিভাগ ৭ জুলাই রায়ের জন্য দিন ধার্য করেন। সে অনুযায়ী আজ এই রায় ঘোষণা করা হবে। এই মামলায় সরকার পক্ষ কোনো আপিল করেনি।
সাকা পরিচিতি : গত দুই দশকে সাকা চৌধুরী বারবার সংবাদপত্রের শিরোনামে এসেছেন তার চটকদার, ‘ঔদ্ধত্যপূর্ণ’ এবং কখনও কখনও ‘অশালীন’ মন্তব্যের কারণে। তার নিজ দল বিএনপির ভেতরে ও বাইরে নানাভাবে তিনি আলোচিত-সমালোচিত। তার জন্ম ১৯৪৯ সালের ১৩ মার্চ চট্টগ্রামের রাউজান থানার গহিরা গ্রামে। তার বাবা পাকিস্তান মুসলিম লীগ সভাপতি ফজলুল কাদেও চৌধুরী এক সময় পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের স্পিকারও হয়েছিলেন। সালাহউদ্দিন কাদেরের রাজনীতির শুরুও মুসলিম লীগ থেকেই। এই রাজনীতিক ১৯৭৯ সালে মুসলিম লীগ থেকে রাউজানের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সামরিক শাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সময়ে তিনি জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন এবং কার্যত এর মধ্য দিয়েই মূল ধারার রাজনীতিতে তার পুনর্বাসন ঘটে।
১৯৮৬ সালে জাতীয় পার্টির টিকিটে নির্বাচন করে নিজের এলাকা রাউজান থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সাকা। কিন্তু পরে দল থেকে বহিষ্কৃত হন। এরশাদ সরকারের পতনের পর ১৯৯১ সালে তিনি নির্বাচন করেন নিজের গঠন করা দল এনডিপি থেকে। আবারও তিনি রাউজানের এমপি হন। এর কিছুদিন পর এনডিপি বিএনপির সঙ্গে একীভূত হয়ে যায় এবং ১৯৯৬ সালে বিএনপির টিকিটে এমপি নির্বাচিত হন সালাহউদ্দিন। পরের নির্বাচনে ২০০১ সালে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া থেকে। বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ে প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সংসদবিষয়ক উপদেষ্টার দায়িত্বও তিনি পালন করেন। এছাড়া সামরিক শাসক এরশাদ ও বিএনপির শাসনামলে ত্রাণ ও পুনর্বাসন, গৃহায়ন ও গণপূর্ত এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেন সাকা চৌধুরী। সর্বশেষ ২০০৮ সালের নির্বাচনে রাঙ্গুনিয়া ও ফটিকছড়ি থেকে অংশ নেন সাকা। রাঙ্গুনিয়াতে হেরে গেলেও ফটিকছড়ি অর্থাৎ চট্টগ্রাম-২ আসন থেকে বিএনপির সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।
ট্রাইব্যুনালের রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়, ‘বিচারের প্রথম পর্যায়ে অভিযুক্ত সাকা চৌধুরী ইচ্ছেকৃতভাবেই চিৎকার করে কোর্টের শৃঙ্খলা (ডেকোরম) ভঙ্গ করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাকে সতর্ক করে আদেশ প্রদান করা হলেও সে তা ভঙ্গ করেন। প্রতিদিন বিচার প্রক্রিয়া শেষ করার পর যখন বিচারকরা এজলাস থেকে নেমে যান তখন প্রত্যেকেই সম্মানস্বরূপ উঠে দাঁড়ান, কিন্তু অভিযুক্ত সাকা চৌধুরী তার চেয়ারে বসে থাকেন। সে কদাচিৎ দাঁড়াত যখন বিচারকরা আসন ত্যাগ করে চলে যেতেন। সরকার ট্রাইব্যুনাল গঠন করে সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতিদের নিয়োগ করেছে। এটা জানা সত্ত্বেও বিচারপতিদের সে চেয়ারম্যান সাহেব, মেম্বার সাহেব বলে সম্বোধন করতেন। অভিযুক্ত বর্তমান সংসদের একজন আইনপ্রণেতা কিন্তু বিচার বিভাগের প্রতি তার আচরণ অশ্রদ্ধাশীল। প্রত্যেকের মনে রাখা উচিত, বিশেষ করে অভিযুক্ত একজন আইনপ্রণেতার জনপ্রিয় এই প্রবাদটি ভুলে যাওয়া উচিত নয়- ‘তুমি যত বড়ই হও, আইন তোমার ঊর্ধ্বে।’ রায়ের পর্যবেক্ষণে এসব মন্তব্য করার পর বলা হয়, ওপরের এই পর্যবেক্ষণ আসামিপক্ষের মামলার জন্য কোনো ক্ষতিকর হবে না।’
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করে দলের ভেতরেই সমালোচিত হয়েছেন তিনি। তারেকের কর্মকাণ্ডে খালেদার নীরব সমর্থনের পরিপ্রেক্ষিতে সাকা বলেছিলেন, ‘আগে কুকুর লেজ নাড়াত, এখন লেজ কুকুরকে নাড়ায়।’ আবার বিএনপি চেয়ারপারসনকে নিয়ে ‘তালাকপ্রাপ্ত বউয়ের ঘর করি না আমি’- মন্তব্য করেও দলে ক্ষোভের মুখে পড়েন সাকা চৌধুরী।
২১ আগস্ট শেখ হাসিনার ওপর গ্রেনেড হামলায় নিজের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ নাকচ করে তিনি বলেন, ‘আমি গ্রেনেড মারলে সেটা তো মিস হতো না।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিবারের সঙ্গে নিজের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের কথা দাবি করে এই বিএনপি নেতা বলেন, ‘ছাত্রজীবনে শেখ মুজিব আমার বাবার শিষ্য ছিলেন।’ আওয়ামী লীগের একটি মহল প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তাকে উস্কে দিচ্ছে অভিযোগ করে সালাহউদ্দিন কাদের বলেন, ‘ওই মহলটি জানে না যে তারা যে বিলের মাছ, আমি সালাহউদ্দিন ওই বিলের বক।’
২০১৩ সালের ১৭ জুন থেকে নিজের প্রথম সাফাই সাক্ষী হিসেবে সাক্ষ্য দেয়া শুরু করেন বিএনপির এই নেতা। সাক্ষ্যে আদালতে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, ‘আমার ফাঁসি না হলে আর কারও হবে না। একই বছরের ৩০ জুন নিজের পক্ষে সাফাই সাক্ষ্যে তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষক হলে আমিও মুক্তিযুদ্ধের সমর্থক।’
কাশিমপুর কারাগারে স্বাভাবিক রয়েছেন সাকা চৌধুরী : গাজীপুর প্রতিনিধি জানান, মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর (সাকা চৌধুরী) আপিলের রায় আজ। এ অবস্থায় তিনি মোটেই বিচলিত নন, তিনি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক রয়েছেন। ঠিকমতো খাবার খাচ্ছেন। তবে এদিন তাকে ঢাকা নেয়া হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন কারা কর্তৃপক্ষ।
কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার পার্ট-১ এর সিনিয়র জেল সুপার সুব্রত কুমার বালা যুগান্তরকে জানান, ২০১২ সালের ২৩ অক্টোবর তাকে এ কারাগারে আনা হয়। ফাঁসির দণ্ডাদেশের পর কয়েদির পোশাকে তিনি কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের পার্ট-১ রয়েছেন। তবে বুধবারের রায়ের দিন তাকে ঢাকায় নেয়ার জন্য কোনো চিঠি পাওয়া যায়নি। তাই এই কারাগারের কনডেম সেলেই তিনি থাকবেন। আদালতের নির্দেশনা এলে তিনি নিজেই বন্দি সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে রায়ের কথা জানাবেন।
তিনি আরও জানান, রোববার সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর সঙ্গে তার দেখা হয়। তিনি আপিল বিভাগের রায় ঘোষণা নিয়ে মোটেও বিচলিত নন। মানসিকভাবে অনেকটা স্বাভাবিক এবং ফাঁসির দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে অনেকটা শক্ত অবস্থানে রয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24