বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৩৩ অপরাহ্ন

লন্ডনে নিখোঁজ ১২ সদস্যর সিলেটী পরিবার সিরিয়ায় আছেন

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৪ জুলাই, ২০১৫
  • ৪৫ Time View

যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি:প্রায় দেড় মাস ধরে নিখোঁজ যুক্তরাজ্যর লুটন শহরে বসবাসরত সিলেটের ১২ সদস্যের নিখোঁজ পরিবারটি সিরিয়ায় রয়েছে। মে মাসের শেষ সপ্তাহে সর্বশেষ তারা পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে সবাই ভাল আছেন বলে জানিয়েছিলেন। আপাতত একটা ঝামেলার কারণে তাদেরকে সেখানে থাকতে হচ্ছে বলে জানিয়েছিলেন পরিবারের প্রধান আবদুল মান্নানের স্ত্রী মিনারা খাতুন। নির্ভরযোগ্য সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে বিবিসি এই তথ্য জানায়।
বাংলাদেশী এই পরিবারটি গত ১০ই এপ্রিল ছুটি কাটাতে বাংলাদেশ যায়। ১১ই মে যুক্তরাজ্যে ফেরার জন্য তারা ইস্তাম্বুলে পৌঁছায়, ১৪ই মে লন্ডন হিথ্রো বিমানবন্দরে পৌঁছার কথা থাকলেও সেখান থেকে তারা নিখোঁজ হয়। লুটনে বসবাসকারী পরিবারের প্রধান আবদুল মান্নানের আগের স্ত্রীর দুই ছেলে পরিবারটির নিখোঁজ হওয়ার খবর পুলিশকে জানায়। পুলিশ ধারণা করেছিল পরিবারটি হয়তো তুরস্ক হয়ে সিরিয়ায় পাড়ি জমিয়েছে। তবে কখন তারা সীমান্ত অতিক্রম করেছে, সে বিষয়ে তারা নিশ্চিত হতে পারেনি।
এদিকে, লুটনে বসবাসরত আবদুল মান্নানের দ্বিতীয় স্ত্রীর ছেলে মো. আখতার হোসেন জানান, আমার পিতার শারীরিক অবস্থা ভাল না, আমরা তাদের সবার জন্য উদ্বিগ্ন। তিনি বলেন, যদি তারা সিরিয়ায় গিয়েও থাকে তবে এর জন্য তার ২১ বছরের বোন রাজিয়া খানম দায়ী, কারণ সে নিষিদ্ধ ঘোষিত আল মুহাজিরিনের সদস্য ছিল।
আখতার হোসেন বলেন, রাজিয়া খানমকে আগে থেকেই পুলিশের সন্দেহ ছিল, তাই বাংলাদেশে যাবার দিন এয়ারপোর্টে পরিবারের অন্যান্য সদস্য থেকে তাকে আলাদা করে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল। পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে পুলিশ তেমন আগ্রহ না দেখিয়ে তাদেরকে বাংলাদেশে যাবার অনুমতি দেয়। কিন্তু পরিবারের প্রধান আবদুল মান্নান মেয়েকে একা রেখে যেতে না চাওয়ায় নির্ধারিত ফ্লাইটে তারা বাংলাদেশে যেতে পারেননি। পরে অন্য ফ্লাইটে তারা বাংলাদেশ যান। এ ছাড়া সন্ত্রাসদমন আইনের আওতায় পুলিশ বাংলাদেশে রওনা হওয়ার আগের দিন এই পরিবারের লুটন শহরের বাড়িতে পুলিশ তল্লাশি চালিয়েছিল।
পরিবারের মহিলা সদস্য রাজিয়া বেগমের কারণে গোটা পরিবার তুরস্ক হয়ে সিরিয়ার ইসলামিক স্টেট (আইএস)-এ যোগ দিয়েছে বলে লন্ডন পুলিশ ধারণা করছে। পরিবারটির কোন সদস্যের নাম সন্ত্রাসীদের তালিকায় ছিল কিনা তার কিছুই বিস্তারিত জানায়নি লন্ডন পুলিশ। তবে লুটন কমিউনিটি নেতা আসুক আহমেদ বলেছেন, ওই পরিবারের কয়েকজন নারী উগ্র ধর্মীয় গোষ্ঠীর সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছিলেন বলে ধারণা করছেন স্থানীয়রা। তারা সন্দেহ করছেন, গ্রেপ্তার এড়াতে তারাই পুরো পরিবারটিকে নিয়ে যুক্তরাজ্য ছেড়েছেন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24