মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট চলছে জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি

‘শত্রুরও যাতে চিকুনগুনিয়া না হয়’

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১০ জুলাই, ২০১৭
  • ১২১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: পৌনে দুই মাস আগে গায়ে কাঁপুনি ধরিয়ে জ্বর আসে কলাবাগান এলাকার বাসিন্দা হারুন অর রশিদের। প্রথমে ভেবেছিলেন সাধারণ জ্বর। কিন্তু দুদিন পরেই শরীরে প্রচণ্ড ব্যথা। আর জ্বরও কমে না। গায়ে ১০৪-১০৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা। চিকিৎসকের কাছে যেতেই জ্বরের ধরন দেখে চিকিৎসক বললেন তাঁর চিকুনগুনিয়া হয়েছে।

এই জ্বরের অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে হারুন অর রশিদ বলেন, কী যে প্রচণ্ড ব্যথা, তা ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। হাত-পায়ের গিরায় গিরায় ব্যথা। পরে ব্যথা ছড়িয়ে পড়ে রগেও। ঘুম থেকে উঠলে ব্যথায় পায়ের পাতা মাটিতে রাখা যায় না। স্বাভাবিক হতে এক ঘণ্টা সময় লাগে। পৌনে দুই মাস আগে হলেও এখনো ব্যথা আছে। ব্যথা একেক দিন একেক জায়গায়। এখনো ঠিকমতো সেরে উঠিনি।
কাঁঠালবাগান এলাকার আরেক বাসিন্দা মো. সবুজ কাজ করেন একটি বেসরকারি হাসপাতালে। তাঁর হাসপাতালে গত কয়েক দিন ধরে চিকুনগুনিয়ার রোগী আসতে থাকে। এখন তিনি নিজেও এই জ্বরে আক্রান্ত। তিনি বলেন, ‘ঈদের ১০ দিন আগে আমার জ্বর আসে। উপসর্গ দেখেই বুঝেছি আমার চিকুনগুনিয়া হয়েছে। তারপরও নিশ্চিত হতে চিকিৎসকের কাছে যাই। চিকিৎসক জানান, চিকুনগুনিয়া হয়েছে। চিকিৎসক নাপা ট্যাবলেট আর তরল খাবার খেতে পরামর্শ দিয়ে বিশ্রাম নিতে বলেছিলেন। সাত থেকে আট দিন ছুটি কাটানোর পর গতকাল অফিসে যাওয়া শুরু করেছি। কিন্তু বসে থাকতে ভীষণ কষ্ট হয়।’
কল্যাণপুর এলাকার বাসিন্দা সামসুর রহমান এক সপ্তাহ আগে চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হন। এই রোগের ভয়াবহতা বোঝাতে তিনি বলেন, এক কথায় অসহ্য যন্ত্রণা। একসঙ্গে জ্বর, পাতলা পায়খানা, বমি, গা ব্যথা, খাবারে অরুচি। এক সপ্তাহে সারা শরীর বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। তিনি বলেন, এত দিন ভোগার পর এখন কিছুটা সুস্থ বোধ করছি। কিন্তু ব্যথা আছে সারা শরীরে।
মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা ফিরোজুল ইসলাম বলেন, ‘আমাকে এই রোগে অনেক দিন ধরে ভুগতে হচ্ছে। আমার কোনো শত্রুরও যেন এ রোগ না হয়। ভয়ংকর ব্যথা। সহ্য করা যায় না।’

চিকুনগুনিয়ার রোগের লক্ষণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, এ রোগের মূল উপসর্গ হলো জ্বর এবং অস্থিসন্ধির ব্যথা। শরীরের তাপমাত্রা অনেকটা বেড়ে প্রায়ই ১০৪ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠে যায়, তবে কাঁপুনি বা ঘাম দেয় না। জ্বরের সঙ্গে সঙ্গে মাথাব্যথা, চোখ জ্বালা, গায়ে লাল লাল দানার মতো র‍্যাশ, অবসাদ, অনিদ্রা, বমি বমি ভাব ইত্যাদি দেখা দিতে পারে। শরীরের বিভিন্ন স্থানে, বিশেষ করে অস্থিসন্ধিতে তীব্র ব্যথা হয়, এমনকি ফুলেও যেতে পারে। তীব্র অবসাদ, পেশিতে ব্যথা, অস্থিসন্ধির ব্যথা ইত্যাদি জ্বর চলে যাওয়ার পরও কয়েক সপ্তাহ থাকতে পারে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে, এমনকি মাসের পর মাসও অস্থিসন্ধিতে ব্যথা বা প্রদাহ থাকতে পারে; যা অনেক ক্ষেত্রেই রোগীকে স্বাভাবিক কাজ করতে অক্ষম করে তোলে। রোগী ব্যথায় এতই কাতর হন যে হাঁটতে কষ্ট হয়, সামনে বেঁকে হাঁটেন।
সুত্র-প্রথম আলো

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24