বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০৮:৫১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:

শিক্ষা সংগ্রামী জগন্নাথপুরের আমির হোসেন এখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়বে

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৪ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৩৮ Time View

অধ্যক্ষ মো.আব্দুল মতিন::
আমির হোসেন খুশী নিয়ে মোবাইলে কল দিয়ে বলল, স্যার আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধা তালিকায় চান্স পেয়েছি। আমি আপনার সাথে দেখা করতে চাই। বললাম, খুব খুশী হয়েছি; তোমাকে অভিনন্দন তোমার চেষ্টা সফল হয়েছে ;চলে আসো; আমি বাসায় তোমার জন্য অপেক্ষায় আছি। আমির হোসেন জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের পাড়ারগাঁও গ্রামের দিনমজুর সুন্দর আলী ছেলে। এবার সে এবার জগন্নাথপুর শাহজালাল মহাবিদ্যালয় থেকে মানবিক শাখায় জিপিএ ৪.৬৭ পেয়েছে। শাহজালাল মহাবিদ্যালয় থেকে এবার এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ফাইভ পাওয়ার মতো ৮/১০ জনের একটি শর্ট লিস্ট ছিল আমাদের প্রত্যাশায়। তার মধ্যে মানবিক বিভাগের আমির হোসেনের নামটি ছিল শীর্ষে। কারণ সে এসএসসিতে জিপিএ ফাইভ পেয়েছিল; কলেজে পারফর্মেন্সেও তার স্কোর ছিল শীর্ষে। পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর দেখলাম কেউই জিপিএ ফাইভ পেল না। আমিরও পেলনা! যদিও ফলাফল প্রকাশ হলে সবাই খোঁজ নেয় জিপিএ ফাইভ কয়টি! প্রথমদিকে বিষয়টি কষ্ট দিলেও এখন আর কষ্ট পাইনা। আমার মনের মধ্যে আমির হোসেনের জন্য
ধুরধুর শব্দ অনুভব করলাম। জিপিএ ফাইভ সে পাবে ;ভুমিহীন, দিনমজুর, বর্গাচাষী বাবার সন্তান আমির হোসেন উচ্চশিক্ষা নিয়ে জীবনে প্রতিষ্ঠিত হবে এই স্বপ্নে খেয়ে না খেয়ে নিয়মিত কলেজে আসে। সে অত্যন্ত বিনয়ী, পরিশ্রমী, শিক্ষা সংগ্রামী, মেধাবী ছাত্র। আমি তাকে কলেজে ফ্রি ভর্তি, উপবৃত্তি সহ বিনা খরচে পড়ার সুযোগ করে দিয়েছি। সে জিপিএ ফাইভ না পাওয়ার কষ্টে কি জানি করছে? সাথে সাথে তাকে মোবাইলে কল দিলাম।
বললাম, আমির হোসেন তোমার জিপিএ ফাইভ না আসায় কোন কষ্ট পাইনি। দ্যাখো তুমি সব বিশ্ববিদ্যালয়েই চান্স পাবে। আমার অভিজ্ঞতায় বলছি ;তুমি দেখে নিও। শ্রাবণের অশ্রু বর্ষণ তবুও বন্ধ হচ্ছে না বুঝা যাচ্ছে। আবার জোর দিয়ে বললাম, গতবার আমাদের লিজা শাবিতে মেধা তালিকায় ৪র্থ হয়েছিল
তার জিপিএ ফাইভ ছিল? জাফর ইকবাল স্যার আমার কাছ থেকে লিজার কথা শুনে অনেক প্রশংসা করেছেন। তুমিতো তার চেয়েও অনেক ভাল। অনেকক্ষণ পর নিরবতা ভেঙ্গে বললো, স্যার আমাকে দোয়া করবেন। আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে চাই; আপনিতো আমার ‘নুন আনতে পান্তা ফুরায়’ পরিবারের অবস্থা জানেনই? একটি
ল্যাপটপ কম্পিউটার পুরস্কারের আশায় আমি এসএসসিতে জিপিএ ফাইভ পেয়েছি। আপনার দেখানো পথ ও সাহস নিয়ে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার স্বপ্ন দেখি। বড় তিন বোনের বিয়ে হওয়ার পর আমার
ছোট ভাই ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে, ছোটবোন ৯ম শ্রেণিতে পড়ে আর আমি স্বপ্ন দেখি বড় হয়ে অসহায় মা বাবা ভাই বোনের জন্য কিছু করব বলে। এই ফলাফল আমার স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়েছে। ফলাফল সঠিক হয়নি ; ভালভাবে পেপার মূল্যায়ন করলে আমি জিপিএ ফাইভই পেতাম। ধমক দিয়ে বললাম, রাখো তোমার জিপিএ ফাইভ। আমি বলছি তুমি জিপিএ ফাইভ ছাড়াও উচ্চ শিক্ষার সুযোগ পাবে। তুমি প্রস্তুতি নাও। আমার সাথে দেখা করো সত্তর। কয়েকদিন পর আমির হোসেন আমার অফিসে আসল; সকল শিক্ষকদের সাথে দেখা করল।
আমির হোসেনের মনটি বেদনাক্লিষ্ট; সকালে কিছু খায়নি। জোয়ান ছেলেটির মুখ দেখে আমি আন্দাজ করলাম। অফিস সহকারীকে বললাম তার জন্য কিছু খাবারের ব্যবস্থা করতে। নতুন ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাসে চলে গেলাম। কিন্তু আমিরের শুকনো মুখ,স্বপ্ন আমাকে অন্তরে তাড়া দিল। ক্লাস শেষে দেখলাম আমির আমার জন্য অপেক্ষায় আছে; কিছু বলবে।
জিজ্ঞেস করলাম,কিছু বলতে চাও? বলল, স্যার সবাই শহরে ভার্সিটি কোচিং এ ভর্তি হয়েছে। শুধু আমি পারছিনা টাকার অভাবে, এবার হাওরের ক্ষেতে তো ধান নাই। পরিবারের সবাই অনাহারে,অর্ধাহারে………।
চোখে আমার অশ্রু এলো। আমার সহকর্মীদের সহায়তা চাইলাম। আমরা সবাই মিলে তাকে দশ হাজার টাকার ব্যবস্থা করলাম। পরের দিন এসে টাকা নিয়ে যেতে বললাম। হাসি মুখে বললাম, চিন্তা কর না।
আজকে আমিরের খুশির ভিড়ে আমিও হারিয়ে গিয়েছিলাম। অনেক্ষণ আলাপ হলো। ২৭ মার্চ কলেজের বিদায় অনুষ্ঠানে যে কান্নার হাট বসেছিল সেদিন সবার মনযোগ অন্য দিকে নেয়ার জন্য কয়েক জনকে নিয়ে ছবি তোলা শুরু করলাম। এতে সবাই যোগ দিল। আমির ছবি তুলল না। বলল স্যার যেদিন বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাব
আপনাকে সালাম করে ছবি তুলব হাসি মনে। আপনি কি আমাকে সেদিন ছবি তুলতে দিবেন? বললাম কেন নয়? সেদিন আর বেশী মজা হবে। আজ আমির হোসেন বিজয়ের ছবি আমার সাথে তুললো যদিও সে বিজয়ের নেপথ্যের কষ্ট না বললে কেউ বুঝবে না।
তার অনুমতি নিয়ে কষ্টগুলো প্রকাশ করলাম। যাবার বেলা সে অনিশ্চিত করুণ চাহনি দেখে বললাম, ভয় পেয়ো না; বত্রিশ টি দাঁতের মধ্যে একটি জিহবা ঠিকই সুরক্ষিত থাকে।
আমাদের চার পাশে যারা আছি চাইলেই আমির হোসেনের উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন
সুরক্ষিত করতে পারি।
অভিনন্দন শিক্ষা সংগ্রামী আমির হোসেন। তোমার স্বপ্নের যেন মৃত্যু না হয়……।
লেখক – প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ,শাহজালাল মহাবিদ্যালয়,জগন্নাথপুর, সুনামগঞ্জ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24