মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন

শিগগিরই নতুন ১০ হাজার নার্স নিয়োগ দেয়া হবে- প্রধানমন্ত্রী

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১৭৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শিগগিরই নতুন ১০ হাজার নার্স নিয়োগ দেয়া হবে। সেবামূলক এ পেশায় আসতে তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে। আমি নার্সিং পেশাকে অত্যন্ত মর্যাদা দিই। তাদের শুশ্রূষায় রোগীরা ভালো হয়। এটা একটা মহৎ পেশা। আমাদের এখানে আগে এটাকে ছোট করে দেখা হতো। আমার এখানে আসার উদ্দেশ্য একটাই- এই পেশাকে আরও গুরুত্ব দেয়া। এই পেশা গ্রহণ করে আগামীতে এক একজন ফ্লোরেন্স নাইটেঙ্গেল হবে।
প্রধানমন্ত্রী বুধবার গাজীপুর মহানগরীর কাশিমপুরের সারাবো তেঁতুইবাড়ি এলাকায় অবস্থিত শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে নার্সিং কলেজের শিক্ষা কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই নার্সিং কলেজে আন্তর্জাতিক মানের নার্সিং প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। নার্সিং কলেজটির নামকরণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন সন্তান হিসেবে বলতে পারি, আমাদের চেয়ে এ দেশের মানুষকে বেশি ভালোবেসেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। গ্রামবাংলার মানুষের জন্য কাজ করেছেন, জেল খেটেছেন। পাশে থেকে সবসময় তার সঙ্গে কাজ করেছেন বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। আড়ালে থেকে দায়িত্ব পালন করেছেন নিষ্ঠার সঙ্গে। মানবতার সেবায় তিনিও নিয়োজিত ছিলেন সবসময়। তাই এই নার্সিং কলেজটি তার নামে করে দিয়েছি।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্টের সদস্য সচিব শেখ হাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী আকম মোজাম্মেল হক, প্রকল্প পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, সচিব সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, মালয়েশিয়া কেপিজে হেল্থ কেয়ার বার্হাডের প্রেসিডেন্ট তুয়ান হাজি আমির উদ্দিন আবদুল সাতার। এছাড়া অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য রাখেন বোর্ড অব ডিরেক্টর্সের সদস্য নাজমুল হাসান পাপন, স্বাগত বক্তব্য রাখেন জয়েন্ট কমিটির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) আবদুল হাফিজ মল্লিক ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কলেজের নবীন ছাত্রী সাদিয়া ফারহানা।
দেশে উন্নত চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার তাগিদ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিদেশে যাওয়া নয়, দেশেই যেন চিকিৎসা নিতে পারি। অসুখ-বিসুখ হলেই বিদেশে যেতে হবে- আমার এই বিষয়ে অনীহা। কেন বিদেশে যেতে হবে? আড়াইশ শয্যার এই হাসপাতালে আগামীতে পাঁচশ শয্যা করার পরিকল্পনা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটাকে মেডিকেল কলেজ করা হবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা আশা করছি এখান থেকে উচ্চশিক্ষিত দক্ষ নার্স বেরিয়ে আসবে। তারা দেশের পাশাপাশি বিদেশের হাসপাতালগুলোতে কাজের সুযোগ পাবেন। এই প্রতিষ্ঠানের শ্রেষ্ঠ ১০ জন নার্সকে মালয়েশিয়ায় পাঠানো হবে। বিদেশে না গিয়ে এই হাসপাতালেই নিজে সব ধরনের চিকিৎসা নেয়ার ঘোষণা দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আমি আমার সব চিকিৎসা এই হাসপাতালে নেব।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্ট থেকে প্রায় এক হাজার সাতশ দরিদ্র ও প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীকে বৃত্তি এবং দুস্থদের সহায়তা দেয়া ও ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় আহতদের চিকিৎসার ব্যয় মেটানো হয়। ওই ট্রাস্ট থেকে দেশব্যাপী আই ক্যা¤প স্থাপনসহ গরিব রোগীদের চিকিৎসা সুবিধা ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কৃতী শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দেয়া হচ্ছে।
উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরের বাড়িসহ সব অর্থ-স¤পদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্টের হাতে তুলে দেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। এই ট্রাস্ট থেকে গাজীপুরের কল-কারখানা, ইপিজেড ও আশপাশের তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিকদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে ছয় একর জমির ওপর ২১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৫০ শয্যার এই হাসপাতাল গড়ে তোলা হয়েছে। তিনি হাসপাতালের রোগীদের সুবিধার্থে হাসপাতালের সামনের রাস্তায় একটি আন্ডারপাস নির্মাণ করার কথা জানান।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১১ সালের ১৪ জানুয়ারি এই হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এরপর ২০১৩ সালের ১৮ নভেম্বর মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দাতোসিরি মোহাম্মদ নজিব বিন তুন আবদুল রাজাক ও ছোট বোন শেখ রেহানার সঙ্গে এই হাসপাতালের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন তিনি। বেসিক কোর্সে ২৪ জন এবং পোস্ট বেসিক কোর্সে ৪০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু করেছে এ প্রতিষ্ঠানটি। মালয়েশিয়ার সেবা সংস্থা কামপুলান পেরুতান জহর (কেপিজে) শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল বিশেষায়িত হাসপাতালের সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করছে। এটি সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে বাস্তবায়িত হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24