সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০১:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে প্রতিবাদের ঝড় বইছে, পাথরই হাতিয়ার, নিহত ট্রাক চালক ছাত্রলীগের দু’পক্ষে সংঘর্ষ,গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ফারুক হত্যা মামলায় এক রোহিঙ্গা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম

সন্তান অপরাধ করলে সে দায় কার?

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৩৯ Time View

ওয়ালি উল্লাহ সিরাজ: পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, তিনি (আল্লাহ) বললেন, ‘হে নুহ! সে তোমার পরিবারের কেউ নয়। সে অসত্কর্মপরায়ণ। সুতরাং যে বিষয়ে তোমার জ্ঞান নেই, সে বিষয়ে আমাকে অনুরোধ করো না। আমি উপদেশ দিচ্ছি, তুমি যেন অজ্ঞদের শামিল না হও। ’ (সুরা : হুদ, আয়াত : ৪৫-৪৬)

তাফসির : আগের আয়াতে উল্লেখ করা হয়েছিল হজরত নুহ (আ.) তাঁর পুত্রকে রক্ষার জন্য আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করেছেন। তিনি বলেছেন, হে আল্লাহ! আপনি আমার পরিবার-পরিজনকে রক্ষা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। কিন্তু আমার চতুর্থ পুত্র দেখছি ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। আপনি তাকে রক্ষা করুন। আলোচ্য আয়াতে এর জবাবে আল্লাহ তাআলা বলেন, হে নুহ! এই ছেলে তোমার পরিবারের এমন সদস্য নয়, যাদের রক্ষার ব্যাপারে আমি প্রতিশ্রুতি দিয়েছি। আমি তো কেবল তাদের রক্ষা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছি, যারা ইমানদার ও সত্কর্মপরায়ণ। তোমার ছেলে বেইমান ও অসত্কর্মপরায়ণ।

ইমান না আনার কারণে সে তোমার ধর্মীয় ও আধ্যাত্মিক পারিবারিক বৃত্ত থেকে বেরিয়ে গেছে।
আল্লামা ওহবা জুহাইলি (রহ.) লিখেছেন : ‘সে তোমার পরিবারের কেউ নয়’—কথাটা ব্যাখ্যাসাপেক্ষ। তাফসিরবিদদের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত হলো, এর প্রকৃত অর্থ—‘সে তোমার ধর্মীয় পরিবারভুক্ত নয়। ’ এখানে ‘ধর্মীয়’ শব্দটি উহ্য আছে। অর্থাৎ সে তোমার রক্ত-সম্পর্কীয় পরিবারের একজন সদস্য হতে পারে। কিন্তু তোমার নৈতিক, আধ্যাত্মিক পরিবারের সঙ্গে তার কোনো সম্পর্ক নেই। আর আজ মহাপ্রলয়ের মাধ্যমে যে বিরোধের মীমাংসা হচ্ছে, সেটি বংশগত বা জাতিগত কোনো বিরোধ নয়। এক বংশের লোকদের রক্ষা করা হবে, অন্য বংশের লোকদের ধ্বংস করা হবে—ব্যাপারটি এমন নয়। বরং এটি হচ্ছে ইমান ও কুফর বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপার। এখানে কেবল তাদের রক্ষা করা হবে, যারা সত্কর্মপরায়ণ। আর যাদের নৈতিকতা ও চরিত্র বিকৃত হয়ে গেছে, আজ তাদের খতম করে দেওয়া হবে। সুতরাং প্রকৃত অবস্থা না জেনে আমার কাছে কোনো আবেদন করা উচিত নয়। ভবিষ্যতে অজ্ঞসুলভ কাজ না করার জন্য আমি তোমাকে উপদেশ দিচ্ছি।

আয়াতে একটি বিশেষ বিষয়ের প্রতি মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করা হয়েছে। স্থূল দৃষ্টিসম্পন্ন মানুষ সন্তানকে কেবল এ জন্য ভালোবাসে যে তারা তাদের ঔরসে জন্ম নিয়েছে। তাদের সঙ্গে তাদের রক্তের সম্পর্ক রয়েছে কিংবা বৃদ্ধকালে তাদের মাধ্যমে উপকৃত হওয়া যাবে। এসব অভিভাবকের কাছে সন্তান সৎ বা অসৎ হওয়ার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ নয়। অতি আদর পেয়ে সন্তানটি জঘন্য অপরাধী হয়ে গেলেও বিষয়টিকে তাঁরা হালকাভাবে গ্রহণ করেন। এমন পরিস্থিতিতে তাঁরা অপরাধী সন্তানের পক্ষ নিতেও দ্বিধাবোধ করেন না। নৈতিক ও সামাজিক দায়বদ্ধতার কথাও তাঁরা তখন ভুলে যান। কিন্তু ইমানদারের দৃষ্টি হতে হবে সত্যের প্রতি নিবদ্ধ। ইমানদার ব্যক্তি অন্যায়ের সঙ্গে আপস করেন না। প্রাকৃতিক নিয়মে সন্তান মা-বাবার অধিকারে আসে। তাই তাদের সুশিক্ষা ও উন্নত প্রশিক্ষণ দিয়ে আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্বও মা-বাবার ওপর বর্তায়। পর্যাপ্ত পরিশ্রম ও সর্বাত্মক প্রচেষ্টার পরও কোনো সন্তান আদর্শ মানুষ হতে না পারলে বুঝতে হবে যে মা-বাবার পরিশ্রম ও প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়ে গেছে। এ ধরনের সন্তানের সঙ্গে মা-বাবার নৈতিক ও মানসিক সংযোগ থাকার কোনো কারণ নেই। এমন অপরাধী সন্তানের ওপর প্রাকৃতিক বা পার্থিব শাস্তি আরোপিত হলে পরিবারের সদস্যদের তাদের পক্ষ নেওয়ারও সুযোগ নেই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24