সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু

সাংস্কৃতিক রাজধানী- বামিয়ান থেকে সুনামগঞ্জ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৬ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৪৩ Time View

মো. আব্দুল মতিন
‘সাংস্কৃতিক রাজধানী’ কথাটি ২০১৪ সালের ২৫শে সেপ্টেম্বর ভারতের ইংরেজী দৈনিক ‘দি হিন্দু’তে অনিতা জসুয়ার প্রতিবেদন Bamiyan to be SAARC cultural capital for 2015 এর মাধ্যমে প্রথম নজর কাড়ে। আফগানিস্তানে ১৯৯৬ সালে তালেবান ক্ষমতায় আসার পর ধর্মের দোহাই দিয়ে সেদেশের শিল্পকর্মের অনেক কিছুই ধ্বংস করে ফেলে। এমনই ধ্বংস করে ফেলা শিল্পকর্মের একটি হলো বামিয়ান প্রদেশের ১৫০০ বছরের পুরনো জোড়া বুদ্ধমূর্তি। ২০০১ সালে ধর্মের নামে ধূলিসাৎ হয়েছিল এই প্রাচীন ইতিহাস ও ঐতিহ্য। ফলে বামিয়ান বিশ্বের নজরে আসে। ২০০৩ সালে টঘঊঝঈঙ বামিয়ানকে বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা ভুক্ত করে। সার্ক কর্তৃপক্ষ ২০১৫ সালের এপ্রিল থেকে সার্কের ‘সাংস্কৃতিক রাজধানী’ ঘোষণা করেন বামিয়ানকে। সেখানে বাংলাদেশের জন্যও একটি সুসংবাদ ছিল। Dhaka will be the SAARC cultural capital in 2016-17 লাইনটিতে। ২০১৬ সালের নভেম্বরে সার্কের কালচারাল সেন্টারের ঢাকায় সফররত পরিচালক ওয়াসান্থে কোতোয়ালার নেতৃত্বে সংস্থার একটি দল বাংলাদেশের প্রাচীন জনপদ বগুড়ার মহাস্থানগড় কে সার্কের সাংস্কৃতিক রাজধানী হিসেবে চূড়ান্ত ঘোষণা দেন যা ২১ জানুয়ারি ২০১৬ থেকে কার্যকর হয়। প্রাচীন পু-ুবর্ধন রাজ্যের রাজধানী মহাস্থানগড়ের নাম ছিল পু-ুনগর। এখানে মৌর্য, গুপ্ত, পাল, সেন সা¤্রাজ্যের প্রচুর নিদর্শন পাওয়া গেছে। গবেষকদের ধারনা খ্রিষ্টপূর্ব চতুর্থ শতক থেকে মহাস্থানগড়ে মানববসতির চিহ্ন পাওয়া যায়। ১৮৭৯ সালে প্রাচীন পু-ুবর্ধন রাজ্যের ঐতিহাসিক নিদর্শন আবিষ্কার করেন ব্রিটিশ প্রতœতত্ত্ববিদ আলেকজান্ডার কানিংহ্যাম। পু-্র রাজ্যেও রাজধানী বর্তমানের রাজশাহী, দিনাজপুর এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দিনাজপুর পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল ( দৈনিক প্রথম আলো, ৩ নভেম্বর, ২০১৬)।
জেলা ব্র্যান্ডিং এর উপর ১০অক্টোবর, ২০১৭ ইংরেজি দৈনিক ‘ দি ইনডিপেন্ডেন্ট’ পত্রিকায় বাসস এর বরাত দিয়ে প্রথম সংবাদ প্রকাশিত হয় ; যার শিরোনাম দাঁড়ায় বাংলায়’ অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন প্রতিটি জেলায় ব্র্যান্ডিং এর ক্ষেত্রে তিনটি উপকরণের উপর গুরুত্ব দেয়’। সরকারের অ্যাকসেসটু ইনফরমেশন প্রোগ্রাম কাজ করছে দেশের প্রত্যেকটি জেলাকে পর্যটন, পণ্য এবং উল্লেখযোগ্য উদ্যোগ কে গুরুত্ব দিয়ে ব্র্যান্ডের মাধ্যমে বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে। জেলা-ব্র্যান্ডিংটি সেই বিশেষ এলাকার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি বিবেচনা করে জনগণের সকল বিভাগকে সমন্বিত করে তার সুনির্দিষ্ট এবং সম্ভাব্য উন্নয়নের জন্য একটি কর্ম পরিকল্পনা।-ব্র্যান্ডিং সব জেলায় বড় কর্মক্ষেত্র তৈরি করে অর্থনৈতিক সম্ভাবনার একটি নতুন দিগন্ত উন্মোচিত করবে। কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য ইতোমধ্যে প্রতিটি জেলার ব্র্যান্ডিং উপকরণ, লোগো, ট্যাগলাইন এবং প্রতিটি জেলায় পরিচালিত কর্মশালার এবং ভিডিও কনফারেন্সিং নির্বাচিত করা হয়েছে। প্রতিটি জেলাও তাদের নিজ নিজ ব্র্যান্ডের বই তৈরি করছে। ছয়টি বই প্রকাশিত হয়েছে এবং দশটি বই প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে। অপেক্ষায় ছিলাম সুনামগঞ্জ জেলার ব্র্যান্ডিং নিয়ে কি ভাবনা আসে; মনে মনে নিজে একটি ব্র্যান্ড দিয়ে রেখেছিলাম; ভাবছিলাম সেটা নীতি নির্ধারকদের সাথে মিলে কিনা?
সুনামগঞ্জ অসংখ্য হাওর-বাওর, নদীনালা, খালবিলে পরিবেষ্টিত জনপদ; ঐতিহ্য সংস্কৃতিতে -বাউলের চারণভূমি সুনামগঞ্জ তাঁর ঐতিহ্যের ধারা থেকে আজও বিচ্যুত হয়নি। লোকসাহিত্যে মহাভারতের অনুবাদক মহাকবি সঞ্জয় (পঞ্চদশ শতক), কুবের আচার্য্য, ঈশান নাগর (বৈষ্ণব কবি) দিব্য সিংহ (লাউর রাজ্যের স্বাধীন রাজা) থেকে শুরু করে সৈয়দ শাহনূর, সৈয়দ হোসেন আলম, রাধারমণ, হাছনরাজা, দুরবীণ শাহ, কালাশাহ, ছাবাল শাহ, এলাহী বক্স মুন্সী, শাহ আছদ আলী, পীর মজির উদ্দিন, আফজল শাহ, শাহ আবদুল করিম এ মাটির সন্তান। আধুনিক সাহিত্যে, গল্প-উপন্যাসে শাহেদ আলী, ঝর্ণাদাস পুরকায়স্থ, কবিতায় প্রজেশ কুমার রায়, মুতাসিম আলী, মোহাম্মদ সাদিক, আশরাফ আহমদ, ইকবাল কাগজী, মমিনুল মউজদীন, শামীম লুৎফর, গীতসাহিত্যে মনিরুজ্জামান মনির, দেওয়ান মহসিন রাজা চৌধুরী, সঙ্গীতে উজির মিয়া, নির্মলেন্দু চৌধুরী, এমরান আলী, শফিকুন্নর নুর, সাবিবর আহমদ সোহেল, নাটকে তরনী কান্ত দে, মোদাবিবর আলী টুনু, শাহ আবু তাহের, সদ্য প্রয়াত গোলাম রব্বানী, শিল্পকর্মে ধ্রুব এষ, সাংবাদিকতায় ফজলুল হক সেলবর্ষী, মকবুল হোসেন চৌধূরী, মুনাওর আলী, ইছাক আলী, হাসান শাহরিয়ার, সাকির আহমদ, শিক্ষায় মোহাম্মদ আলী, আব্দুল মন্নান চৌধুরী, আলী ফরিদ আহমদ, আব্দুল কাইয়ূম, সমাজসেবায় হাজী মকবুল হোসেন পুরকায়স্থ, সতীশ চন্দ্র রায়, দিগেন্দ্র চন্দ্র বর্মণ, ক্রীড়ায় সমশের আলী, আছদ্দর আলী ভূঁইয়া, কন্টর মিযা, নাজির আহমদ চৌধুরী উল্লেখযোগ্য। সুনামগঞ্জের আঞ্চলিক ভাষার সঙ্গে প্রাচীন চর্যাপদের ভাষার মিল পরিলক্ষিত হয়। অন্য অঞ্চলের সঙ্গেও এমন দাবী যুক্তিযুক্ত। অন্তত বিশেষজ্ঞদের অভিমত এমনটিই। প-িত সুনীতি কুমার চট্টোপাধ্যায়ের মতে, চর্যাপদের ভাষা পশ্চিমবঙ্গের উপভাষা। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর মতে এটি প্রাচীন বঙ্গ কামরূপী ভাষা। আবার কেউ কেউ বলেন প্রাচীন বাংলা ভাষার নিদর্শন মাত্র। আমাদের অভিমত হলো, বাংলা ভাষাসহ উড়িয়া, অসমীয়া, মৈথিলী ইত্যাদি ভাষা ও বাংলা ভাষার উপভাষা বা আঞ্চলিক ভাষাগুলোর সঙ্গে কোনো না কোনোভাবে চর্যাপদের ভাষার মিল ছিল সুদূর কিংবা অদূর অতীতে, কিন্তু আজ আর নেই। সে ক্ষেত্রে কেবল ব্যতিক্রম সুনামগঞ্জসহ নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ ও হবিগঞ্জের- বলা ভাল প্রাচীন লাউড় রাজ্যের আঞ্চলিক ভাষা। ব্যতিক্রমী প্রাচীন লাউড় রাজ্যের ভাষা ব্যতীত অন্যান্য উপভাষাগুলো দ্রুত পরিবর্তনের মাধ্যমে চর্যাপদের ভাষার সঙ্গে সম্পর্কের সূত্রকে সম্পূর্ণভাবে ছিন্ন করেছে। প্রাচীন লাউড় রাজ্য ও তার আশপাশের কিছু এলাকার- বর্তমানের ভাটি বাংলা যাকে বলে- ভাষা আশ্চর্য রকমভাবে পরিবর্তনের দিক থেকে শ্লথগতিসম্পন্ন বিধায় চর্যাপদের ভাষার সঙ্গে সম্পর্কের সূত্রটি আজও অক্ষুন্ন আছে। এই কারণেই সুনামগঞ্জের জনবসতিপূর্ণ এলাকায় চর্যাপদ কর্তাগণের উল্লেখযোগ্য অংশের বসবাস ছিল এবং তাঁদের উত্তরসূরীর মানসপুত্র অথবা ভাবশিষ্য অসংখ্য বৈষ্ণব-বাউলেরা এখনও এখানকার প্রকৃতি ও সমাজ-সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে বিরাজ করেন। বাংলাদেশের অন্যত্র এমনটি বিরল দৃশ্য। আহমদ শরীফ যখন বলেন, ‘চর্যাপদের দেশেই বৈষ্ণব, বাউলের উদ্ভব, তখন মনে হয় চর্যাপদের দেশ বলতে সুনামগঞ্জকেই বুঝানো হয়েছে’ (myÎ:Sunamganj.gov.bd)|
বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জেলা ব্র্যান্ডিং অনেক আগেই হয়েছে ; যার ভিত্তিতে পর্যটন ব্যবসা, খাদ্য, ইতিহাস ঐতিহ্যের জন্য তাঁদের বিভিন্ন অঞ্চল বিখ্যাত হয়েছে। আমেরিকার প্রথম ঐতিহাসিক জেলার ব্র্যান্ড লেগেছে চার্লস্টোন, সাউথক্যারোলিনা জেলায় ১৯৩১ সালে। ব্রিটেনের কর্টসওয়ার্ল্ড, ডেভন, লেকডিস্ট্রিক্ট, লন্ডন, কর্ণওয়াল, বাথ, ব্রাইটন প্রভৃতি টোরিস্টদের জন্য বিখ্যাত। এছাড়া গত সপ্তাহে ইংল্যান্ডের ‘ইভেনিং স্ট্যান্ডার্ড ‘ পত্রিকায় নয়টি স্কুল কে ব্র্যান্ড করে ফ্রান্সেসকা জিলেট একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেন যা সারা দেশে হৈচৈ ফেলে দেয়। লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকস এ গবেষণাটি করে ; যেখানে ১২০ বছরের তথ্য উপাত্তের মাধ্যমে দেখানো হয়েছে চার্টারহাউজ, ইটন, হ্যারো, রাগবি, স্ট্রিজবারি, সেন্টপল, মার্চেন্টটেইলর, উইনচেষ্টার স্কুলে পড়েছেন যারা তাঁদের মধ্যে ৫৪ জনই বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে শীর্ষে যারা আছেন তাঁদের বেশীর ভাগই ঐসব ব্র্যান্ডের স্কুলে পড়াশুনা করেছেন।
বিগত ২৭- ৩০ অক্টোবর সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জেলার চার লোক কবি বৈষ্ণব কবি রাধারমণ, মরমী কবি হাছন রাজা, জ্ঞানের সাগর দূর্ব্বীণ শাহ ও বাউল সম্রাট শাহ আব্দুল করিমের স্মরণে ‘হাওড়পাড়ের গল্প – ২০১৭’ শিরোনামে অনুষ্ঠিত উৎসবের আলোচনায় মাননীয় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান, কবি ও গবেষক ড. মোহাম্মদ সাদিক, তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ সহ অতিথিদের (সবাই সুনামগঞ্জের সন্তান) সুনামগঞ্জ জেলাকে বাংলাদেশের ‘ সাংস্কৃতিক রাজধানী’ ঘোষণার দাবিতে জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর পত্রিকায় ৩১অক্টোবর সম্পদকীয়তে বিষয়টি নিয়ে যুক্তিযুক্ত শিরোনাম হয়েছে ‘সাংস্কৃতিক রাজধানী ঘোষণার দাবিটি আমাদের সকলেরই প্রাণের দাবি’।
ব্র্যান্ডিং এর বিষয়টি আমার কল্পিত সেই ব্র্যান্ডিং এর সাথে মিলেছে। চর্যাপদের দেশ; মহাভারতের প্রথম বাংলা অনুবাদক মহাকবি সঞ্জয়ের দেশ ;সুনামগঞ্জ জেলা বাংলাদেশের ‘সাংস্কৃতিক রাজধানী’ ব্র্যান্ডের ঘোষণার দাবি রাখে। মহাস্থানগড় যদি সার্কের সাংস্কৃতিক রাজধানী হয় তবে সুনামগঞ্জ জেলা বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক রাজধানী হবার যোগ্য। মহাভারতের অনুবাদক মহাকবি সঞ্জয়কে নিয়ে কবি, গবেষক মোহাম্মদ সাদিকের তথ্য প্রমাণ ভিত্তিক মূল্যাবান দলিল ‘লাউররাজ্য, মহাকবি সঞ্জয় ও তাঁর মহাভারত ঃ মহাজনদের মতামত” যা ‘সুনামগঞ্জের খবর পত্রিকার জুলাই ২৯, ২০১৭ তে প্রকাশিত হয় এবং তিনি সেখানে সাহসী ভাষায় সুনামগঞ্জের বিদ্যামান সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলের সাথে মহাকবি সঞ্জয় কে নিয়ে উল্লেখ করেছেন “লাউড়ের প্রতœতত্ত্ব নিয়ে অনুসন্ধান করেছেন এ রকম একজন গবেষক তাঁর নিবন্ধে উল্লেখ করেন- The palace or the `Haweli undoubtedly holds immense possibilities and prospects for Bangladesh and the author of this paper firmly believes that it can unfurl some new or unexplored areas of research and expertise with the underlying facts and information found about the ancient civilization of Bangladesh. It can add new dimension in the thesaurus of ancient conservable civilization like `Mahasthan Gar or Lalmai-Maynamati or even `Mohenjo daro and Harappa civilization. Moreover, this can be turned into an ideal research lab for the archeologists, researchers, conservationists, environmentalists and think tanks of the country who perpetually hover for innovation, exploration and creation. The `Haweli can also decipher a new and unknown chapter about the culture and heritage of our race paving ways and means for the anthropologists to go ahead with newer findings.
সুনামগঞ্জ বাংলাদেশের ‘সাংস্কৃতিক রাজধানী’ ব্র্যান্ড টি প্রতিষ্ঠত হোক স্বমহিমায়, এটা সময়ের যৌক্তিক দাবি এবং মহাকবি সঞ্জয় কেন্দ্রিক প্রতœতাত্ত্বিক গবেষণায় লাউড় রাজ্যের ইতিহাস, সংস্কৃতি ও সভ্যতার গল্প নতুন প্রজন্মের কাছে হয়ে উঠুক আগ্রহের কেন্দ্রস্থল। ইতালি সরকার ইতালি ও সাইপ্রাসের মধ্যে ঐতিহাসিক শিকড়সন্ধান, প্রাগৈতিহাসিক সাইপ্রাসের প্রাকশহুরে সমাজের মতাদর্শগত ও সাংস্কৃতিক দিক সম্পর্কে অধিকতর জ্ঞান অর্জন;মধ্যব্রোঞ্জ যুগের প্রধান উৎপাদন কেন্দ্রগুলোর উদ্ভব; একটি শহুরে সমাজের জন্ম এবং প্রগতিশীল একীভুতকরণ সম্পর্কে খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় সহ¯্রাব্দ পর্যন্ত প্রতœতাত্ত্বিক গবেষণার জন্য সাইপ্রাস কে চারটি প্রকল্পে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছে। শুধু মহাকবি সঞ্জয়ের লাউড়ের রাজ্যের প্রতœতাত্ত্বিক গবেষণায় সরকার এগিয়ে আসার সক্ষমতা দেখাবে এই আশাটুকুও আজ বড় প্রয়োজন।
লেখক: অধ্যক্ষ শাহজালাল মহাবিদ্যালয়, জগন্নাথপুর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24