শনিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২০, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
পৌর মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহে হিন্দু কমিউনিটি নেতাদের শ্রদ্ধা নিবেদন চিরনিদ্রায় নিজের তৈরী কবরে শায়িত জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় জগন্নাথপুর পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আব্দুল মনাফকে শেষ বিদায়,জানাজায় শোকার্ত মানুষের ঢল পৌর মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহে পরিকল্পনা মন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন পৌর চত্বরে মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সন্মেলনে পরিবর্তনের পক্ষে তৃণমূল নেতাদের আওয়াজ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে:শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরে শিশুর মৃত্যু:’শিশুটি যখন মৃত্যুের যন্ত্রনায় চটপট করছিল,যখন ডাক্তার-নার্স ঘুমে’ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরের চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি

সিলেটে ছাত্রলীগের কোন্দল : প্রাণ হারাচ্ছে সুনামগঞ্জের তরুণরা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৭৫ Time View

শামস শামীম ::
সুনামগঞ্জের সন্তান তরুণ ছাত্রলীগ নেতারা উচ্চশিক্ষার জন্য সিলেটে যাওয়ার পর রাজনৈতিক কোন্দলে জড়িয়ে লাশ হয়ে বাড়ি ফিরছে। সন্তান হারানো বেদনায় কাঁদছে পুরো পরিবার। নির্মম হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচারের আশায় দিন গুনছেন তারা।
সিলেটে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে দুই মাসের ব্যবধানে খুন হয়েছেন সুনামগঞ্জের দুই মেধাবী ছাত্রলীগ নেতা। এর আগেও একাধিক ছাত্রলীগ নেতা সিলেটের ছাত্রলীগের দ্বন্দ্বের কারণে এবং আধিপত্য বিস্তারের জেরে খুন হয়েছেন।
নেতাকর্মীরা জানান, আওয়ামী আদর্শের প্রতি নিবেদিত প্রাণ এসব নেতাকর্মীরা পড়াশোনার পাশাপাশি সিলেটে গিয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যুক্ত হন। কিছুদিনের মধ্যেই নেতৃত্বগুণের কারণে তারা সংগঠনের নেতা-কর্মীদের প্রিয়পাত্রে পরিণত হন। হঠাৎ করে নেতৃত্বঝলকে সংগঠনকে আলোকিত করায় শত্রু হয়ে দাঁড়ায় নিজেরই সংগঠনের কিছু দুষ্কৃতিকারী নেতা-কর্মী। ‘পথের কাঁটা’ সরিয়ে দিতে তারা এক পর্যায়ে নিষ্পাপ জীবন কেড়ে নেয়। এভাবে একে একে সিলেটে ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসা সুনামগঞ্জের ছাত্রলীগ নেতাদের কাফনের কাপড় গায়ে বাড়িতে ফিরতে হচ্ছে। নির্মম হত্যাকা-ের ঘটনায় পরিবারের লোকজন এখন অন্য সন্তানদের রাজনীতিবিমুখতার পরামর্শ দিয়ে রাজনীতি থেকে তাদেরকে দূরে থাকার নির্দেশনা দিচ্ছেন। বিচার না পাওয়ায় ক্ষুব্ধও তারা।
সর্বশেষ গত ১৬ অক্টোবর সিলেট নগরীর টিলাগড়ে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে নির্মমভাবে খুন হন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার বালিশ্রী গ্রামের ওমর মিয়াদ। এ ঘটনায় সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জেলার দিরাইয়ের এম রায়হান চৌধুরীসহ ১৫জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। নিহতের বাবা আখলু মিয়া সন্তান হত্যার বিচার চেয়ে শাহপরাণ থানায় এই মামলা দায়ের করেন। মিয়াদ লিডিং ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগের ছাত্র ছিলেন বলে জানা গেছে।
গত ১৪ সেপ্টেম্বর বিকেলে সিলেট নগরীর শিবগঞ্জ লামাপাড়া সৈয়দ আলী মাজারের পাশে ছাত্রলীগের কোন্দলের জেরে ছুরিকাঘাতে খুন হন দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার শান্তিগঞ্জ গ্রামের সন্তান ছাত্রলীগ নেতা জাকারিয়া মোহাম্মদ মাসুম। এ ঘটনায় গত ১৬ সেপ্টেম্বর মাসুমের মা আছিয়া বেগম ২২ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রধান আসামি টিটু চৌধুরীর বাড়ি সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায়।
২০১৪ সনের ২০ নভেম্বের দিরাই উপজেলার সুমন চন্দ্র দাস খুন হন ছাত্রলীগের কোন্দলে। সিলেট শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের দ্বন্দ্বের জেরে সুমন খুন হন। তিনি সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্র ছিলেন। এ ঘটনায়ও সুমনের স্বজনরা মামলা দায়ের করলেও এখনো বিচার পাননি।
এর কয়েক বছর আগে জগন্নাথপুর উপজেলার শাহারপাড়া গ্রামের সন্তান ছাত্রলীগ নেতা নিজাম কামালী ও একই উপজেলার বালিকান্দি গ্রামের সন্তান ছাত্রলীগ নেতা আকবর সুলতান ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে নির্মমভাবে খুন হন। প্রতিপক্ষের লোকজন তাদের হত্যা করে লাশ ফেলে যায়। এ দুই হত্যাকা-ের ঘটনায় মামলা হলেও এখনো বিচার পায়নি নিহত ছাত্রলীগ নেতাদের স্বজনরা। জানা গেছে শুধু নিহতই নয় অনেক ছাত্রলীগ নেতা দ্বন্দ্বে জড়িয়ে গুরুতর আহতও হয়েছেন। তারা সেই ক্ষত নিয়ে এখনো দিন কাটাচ্ছেন।
ওমর মিয়াদের বাবা আখলু মিয়া বলেন, রাজনীতির কারণে আমার ছেলেকে খুন করা হয়েছে। আমি ছেলে হত্যার বিচার চাই। এর সঙ্গে যারা জড়িত তাদের কঠিন শাস্তি চাই।
সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ বলেন, সিলেট ছাত্রলীগের কোন্দলের কারণে আমাদের সুনামগঞ্জের মেধাবী ছাত্রনেতারা একের পর এক খুন হচ্ছে। হতাহতের ঘটনায় পরিবারের লোকজন এখন অন্য সন্তানদের রাজনীতিবিমুখতার শিক্ষা দিচ্ছেন। এটা দেশের রাজনীতির জন্য ক্ষতির। হতাহতের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার বিচার হলে অন্তত পরিবারের লোকজন শান্তি পেতেন। তাদের সুবিচার নিশ্চিত করা উচিত।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24