শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:০১ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জের গীতিকার মেলায় সিলেট বেতারের আঞ্চলিক পরিচালক এস.এম জাহিদ হোসেন : গীতিকাররাই আমাদের মরমী সংস্কৃতির মূল কারিঘর

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৬ মার্চ, ২০১৬
  • ২৭ Time View

আল-হেলাল,সুনামগঞ্জ থেকে : সিলেট বেতারের আঞ্চলিক পরিচালক এস.এম জাহিদ হোসেন সুনামগঞ্জের গীতিকারদেরকে বেতারের তালিকাভূক্ত হয়ে মরমী সংস্কৃতি চর্চার ক্ষেত্রকে সম্প্রসারনে এগিয়ে আসার উদাত্ত আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন,বৈষ্ণব কবি রাধারমন দত্ত,মরমী কবি হাসন রাজা,বাউল কামাল পাশা,শাহ আব্দুল করিম ও দূর্বীণ শাহ সংস্কৃতির অঙ্গনে তারা প্রত্যেকেই,৫ জনই মরমী সংস্কৃতির দিকপাল। তাদের অবদানের জন্যই এ অঞ্চলের সংস্কৃতি অন্যান্য অঞ্চলের চাইতে বিশ্বে ও সারা দেশে স্বমহিমায় গৌরবোজ্জল স্থান দখল করে আছে। আমি জেলা গীতিকার ফোরাম এর সেক্রেটারী অরুন তালুকদার ও সাংবাদিক আল-হেলালকে ধন্যবাদ জানাই আমাকে ৫ম রতেœর এ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রন জানানোর জন্য,এখানে এসে আমি সত্যিই আনন্দিত ও গর্বিত। আল-হেলাল বাংলাদেশ বেতারের সাথে যুক্ত এবং কালনী বেতার শ্রোতা ক্লাবের সভাপতি,এখানে আসার জন্য তিনি আমাকে গত ২ সপ্তাহ ধরে বারংবার ফোন করে তাগিদ দিয়েছেন। গীতিকাররা আমাদের মরমী সংস্কৃতির মূল কারিঘর ও চালিকাশক্তি। গীতিকারদের কাজটা একটা অনন্য সাধারন কাজ। গান লিখা সহজ কাজ না। গান লিখে কেউ জীবিকা নির্বাহ করতে পারেননা। কিন্তু গীতিকাররা একান্তই মনের তাগিদেই গান লেখেন,এ কাজটা মেধার কাজ। গীতিকার হারিয়ে যায় কিন্তু তাদের রচিত গান যুগ যুগান্তর ঠিকে থাকে। গীতিকার যদি গান না লিখতেন তাহলে কোন শিল্পীই গান গাইতে পারতেন না। একারনে গানের ক্ষেত্রে গীতিকারের অবদান অনেক বেশী। অবশ্য একটা সুন্দর গানের পেছনে সুরকার, শিল্পী ও কলাকূশলী সবারই ভূমিকা থাকে। তিনি বলেন,বেতার এখন শূধু বিনোদনের মাধ্যম নয় মানুষকে সচেতন করাও বেতারের কাজ। সকল ভাল কাজই সকলকে নিয়ে বেতার করে থাকে। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের মাধ্যমে এদেশের গীতিকাররা মহান মুক্তিযুদ্ধে ছাত্র জনতাকে ঝাপিয়ে পড়তে বিশেষভাবে উৎসাহ যুগিয়েছেন। বেতারই সংস্কৃতি লালন ও চর্চায় ভূমিকা রাখছে। ১৯৪৪ সাল থেকে এ প্রাচীন প্রতিষ্ঠানটি সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বেতার কিন্তু একা চলেনা। শিল্পকলা একাডেমী,শিশু একাডেমী,তথ্য অফিস,জেলা ও উপজেলা প্রশাসনসহ সবাইকে নিয়ে চলে। আমাদের সঙ্গে গীতিকার শিল্পীসহ সবাই আছেন। বেতারের তালিকাভূক্তির একটা নিয়ম আছে। কমপক্ষে ২৫টি গান লিখে ছবি ও ভোটার আইডিকার্ডসহ আবেদন করবেন। সুনামগঞ্জের প্রায় অর্ধ শতাধিক গীতিকার আমাদের তালিকাভূক্ত রয়েছেন। আরো অনেকের আবেদন আছে তালিকাভূক্তির প্রক্রিয়া চলছে। সরকারী নীতিমালা অনুসরণ করে আমরা পর্যায়ক্রমে সকলকেই তালিকাভূক্তি করবো। শিল্পীদের সমস্যা সমাধানেও আমরা কাজ করবো। শনিবার বিকেলে জেলা শিল্পকলা একাডেমীর হাসনরাজা অডিটরিয়ামে জেলা গীতিকার ফোরাম আয়োজিত ৩দিনব্যাপী গীতিকার মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আঞ্চলিক পরিচালক এস.এম জাহিদ হোসেন একথা বলেন। গীতিকার ফোরামের সভাপতি ডা: আমান উল্লাহর সভাপতিত্বে ও বাউল কামাল পাশা স্মৃতি সংসদ এর প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক সাংবাদিক বাউল আল-হেলালের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন সিলেট বেতারের সহকারী পরিচালক পবিত্র কুমার দাস,জেলা শিল্পকলা একাডেমীর কালচারাল অফিসার আহমেদ মঞ্জুরুল ইসলাম চৌধুরী পাভেল,জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা বাদল চন্দ্র বর্মন, জেলা তথ্য অফিসার আনোয়ার হোসেন,এফআইভিডিবির ট্রেইনার মহসিন হাবিব জেমস, জেলা গীতিকার ফোরামের সাধারন সম্পাদক অরুন তালুকদার ও গীতিকার আহমেদ সামস উদ্দিন কুটি মিয়াসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলা হতে আগত গীতিকারগন। পরে নবীন গীতিকার এস.এম রাসেলের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে শতায়ূ প্রবীণ গীতিকার মক্রম আলী শাহ রচিত গান পরিবেশন করেন তারই সুযোগ্য পুত্র বাউল শাহজাহান। রঙ্গের বাড়ই কথা সম্বলিত হাসনগীতি পরিবেশন করেন গীতিকার জুবায়ের বখত সেবুল। বাউল কামাল পাশা রচিত দ্বীলকি দয়া হয়না গানটি পরিবেশন করেন বাউল আল-হেলাল। বাউল স¤্রাট শাহ আব্দুল করিম রচিত দেশাত্ববোধক গান পরিবেশন করেন শিল্পী রিংকু চৌধুরী। এছাড়াও বাউল তছকীর আলী,বাউল জহির আহমদ সোহেল ও বাউল জিয়াউর রহমানসহ স্থানীয় শিল্পীরা গান পরিবেশন করেন। বিদায় লগ্নে আঞ্চলিক পরিচালক এর হাতে জেলা গীতিকার ফোরামের উদ্যোগে প্রকাশিত গানের বই সুরমা পাড়ের গীত তুলে দেন গীতিকার অরুন তালুকদারসহ সকল আয়োজকবৃন্দ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24