শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:০২ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জের ধোপাজান বালু-পাথর মহালে চাঁদাবাজি

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০১৫
  • ১৯৪ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা:: সুনামগঞ্জের সর্ববৃহৎ কর্মক্ষেত্র ধোপাজান বালু-পাথর মহালে চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি জানিয়েছেন বালু-পাথর ব্যবসার সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা। মঙ্গলবার বিকালে শহরের উকিলপাড়ার রেজা ম্যানশনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ধোপাজান পাথর বালু ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে এ দাবি জানানো হয়। এ সময় চাদাবাজদের বিরুদ্ধে দ্রæত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে ব্যবসার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে প্রশাসনের প্রতি আহবান জানান ব্যবসায়ীরা।
লিখিত বক্তব্যে সমিতির সভাপতি কামরুজ্জামান দারা বলেন, প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী প্রতিবছর পহেলা বৈশাখ থেকে ৩০ চৈত্র পর্যন্ত বার্ষিক ইজারা মূল্যে ধোপাজান বালু-পাথর মহালটি ইজরা প্রদান করে জেলা প্রশাসন। কিন্তু চলতি বাংলা সনে ইজারা বন্দোবস্ত না নিয়েই সাবেক ইজরাদার তফজ্জল হোসেন বেআইনিভাবে মহালটিতে ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের নিকট থেকে জোরপূর্বক চাদা আদায় করে আসছেন। কিন্তু জেলা প্রশাসন পহেলা জ্যৈষ্ট থেকে মহলটিতে উন্মুক্ত করে দিলেও তফজ্জুল হোসেন জোর-জবরদস্তি করে ব্যবসায়ীদেরকে চাঁদা দিতে বাধ্য করছেন।
তিনি আরও বলেন, জেলা প্রশাসনের আদেশ মেনে কোন কোন ব্যবসায়ী অবৈধ ইজারাদারকে চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে তোফজ্জল হোসেনের অস্ত্রধারী লোকজন তাদেরকে প্রায়ই মারপিট করে আহত করছেন। এছাড়াও মিথ্যা মামলা দিয়ে ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের হয়রানি করার অভিযোগ করেন ব্যবসায়ীরা। পুলিশ প্রশাসনের কিছু কিছু অসাধু কর্মকর্তা অবৈধ চাঁদাবাজের বিরুদ্ধে কোনরূপ ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদেরকে হরয়ানি করার অভিযোগ আনা হয়।
তিনি বলেন, হাজার হাজার শ্রমিক ও ব্যবসায়ীদের জীবন-জীবিকার সঙ্গে অতোপ্রোতভাবে জড়িত ধোপাজান মহালে চাদাবাজদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। মহালটি উন্মুক্ত পদ্ধতিতে দরপত্র আহবান করে বৈধ ইজারাদার নিয়োগ করার দাবি জানান ব্যবসায়ীরা। তিনি বলেন, এতেকরে সরকার যেমন মোটা অঙ্কের রাজস্ব পাবে তেমনি হয়রানি থেকে মুক্তি পাবেন কয়েক হাজার শ্রমিক ও ব্যবসায়ী। সংবাদ সম্মেলনে ধোপাজান মহালে চাদাবাজির সঙ্গে জড়িদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণেরও দাবি জানানো হয়।এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, ব্যবসায়ী আমির হোসেন রেজা, আতাহের আলী আতর, রূপক চৌধুরী, শামীম আহমদ, আরিফ মিয়া, শাহ আলম, শাহীন মিয়া, সাজ্জাদুর রহমান পলিন প্রমুখ।
সাবেক ইজারাদার তফজ্জল হোসেনের দাবি, ধোপাজান বালু-পাথর মহালটি বর্তমানে সম্পূর্ণরূপে প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এখানে তিনি অথবা তার কোন লোকজন চাঁদাবাজির কোন ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়।
সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দেবজিৎ সিংহ বলেন, চাঁদাবাজির কোন অভিযোগ আমাদের জানা নেই। তবে মহালটিতে কাউকে অবৈধ কোন সুযোগ-সুবিধা দেয়া হবে না।সুনামগঞ্জ সদর আসনের এমপি পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ বলেন, ধোপাজান বালু-পাথর মহালটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করে দরপত্র আহবানের মাধ্যমে ইজরা প্রদান করে সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধি করা হোক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24