সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু

সুনামগঞ্জের সংস্কৃতিতে শিল্পী আব্দুল আলীম ও বাউল কামাল পাশার সোনালী দিনের কিছু না বলা কথা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭
  • ১৭৩ Time View

অমিত দেব;
উপমহাদেশের ভাটিয়ালী গানের কিংবদন্তী শিল্পী আব্দুল আলিমকে দেখার সৌভাগ্য আমাদের অনেকেরই হয়নি। তবে আমরা তার গানের ও সুরের ভক্ত। ৫শটি গান তার রেকর্ড হলেও তিনি জীবনে গেয়ে গেছেন ৫ হাজারের মতো গান। রেকর্ড হওয়া সকল গানগুলোর গীতিকার তিনি নিজে দাবী করেননি। কিন্তু ঢাকা শহরে যারা তার কাছাকাছি অবস্থান গ্রহন করেছেন বা তার উপযুক্ত পৃষ্টপোষকতায় ছিলেন তাদের মধ্যে অনেকেই আব্দুল আলিম পরিবেশিত কিছু কিছু গানের গীতিকার হিসেবে নিজেদেরকে প্রতিষ্টিত করেছেন। যদিও গীতিকারের চাইতে তাদেরকে সুরকার হিসেবেই দেশবাসী জানেন। আবার অনেক গান সংগ্রহ বা সংগৃহিত হিসেবে এখনও প্রচলিত আছে। সংগ্রহ হিসেবে যেসব গানগুলো প্রচলিত আছে এগুলো আসলে কার গান তা কিন্তু আজোবদি অমীমাংসিত রয়ে গেছে। বাংলা একাডেমী প্রতি বছর জেলায় জেলায় মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে যেসব লোকগীতি সংগ্রাহকদের দায়িত্বে নিয়োজিত করেন তাদের অনেকে এ গানগুলোর ফায়সালা দিতে পারেননি। প্রাইভেট চেম্বারে বসে কাজ করতে গিয়ে তারা একজনের গান অন্যের নামে প্রকাশ করেছেন। গান সংগ্রহের নামে গানের মধ্যে গন্ডগোল বা জগাখিচুড়ি বলতে যা বুঝায় তাই করেছেন। অন্যদিকে আব্দুল আলিম সাহেবের পরে যারা বেতার বা টেলিভিশনের নিয়মিত শিল্পী ছিলেন তারাও ইচ্ছে করলে আব্দুল আলীমের সবগুলো গানের গীতিকারদের নাম তালিকা সংগ্রহ করতে পারতেন। কিন্তু কেউই একাজটি করেননি। এছাড়া তৎকালীন সময়ে বেতার টেলিভিশনে শুধু সঙ্গীত পরিবেশনকারী শিল্পীর নাম প্রকাশ করা হতো। কিন্তু রেকর্ডে অংশ গ্রহনকারী শিল্পী যে গীতিকারের গান পরিবেশন করতেন সেই গীতিকারের নাম পরিচয় কিছুই প্রকাশ করা হতোনা। কারন শিল্পী বেতার টেলিভিশনের তালিকাভূক্ত হলেও গীতিকার যদি তালিকাভূক্ত না হন তাহলে তার সকল সঙ্গীতকর্মই ঢাকা পড়ে যেতো। অনুষ্ঠানের প্রযোজক পরিচালকরা ৩ অন্তরার গানের শেষ বা তৃতীয় অন্তরা কেটে দিতেন। অনেকাংশে গীতিকারের নামের জায়গায় অন্য শব্দ বা বাক্য বসিয়ে চালিয়ে দিতেন। তৎকালীন সময়ে বেতার টেলিভিশনে এরকম উপেক্ষিত গীতিকার বাউল শিল্পীরা হচ্ছেন বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের সাধক রশিদ উদ্দিন,উকিল মুন্সী,কবি জালাল উদ্দিন,আলী হোসেন সরকার, ঢাকার খালেক দেওয়ান,মালেক দেওয়ান,রাজ্জাক দেওয়ান,বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের সৈয়দ শাহ নূর,ফকির আছদ আলী,আব্দুর রাজ্জাক কালা শাহ,শীতালং শাহ,রাধারমন দত্ত,মরমী কবি আজিম উদ্দিন,বাউল কামাল পাশা ও দূর্বীন শাহসহ নাম না জানা আরোও অনেকে।
প্রয়াত এসব সঙ্গীত সাধকরা জীবদ্ধশায় বেতার টেলিভিশনে উপেক্ষিত হলেও তাদের নাম যশ খ্যাতি ছিল সারা দেশ জুড়ে। কারণ এদের মধ্যে অনেকেই গীতিকার ছাড়াও সুরকার ছিলেন। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ভ্রাম্যমান শিল্পী হিসেবে তারা গান গেয়ে বেড়াতেন। কলের গানের পরে টেপ রেকর্ডারে তাদের গান দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে পড়তো। এদের মধ্যে আমাদের লোকচক্ষুর অন্তরালে থাকা এরকম একজন নামকরা গীতিকার ও সুরকারের নাম বাউল কামাল পাশা (কামাল উদ্দিন)। ১৯৪৭ সালে কলকাতা গ্রামোফোন কোম্পানী তার গান রেকর্ড করে। তৎকালীন সময়ে নিজ দেশের বিভিন্ন মহকুমা ছাড়াও কলকাতা ও করাচিতে বিভিন্ন আসরে পালা গান ও কাউয়ালী গান গেয়ে বেড়িয়েছেন তিনি। বাউল কামাল পাশা (কামাল উদ্দিন) ১৯০১ ইং সনের ৬ ডিসেম্বর তদানীন্তন সুনামগঞ্জ মহকুমার দিরাই থানার ভাটিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। ১৯৪৯,১৯৬৪ ও ১৯৭৩ সালে সুনামগঞ্জ মহকুমা সদরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অতিথি শিল্পী হিসেবে আগত সুরস¤্রাট শিল্পী আব্দুল আলিম যার গান পরিবেশন করেন। হাওরের জনপদ সুনামগঞ্জের আকাশে বাতাসে এবং হাওড়ের জলরাশিতে যার কন্ঠ আজো লাখো লাখো হুদয়ে সৃষ্টি করে চলছে অপূর্ব এক শিহরনের। সুনামগঞ্জের সংস্কৃতিতে শিল্পী আব্দুল আলীম ও বাউল কামাল পাশার সোনালী দিনের কিছু না বলা কথা উপস্থাপনের জন্যই আমার এ লেখা। আলীম সাহেবের পরিবারের অনেকে এসব কথা জানেননা বলেই আমি জানতে পেরেছি। অন্যদিকে বাউল কামাল পাশার কোন ছেলে মেয়েতো দূরের কথা সুযোগ্য কোন উত্তরাধিকারী না থাকায় কারো দ্বারাই সোনালী দিনের ঐতিহ্যবাহী স্মৃতি কাহিনী গাথা বা কথাগুলো সংরক্ষন করা হয়নি। তবে বিলুপ্ত হওয়া পালা গানের (মালজুড়া গান) ইতিহাসে বৃহত্তর সিলেট তথা দেশের প্রবীণ সংস্কৃতিসেবীরা দুজন চির প্রতিদ্বন্দ্বি লোকশিল্পীর নাম আজো শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। এদের একজন ময়মনসিংহের কবি জালাল উদ্দিন খা অন্যজন সুনামগঞ্জের কবি কামাল উদ্দিন (কামাল পাশা)।
কিশোরগঞ্জের কবি রওশন ইজদানী জালালগীতি গানের বইটির মুখবন্ধ লিখতে গিয়ে উল্লেখ করেছেন বিখ্যাত শিল্পী আব্বাস উদ্দিন শুধু জালাল কবির গান যে গাইতেন তা নয় তিনি জালাল কবিকে পীরের মতো শ্রদ্ধা করতেন। আর সুনামগঞ্জের গীতিকার সুরকার নাট্যকার দেওয়ান মহসিন রাজা তার একটি লেখায় উল্লেখ করেছেন ভাটিয়ালী গানের কিংবদন্তী শিল্পী আব্দুল আলীম সাহেবকে আমি নিজে কবি কামাল উদ্দিনের গান গাইতে দেখেছি। তিনি নিজেকে প্রকাশ্য মঞ্চে কামাল কবির শিষ্য বলে প্রকাশ করেছেন। বলেছেন কলকাতা গ্রামোফোন কোম্পানীতে প্রথম তাদের পরিচয় হয়। দেওয়ান মহসিন রাজা জানান,এই যে দুনিয়া কিসেরও লাগিয়া এত যতেœ গড়াইয়াছেন সাই এর পাশাপাশি “হে শ্রষ্টা মহান আমি যে অজ্ঞান,পারিলামনা তোমায় ডাকিতে”, নাইয়ারে নায়ের বাদাম তুইলা এর পাশাপাশি “বন্ধুরে সয়না প্রেমও জ্বালা,আমি রাই অবোলারে বন্ধু আমি রাই অবোলা” “কন্যালো রুপ দেখিয়া তোমার,স্বাদ মিঠেনা আমার,না জানি কার ঘরে থাকো,দুলালী হও কাহার” “সখীগো বন্ধে পিরীতি শিখাইয়া রইয়াছে ভূলিয়া” হলুদিয়া পাখী গানটির পাশাপাশি “কাজল বরণ পাখিরে তোর রূপার বান্দা পাও,বিজলি তোর মুখের হাসি চমকে উঠে গাঁও” মনে বড় আশা ছিল যাবো মদীনায় পাশাপাশি “তিমির রাত্রি কেগো যাত্রি মদিনার পথে (যদি) হয় করুনা নিয়ে যাওনা আমারে সাথে” ইত্যাদি কামালগীতি একই সুরে সুনামগঞ্জের জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত সপ্তাহব্যাপি সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক উৎসবে পরিবেশন করেছেন শিল্পী আব্দুল আলীম। ঐ সময়ে সুনামগঞ্জে শিল্পী আব্দুল আলীমের এটি ছিল দ্বিতীয় সাংস্কৃতিক সফর।

উল্লেখ্য সুনামগঞ্জ মহকুমা আর্টস কাউন্সিলের তৎকালীন সেক্রেটারী সাংবাদিক আব্দুল হাই হাছন পছন্দ সাহেবের সুদক্ষ নেতৃত্ব ও সার্বিক ব্যবস্থাপনাতেই ১৯৬৪ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারী সুনামগঞ্জে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ সাংস্কৃতিক উৎসবের আয়োজন করা হয়। বিভিন্ন দলমতের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে বৃহত্তর পরিসরে সাংস্কৃতিক সমাবেশের আয়োজন এর একক কৃতিত্বের দাবীদার আব্দুল হাই হাছন পছন্দ। সেদিন ছিল ১৯৬৩ইং সনের ১৪ ডিসেম্বর। ঐদিন সুনামগঞ্জ পাবলিক লাইব্রেরীতে সপ্তাহব্যাপী সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব আয়োজনের লক্ষ্যে মহকুমা আর্টস কাউন্সিল,পাবলিক লাইব্রেরী,পাক্ষিক সুরমা,সুনামগঞ্জ ক্লাব ও মহকুমা স্পোর্টস এসোসিয়েশনের কার্যকরী সমিতি সমুহের এক যৌথসভা অনুষ্টিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সুনামগঞ্জ মহকুমা হাকিম এমএ মোত্তালিব। সভা পরিচালনা করেন আর্টস কাউন্সিল সেক্রেটারী পাক্ষিক সুরমা পত্রিকার সম্পাদক জনাব আব্দুল হাই হাছন পছন্দ। প্রস্তুতি সভার কার্যবিবরনীটি হুবহু উপস্থাপন করা হল। “সভায় নিম্নলিখিত সদস্যগন উপস্থিত ছিলেন। (১) মিঃ এম এল বড়–য়া (২) মিঃ দেওয়ান উবেদুর রাজা চৌধুরী (৩) মিঃ এমএ সামাদ (৪) মিঃ আব্দুর রশিদ চৌধুরী (৫) মিঃ ফয়েজুর রহমান (৬) মিঃ আবুল হোসেন (৭) মিঃ সিদ্দেকুর রহমান (৮) মিঃ মুজিবুর রহমান চৌধূরী (৯) মিঃ আবুল কালাম (১০) মিঃ হারুন চৌধুরী (১১) মিঃ ফারুক চৌধুরী (১২) মিঃ আবু হানিফা আহমদ (১৩) মিঃ ব্রহ্মানন্দ দাস (১৪) মিঃ আফাজ উদ্দিন আহমদ (১৫) মিঃ এস কে মুৎসুদ্দি (১৬) মিঃ হেমচন্দ্র চৌধুরী (১৭) মিঃ আব্দুল জব্বার (১৮) মিঃ আজিজুর রহমান (১৯) মিঃ এম আজিজ (২০) ডাঃ সফিউল ইসলাম (২১) মিঃ ফজলুল করিম খান (২২) মিঃ আব্দুল হাই প্রমুখ।
সভায় নিম্নলিখিত প্রস্তাবাদি সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। (১) আগামী ১৮ই ফেব্রুয়ারী হইতে ২৪ শে ফেব্রুয়ারী মোতাবেক ৫ই ফাল্গুন হইতে ১১ই ফাল্গুন পর্যন্ত সুনামগঞ্জ শহরে “সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব” নামে একটি উৎসব উৎযাপন করার জন্য সর্বসম্মতিক্রমে প্রস্তাব গৃহীত হয়। (২) মিঃ আব্দুল হাই বিএ কর্তৃক উথ্বাপিত উৎসবের খসড়া কর্মসুচি ও ৫ সহস্র টাকার আয় ব্যয় সম্বলিত বাজেট অনুমোদন করা হয়। (৩) ঢাকা প্রদেশের অন্যান্য স্থান হইতে নিম্নলিখিত সাহিত্যিকগনকে উৎসবে যোগদান করার জন্য সবিশেষ আমন্ত্রণ জানানো সম্পর্কে সভায় বিস্তারিত আলোচনা ও সিদ্বান্ত গ্রহন করা হয়। উৎসবে ঢাকা রেডিও কেন্দ্রের কয়েকজন শিল্পীকে যোগদান করার জন্যও বিশেষ অনুরোধ জ্ঞাপনের পক্ষে প্রস্তাব গৃহীত হয়। (১) ডাঃ কাজী দীন মোহাম্মদ (২) অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খাঁ (৩) অধ্যক্ষ দেওয়ান মোঃ আজরফ (৪) অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী (৫) সৈয়দ আব্দুল মন্নান (৬) কবি আহসান হাবিব (৭) অধ্যাপক অশরাফ সিদ্দিকী (৮) অধ্যক্ষ মুহম্মদ আব্দুল হাই (৯) ডাঃ এনামুল হক (১০) অধ্যাপক শাহেদ আলী (১১) কবি গোলাম মোস্তফা (১২) কবি ফররুখ আহমদ (১৩) অধ্যাপক মনসুর উদ্দিন (১৪) ড. আনিসুজ্জামান (১৫) অধ্যাপক শওকত ওসমান (১৬) কবি রওশন ইজদানী (১৭) বেগম সুফিয়া কামাল (১৮) সৈয়দ শাহাদৎ হোসেন (১৯) মোহাম্মদ নুরুল হক (২০) অধ্যাপক আবুল বসর (২১) মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী ৪। সর্বসম্মতিক্রমে নিম্নলিখিত ভদ্র মহোদয়গনকে লইয়া পৃষ্টপোষক সভা গঠন করা হয়। প্রধান পৃষ্টপোষক মিঃ মোঃ আব্দুল মোত্তালিব এমএ.ইপিসিএস মহকুমা হাকিম। পৃষ্টপোষক মিঃ আব্দুল খালেক আহমদ এমএনএ ও কেন্দ্রীয় পার্লামেন্টারী সেক্রেটারী। মিঃ আবু হানিফা আহমদ বিএ টিকেএমপিএ চ্যায়ারম্যান সুনামগঞ্জ টাউন কমিটি। মিঃ হাজী আবুল মহছিন এমপিএ। মিঃ আব্দুল হেকিম চৌধুরী এমপিএ। মিঃ সৈয়দ মহবুবুল হোসেন মহকুমা পুলিশ অফিসার। মিঃ এসকে মুৎসুদ্দি সিনিওর ম্যাজিষ্ট্রেট। ৫। সুনামগঞ্জ কলেজের অধ্যক্ষ ও দেওয়ান উবেদুর রাজা চৌধুরীকে যথাক্রমে সভাপতি ও সেক্রেটারী হিসেবে মনোনিত করিয়া একটি ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট অভ্যর্থনা সমিতি গঠন করার প্রস্তাব গৃহীত হয়। ৬। উৎসবের প্রস্তুতি জনিত সর্বপ্রকার কার্য্য সম্পাদনের নিমিত্ত নিম্নলিখিত সদস্য সমন্বয়ে (১) সাংগঠনিক কমিটি এবং (ক) অর্থ সংগ্রহকারী সাব কমিটি (খ) মন্ডপ নির্মান সাবকমিটি (গ) মঞ্চ ও আলোকসজ্জা সাবকমিটি (ঘ) নিমন্ত্রন ও আসনশয্যা সাবকমিটি (ঙ) মুদ্রণ ও প্রচার সাব কমিটি (চ) শিল্পী সংযোগ সাবকমিটি (ছ) খাদ্য ও বাসস্থান সাবকমিটি (জ) নাট্যানুষ্টান সাবকমিটি (ঝ) সাহিত্যানুষ্টান সাবকমিটি (ঞ) স্বেচ্ছাসেবক সাবকমিটি (ট) কর্মসুচি সাবকমিটি (ঠ) সম্পাদনা ও ফটোগ্রাফ সাবকমিটি (ড) চিকিৎসা সাবকমিটি (ঢ) চা-নাস্তা সাবকমিটি এই নামে কতকগুলি সাবকমিটি গঠন করা হয়।

সপ্তাহব্যাপী এ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব পূর্বঘোষিত সময়সুচি অনুযায়ী যথারীতি সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন হয়েছিল মর্মে দাবী করে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় লেখা প্রতিবেদনে দেওয়ান মহসীন রাজা চৌধুরী উল্লেখ করেন,স্থানীয় শিল্পকলা একাডেমীর অন্যতম উদ্যোক্তা সুনামগঞ্জের সাহিত্য সাংবাদিকতায় কিংবদন্তী পুরুষ আব্দুল হাই সাহেব এর উদ্যোগে ১৯৬৪ ইং সনের ১৮ ফেব্রুয়ারী থেকে ২৪ ফেব্রুয়ারী সপ্তাহ ব্যাপী যে সাহিত্য ও সংস্কৃতি উৎসবের আয়োজন করা হয়েছিল সেই উৎসবে নেত্রকোনা জেলার প্রখ্যাত সাধক কবি রশিদ উদ্দিন,কবি জালাল খা, ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার মনমোহিনী সরকার,আলী হোসেন সরকার,উপমহাদেশের বিখ্যাত ভাটিয়ালী গানের শিল্পী নির্মলেন্দু চৌধুরী,শিল্পী আব্দুল আলীমসহ অগনিত সঙ্গীত সাধক বাউল শিল্পীরা এসেছিলেন। উৎসবটি শেষ পর্যন্ত বাউল তথা মালজুড়া গানের (পালা গান) উৎসবে পরিণত হয়। মনমোহিনী সরকারের কাছে পালা গানে একে একে সব শিল্পীরা পরাজিত হন। এসময় সুনামগঞ্জের ইজ্জত রক্ষা করার মতো কোন বাউল শিল্পী তখনও মঞ্চে এসে পৌছেননি। উপায়ান্তর না দেখে আব্দুল হাই সাহেব ও এসডিও সাহেব সদর উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের গীতিকার বাউল ফকির মক্রম শাহকে নগদ টাকা ও পত্র দ্বারা মহকুমার দিরাই থানার ভাটিপাড়া গ্রামে পাঠান। ৫ম দিনে বাউল কামাল উদ্দিন মঞ্চে উঠেন। পরে অনুষ্ঠানের অপ্রতিদ্বন্দ্বি মনমোহিনী সরকারকে হারিয়ে পালাগানে বিজয়ী হন বাউল কামাল পাশা (কামাল উদ্দিন)। অনুষ্ঠানে রাইশ্যাম ধারা বিষয়ে বাউল কামাল পাশার কন্ঠে পরিবেশিত, নি¤েœাক্ত গানটির সঠিক মীমাংসা দিতে পারেননি উপস্থিত কোন বাউল শিল্পী।
“নবদ্বীপে আইলো একজন নুতন গোমেস্তা/বিষম আকৃতি গঠন বুঝা যায়না মাতকথা।।
সেই গোমেস্তাা করেরে আহার/গরু হাতি মহিষ ঘোড়া খায় হাজারে হাজার।
না পাইলে এসব খাবার,আরো খায় কতোথা।।
একবার যদি খায়/এক খাওনে সেই গোমেস্তা ৬ মাস ঘুমায়।
৬ মাস পরে জেগে আবার,খাবার করে ব্যবস্থা।।
সেই গোমেস্তার ৫টা হইলো পাও/৬ মাথা ১২ নয়ন বুঝে নেও তার বাও।
দেখতে চাইলে শীঘ্র আও,দেখার আছে অনেকতা।।
সেই গোমেস্তার ৩টা হইলো মুখ/ তিনও মুখে আহার করে বেশি লাগলে ভোক।
যার দিকে চায় ফিরাইয়া চোখ,ভয়ে কাপে দেবতা।।
সেই গোমেস্তার নাই শীত গরম/হাড্ডি নাই দেহের মধ্যে শরীর খুব নরম।
লাজ লজ্জা নাই তার শরম,কামাল কয় শুন জনতা ”।।
দেশের সকল সমবেত সঙ্গীত শিল্পীদের সামনে প্রতিদ্বন্দ্বি শিল্পীর কাছে বাউল কামাল পাশার প্রশ্নটি ছিল“আমার গানের মধ্যে ব্যাবহৃত বিশেষ বিশেষ বৈশিষ্টের অধিকারী এই গোমেস্তার নাম কি ? জেলা শিল্পকলা একাডেমীর ৩ বারের নির্বাচিত সেক্রেটারী এডভোকেট দিগ¦ীবিজয় চৌধুরী শর্মা শিবু বলেন, তখনকার সময়ে বাউল কামাল পাশার করা প্রশ্নের তাৎক্ষনিক উত্তর কেউ দিতে পারেননি। আমি তখন থেকে এখন পর্যন্ত এই প্রশ্নটির উত্তর খুজে বেড়াচ্ছি। কিন্তু আজো পাইনি। পরে প্রতিযোগীতার সমাপনী অনুষ্টানে অর্থাৎ ১৯৬৪ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারী মহকুমা প্রশাসন ও আর্টস কাউন্সিল কর্তৃক শ্রেষ্ঠ বাউল শিল্পীর পদক লাভসহ গানের সম্রাট কামাল পাশা উপাধিতে ভূষিত হন বাউল কামাল উদ্দিন। অনুষ্ঠানে ওস্তাদ কামাল পাশা বিরচিত “দ্বীন দুনিয়ার মালিক খোদা এত কষ্ট সয়না তোমার দ্বীলকি দয়া হয়না” “তোর কি রুপ দেখাইয়া,কি যাদু করিয়া/আমারে তোর দেওয়ানা করিলে/পাগল হইয়া বন্ধু পাগল বানাইলে” এবং “পান খাইয়া যাও ও মাঝি ভাই/ঐ ঘাটে ভিড়াইয়া তোমার নাও”শীর্ষক ভাটিয়ালী গান পরিবেশন করে সুনাম অর্জন করেন উপমহাদেশের বিখ্যাত ভাটিয়ালী গানের শিল্পী সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ থানার বেহেলী গ্রামের কৃতিসন্তান নির্মলেন্দু চৌধুরী। অনুরুপভাবে “প্রেমের মরা জলে ডুবেনাগো দরদী”,“পারঘাটাতে আমায় করো পার দীনবন্ধুরে”,“চোরায় করলো ডাকাতি/ঘরে আর থইয়া গেলোনা জিনিস এক রতি”, “নদীর স্রোতে নিঝুম রাতে কে যাও তরী বাইয়া/দয়া করি প্রাণের বন্ধু আমারে যাও কইয়ারে”, ভাটিয়াল পানে কে যাও বাইয়ারে ঘাটে ভিড়াও নাও/আমি অভাগিনী দিন দুঃখীনির খবর লইয়া যাওরে”,“আমি চাইনা দুনিয়ার জমিদারী কঠিন বন্ধুরে/চাইনা দুনিয়ার জমিদারী”সহ বেশ কয়েকটি কামালগীতি পরিবেশন করেন ঢাকা রেডিও কেন্দ্রের অতিথি শিল্পী আব্দুল আলিম।
প্রচার বিমুখ নিভৃতচারী এই বাউল সাধক কামাল পাশা ১৯৮৫ ইং সনের ৬ই মে মোতাবেক ১৩৯২ বাংলার ২০ বৈশাখ শুক্রবার রাত ১২ টায় নিজ বাড়ীতে ইন্তেকাল করেন। কবিয়াল কামালের স্বরচিত শত শত গান ইতিমধ্যে বিভিন্ন বাউল কবিরা নিজেদের নামে প্রকাশ করেছেন। কিন্তু গত ২৫ বছর ধরে গ্রামে গ্রামে ওরস উৎসব অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে গান শুনে ও গেয়ে কামালগীতি সংগ্রহে নিরলসভাবে কাজ করতে গিয়ে বাউল কামাল পাশা স্মৃতি সংসদের প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক সাংবাদিক বাউল আল-হেলাল (০১৭১৬-২৬৩০৪৮) ইতিমধ্যে সংগ্রহ করেছেন প্রায় ১ হাজার গান। বিলুপ্তির বেড়াজালকে ছিন্ন করে ২১/০২/২০০৮ইং ১০১টি বাউল গান নিয়ে সর্বপ্রথম সিলেট থেকে “গানের সম্রাট কামাল উদ্দিন”নামে ১টি গীতিগ্রন্থ তার সম্পাদনাতে প্রকাশিত হয়। পরে ফারুকুর রহমান চৌধুরীর সম্পাদনায় প্রকাশিত হয়“বাউলের কামালের গান”। সর্বশেষ ড. মুজিবুর রহমান চৌধুরীর সম্পাদনায় ঢাকার দিয়ারিশ তালুকদার ফাউন্ডেশন ৩০১টি গান নিয়ে প্রকাশ করে কামাল পাশা গীতিসমগ্র। সুনামগঞ্জের সংস্কৃতিসেবীরা মনে করেন,শিল্পী আব্দুল আলিমের মতো দেশের প্রতিভাবান শিল্পীদের উপযুক্ত পৃষ্টপোষকতা না থাকলে কামালগীতি একদিন হারিয়ে যাবে। অথচ বিশ্বায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বাউল কামালের গানও জনসমাদৃত হতে পারে। নি¤েœ অমর শিল্পী আব্দুল আলীম ও নির্মলেন্দু চৌধুরী পরিবেশিত কয়েকটি গান উপস্থাপনের মধ্যে দিয়ে প্রতিবেদনের ইতি টানলাম।

১ ( স্রষ্টা তত্ত্ব )
হে শ্রষ্টা মহান আমি যে অজ্ঞান
পারিলামনা তোমায় ভূলিতে।।
তোমাকে করতে অন্বেষণ আসিলাম এ ধরায়
কুপথে চালাইলো মোরে বাদী ছয় জনায়।
পড়ে আমি তাদের মন্ত্রনায় (২)
মন চলিলো কুপথে আল্লাহ মন চলিলো কুপথে।।
তুমি আমায় আদেশ করো করিতে যে কাজ
সেই কাজ করিতে আমার লাগে ভীষম লাজ।
মাথায় আমার পড়িলো ভাজ (২)
থাকেনা মন সুপথে,আল্লাহ থাকেনা মন সুপথে।।
কামিনী কাঞ্চনের হাটে মজাইয়া এ মন
তোমারে ভূলিয়া বেলা গেল সর্বক্ষণ।
সঙ্গের সাথী নাই আর একজন (২)
কামাল পাশার শেষ পথে,আল্লাহ কামাল পাশার শেষ পথে।।

২ (স্রষ্টার শানে)
শুকনায় ডুবাইতে পারো সুজনের ভরা
ভাঙ্গ গড়ো সবি করো তুমি হও সৃষ্টির সেরা।।
তুমি হে বন্ধু হও অন্তর্যামী,
সর্বঘটে বিরাজমান সব জান তুমি।
তোর কাছে কি বলবো আমি,সব তোমার ভালাবুড়া।।
তুমি হে বন্ধু অগতির গতি,
ইচ্ছা করলে জ্বালাইতে পারো আধারে বাতি।
চাই রাখিতায় আমার প্রতি,স্নেহ তোমার বুকভরা।।
তুমি হে বন্ধু হও কর্ণদার
পাপী তাপি কতজনকে করিলায় উদ্ধার।
কে বুঝে মহিমা তোমার,আলো করো আন্ধারা।।
তুমি হে বন্ধু হও দয়ার সাগর
তিলেক দয়া করো যারে সে হয়রে অমর।
কামাল পাশা আশার উপর,আছি তোর চরন ধরা।।

৩ (নবীর শানে)
সালাতো সালামগো আমার দরুদও সালামগো আমার
জিন্দা নবী মোস্তফায়।
তোমরা যদি যাওগো মদীনায়।।
মদিনা শরীফের মাঝে বেহেশতেরী বাগান আছেও
সেই বাগানে শুইয়া আছেন (২)
দ্বীনের নবী মোস্তফায়।।
মদিনারী ধুলাবালি,চোখে মাখবো সুরমাবলীও
দ্বীনের নবীর চরনধূলী (২)
মাখবো আমার সারা গায়।।
উইড়্যা যাওরে ময়না পাখি,তোর কাছে নিবেদন রাখিও
করিছনারে তুই চালাকী (২)
কইও সালাম মোস্তফায়।।
নবীর দেখা যে পেয়েছে,দোযখ তার হারাম হয়েছেও
যে দেখেছে সে মজেছে (২)
কয় কবি কামাল পাশায়।।

৪ নং (আজিজী)
তিমির রাত্রি কেগো যাত্রি মদিনার পথে
(যদি) হয় করুনা নিয়ে যাওনা আমারে সাথে।।
আমি মুসাফির রাই, দিন দুঃখিনী অভাগীনি আমার কেহ নাই
আমি এই ভিক্ষা চাই।
দয়া করে নেও আমারে তোমাদের সাথে।।
আমার আশা অন্তরায়, রত্তজার ধূলি নিয়া মাখবো সারা গায়
পরে থাকিবো রওজায়।
সব ব্যায়াম হইবে আরাম রওজার ধূলাতে।।
আমার কোন দুঃখ নাই,পাক রওজার ধূলি মেখে যদি মরে যাই,
মরন আমি না ডরাই।
মনানন্দে পরে থাকবো পাক মাটিতে।।
আমি নবীজীর গোলাম, সঙ্গে না নিলে আমার জানাইও সালাম
আমি কসমও দিলাম।
করে আশা কামাল পাশা বসলাম রাস্তাতে।।

৫ (মূর্শিদী)
হিরামন মানিকের দেশে আমার মুর্শিদ আছে
সাত সমুদ্র পাড়ি দিয়া কেমনে যাই তার কাছে॥
সাত সমুদ্র তের নদী পাড়ি দিতে পারি যদি
বলবো কথা নিরবধি যতদিন পরান বাঁচে॥
মুর্শিদ আমার নায়েরগো মাঝি তার নামে করিয়া পুঁজি
খুলিবো জান্নাতের কুঞ্জি যাব ফেরদাউসে॥
মুর্শিদ চান্দেরগো বাড়ি যেমনও মদিনা পুড়িগো
এ কামাল কয় হুরি নুরি গায় আনন্দে নাচে॥

৬ ( সংসার তত্ত্ব )
চাইনা দুনিয়ার জমিদারী কঠিন বন্ধুরে চাইনা দুনিয়ার জমিদারী ॥
শার্ট পিন্দিলাম কোট পিন্দিলাম করলাম বাবুগিরী
চোখে দিলাম চশমা জুড়া হাতে দিলাম ঘড়ি ॥
পাকাকোটা দালান বাড়ী ঘরে সুন্দর নারী
আজরাইল আসিয়া তোমায় করব গিরিবধারী ॥
বাউল এ কামালে বলে ভাবনা চিন্তা করি
আমার লাগি রাখছইন একটা মাটিরও আলমারি ॥

৭ ( মরমী গান )
সাজিয়ে গুজিয়ে তোরা দে সজনীগো,সাজিয়ে গুজিয়ে তোরা দে।।
বড়ইপাতা গরম জ্বলে শুয়াইয়া মশারীর তলে
আতর গোলাপ চন্দন মেখে দে।।
সাদা কাপড় পড়াইয়া বাশের পাল্কি দে তুলিয়া
চির বিদায় তোমরা আমায় দে।।
শুয়াইয়া কবরে আমায় দোয়া করবে তোমরা সভায়
(আমারে) জনমের তালা লাগাইয়া দে।।
নিব আমি চির বিদায় আর না আসিবো ধরায়
যাবো বলে কামাল পাশায় জনমের তরে।।

৮ ( মনশিক্ষা )
চোরায় করলো ডাকাতি
ঘরে আর থইয়া গেলনা জিনিস এক রতি।।
ছলে বলে কইয়া কথা জায়গা চাইলো আগে
খাইবার দিলাম বইবার দিলাম তারে শুইবার জাগা লাগেরে।।
হাতের দিল হাতবালা সই কর্ণের নিল ফুল
সেই চোরারে জায়গা দিয়া আগে করছি ভূলওরে।।
দেখ চোরের বাড়ি চোরের-ই ঘর চোরে চোরে বাও
দোষী গুনী বলতে কামালের মুখে নাই আর রাও ওরে।।

৯ (মনশিক্ষা )
কাজল বরণ পাখিরে তোর রূপার বান্দা পাও
বিজলি তোর মুখের হাসি চমকে উঠে গাও।
কোকিল সুরে করিয়া রাও মন ভুলাইয়া নিলরে
পিঞ্জরা ছাড়িয়া পাখি গেল ॥
মাটির পিঞ্জিরায় সোনার পাখি কটরার মাঝার,
দুগ্ধ কলা মাখন ছানা রাখিলাম খাইবার।
তবু মন পাইলাম না তাহার নিদারুন হইলোরে ॥
শিকল কেটে যাবে পাখি আগেতো জানিনা
জানতাম যদি পুষতাম কেন দিয়া ষোল¬ আনা।
হারাইলে ধন পাওয়া যায়না এই কি ভাগ্যে ছিলরে ॥
ভুল করেছে কামাল মিয়া সার হইল কান্দন
হিয়ার মাংস কেটে দিলে পর হয়না আপন।
বৃথা গেল আমার জনম তোর জনম বিফলরে ॥

১০ ( মনশিক্ষা )
বন্ধুরে সয়না প্রেমও জ্বালা,আমি রাই অবোলারে বন্ধু আমি রাই অবোলা
তোমার সনে প্রেম করিয়া সোনার অঙ্গ পুড়ে কালা।।
বন্ধুরে… সাধ করে পড়িলাম গলে,সাম কলঙ্কের মালা ও বন্ধুরে
থাকি আমি আসার আশে,যৌবনেরী আষাঢ় মাসে,বসিয়া নিরালা।।
বন্ধুরে আর সহেনা কোমল প্রানে,তোর বিরহ জ্বালা ও বন্ধুরে
শুইলে বিছানার পরে তোর কথা মোর মনে পড়ে,বহে নদী নালা।।
বন্ধুরে আসার আশে আর কতদিন,চেয়ে থাকে কামাল উদ্দিন,অন্ত হইলো যৌবনেরী বেলা
যৌবন জোয়ার ভাটায় গেলে,আর কখন আসেনা চলে,আইলেনা সঙ্গীলা।।

১১ ( পারঘাটা )
পারঘাটাতে আমায় কর পার,দীনবন্ধুরে
আমি কেমনে তড়িয়া যাবো জানিনা সাতার।।
দীনবন্ধুরে তুমিতো দয়ারও সিন্ধু,দয়া করো একও বিন্দু
তুমি বিনে কে করিবে পাড়।
তুমিতো দয়ারী সাগর,দয়া করো আমার উপর
তুমি আমার পাড়ের কর্ণদার।।
দীনবন্ধুরে বেলা গেল সন্ধ্যা হলো,সাথী যারা পার হইলো
দয়া করে লাগাওরে কিনার।
দাড়িমাল্লা যারা ছিলো সকলি পলাইয়া গেলো
একা বসে কাঁদি অনিবার।।
দীনবন্ধুরে,তুমিতো ভক্তের অধীন,বলে তোমার কামাল উদ্দিন
হইও জামিন বিপদে আমার।
তোমার দয়া হইলে পরে,তরে যাবো পরপারে
আশা মনে পাইবো কিনার।।

১২ (পারঘাটা)
অকূল সাগরে ধরলাম পাড়িরে,ও মন মাঝিরে
অকূল সাগরে ধরলাম পাড়ি।।
নাই কূল কিনারা দিশেহারা,আরো জীর্ণ তরী ও মন মাঝিরে।।
আরিকোনায় সাজ করেছে,তুফান আসবে ভারী
তর নামে কলঙ্ক রবে,যদি ডুবে মরি ও মন মাঝিরে।।
ঝড়তুফানে কতজনে গাইয়া নামের সারী
নাম সম্বলে কতজনে,গেছে ডঙ্কা মারী ও মন মাঝিরে।।
কামাল উদ্দিন জেনে তোমার নেওনা উদ্ধার করি
বিপদে পড়িয়া ডাকি ওহে পাকভারী ও মন মাঝিরে।।

১৩ ( আঞ্চলিক )
কার ঘরের মহিলা তুমিগো কান্দ ঘাটে বইয়া
আমায় কেনো ডাকছ তুমি পর দেশের নাইয়াগো ॥
কারোবা কোন বোকার কাছে দিছে তোমায় বিয়া
একেলা পাঠাইছে জলে কলসি কাঙ্কে দিয়াগো ॥
সাগর তীরে বসে আছো বন্ধুয়ার আশায়
চুলের বেনী দিয়েছো খোলে বাতাসে উড়ায়গো।।
যাও যদিগো ও সুন্দরী উঠ আমার নায়
তোমায় লইয়া ভাসবো আমি প্রেম যমুনায়গো।।
আমি যে ভিনদেশী পুরুষ তুমি ভিন্ন নারী
বাউল কামালে কয় তোমায় লইয়া হইতাম দেশান্তরীগো।।

১৪ ( ভাটিয়ালী )
কন্যালো রুপ দেখিয়া তোমার,স্বাদ মিঠেনা আমার
না জানি কার ঘরে থাকো,দুলালী হও কাহার।।
কন্যালো…ভাবে বুঝি বড় জ্বালা,আছে তোর অন্তরেগো কন্যা
ঘরে যাইতে মন মানেনা,করিতেছ কি ভাবনা,
জলে দিছ বাহার,স্বাদ মিঠেনা আমার।।
কন্যালো…ভাটি পাড়ি ধরলাম উজান,তোমার রুপেরী ধিয়ানেগো কন্যা
বসিয়াছ নদীর পাড়ে,পাগল করো যারে তারে,
ভালো নয় স্বভাব তোমার স্বাদ মিঠেনা আমার।।
কন্যালো…১৪ তালা সোনার ডিঙ্গা বাইছো ধীরে ধীরেগো কন্যা,
এ কামাল কয় ভালবেসে,যাবোনা আর আপন দেশে,নাও ভিড়াইয়া কিনার।।

১৫ ( ভাটিয়ালী গান )
ওরে উজান গাঙ্গে কে বাইয়া যাও তরীরে মাঝি ভাই
ঐ ঘাটে ভিড়াইয়া যাও তরী।।
দুই অক্ষরে নামের বাদাম দিয়াছ উড়াইয়া
নায়ের পাছে বসিয়াছ বৈঠা হাতে লইয়া।
তোমার রঙ্গিন নায়ের বাদাম দেইখ্যা,পরান গেল উড়িরে মাঝি ভাই।।
তিন তক্তার নৌকাখানি দিয়াছ বানাইয়া
লিলুয়া বাতাসে নৌকা চলছে দাইয়া দাইয়া।
অবাক হইয়া থাকি চাইয়া দেখো নিহার করিরে।।
উজান দেশে যাওরে মাঝি ভাই ভাটির দেশ ছাড়িয়া
কত নৌকা আইলো গেল না আসলো ফিরিয়া।
কামাল পাশা রইলাম চাইয়া তোমার আশা করিরে মাঝি ভাই
ঐ ঘাটে লাগাইয়া যাও তরী।।

১৬ নং ( ভাটিয়ালী )
নদীর স্রোতে নিঝুম রাতে কে যাও তরী বাইয়া
দয়া করি প্রানের বন্ধু আমারে যাও কইয়ারে।।
ঐ পথে বহুদিন হয় গেল শ্যাম কালিয়া
আসিব আসিব বলে গিয়াছিল কইয়া
শ্যামল বরণ রুপের কিরণ নয়ন দুটি বাকা
একজনে বলেছে তার পাইয়া ছিলাম দেখারে।।
তুমি কেগো ধীরে ধীরে নৌকা বাইয়া যাও
হাতে ধরি পায়ে ধরি তোমার নায় উঠাও
দেখবো তারে তালাশিয়া পাইলে তাহার খবর
জলে স্থলে আছে কিংবা পাহাড় বন্দর ওরে।।
না পাই যদি অভাগীনির ঐ দয়াল বন্ধুরে
এ কলংক পুড়া মুখ আর দেখাইব না কারে।
মরিব মরিব আমি তাহার ব্যথায়
রাখবোনা অসাড় জীবন কয় কামাল মিয়ায় রে।।
উৎস ঃ দেওয়ান মহসীন রাজা চৌধুরী ও
মুক্তিযোদ্ধা এস,এন,এম মাহমুদুর রসুল।।

১৭ নং ( ভাটিয়ালী )
ভাটিয়াল পানে কে যাও বাইয়ারে ঘাটে ভিড়াও নাও
আমি অভাগিনী দীন দুঃখীনির খবর লইয়া যাওরে।।
মায়ে বাপে দিল বিয়া কঠিন স্বামীর ঠাই
স্বামীর সনে মিল পড়েনা কেমনে দিন কাটাই।
কইও কইও ওরে নাইয়া পাইলে আমার মায়
তোমার কন্যা কান্দিতেছে নাইওরের আশায়রে।।
মায়ে বাপে দিল বিয়া দুর দেশান্তর
আমারও বাপেরে মাঝি জানাইও খবর।
কইও কইও ওরে নাইয়া মোর মাথা খাও
নইলে বাবার জাতি যাবে না পাঠাইলে নাওরে।।
চিনাইয়া দেই বাপের বাড়ি দুর দেশান্তর
সেই না দেশে যাইতে একটা মায়ারই সাগর।
তার সেপারে বহু দুরে সাদা রঙের ঘর
কামাল বলে সেই ঘরেতে জানাইও খবর ওরে।।

১৮ (রাধার বিরহ)
সখীগো বন্ধে পিরীতি শিখাইয়া রইয়াছে ভূলিয়া
চিটি দেয়না পত্র দেয়না কি দোষের লাগিয়া।।
সখীগো,সারা গাছে ডালিম কলি রয়েছে ফুটিয়া
আইলায়নারে প্রানের বন্ধু খাইলায়নারে ফুলের মধু
ডালে যায় শুকাইয়া।।
সখীগো,শুইলে স্বপনে দেখি থাকি তারে লইয়া
সখীরে বুকে বুক মিশাইয়া।
জাগিয়া না তারে দেখি কোথায় জানি দেয় সে লুকি
বালিশ ভিজাই কাঁদিয়া।।
সখীগো,আষাঢ়ের বারিষার জলে চলছে কূল ডুবাইয়া
সখীগো চলছে কূল ডুবাইয়া।
আসলে না তুই আষাঢ় মাসে আসিলে যৌবনের শেষে
কি লাভ হবে পাইয়া।।
সখীগো,কামাল উদ্দিন যার পিরীতে কাঁদি একা বইয়া
সখীরে কাঁদি একা বইয়া।
পাইলে যৌবনের শেষে তোমার মন যোগাবো কিসে
শুন-রে কালিয়া।।

১৯ ( রাধার আরাধনা )
রঙ্গিলা নার মাজিরে রঙ্গে বৈঠা মাররে
ঝিলমিল দরিয়ার পাড়ি নিমিষে যাও বাইয়ারে।
যদি দেখ হাওয়ার জোর সাগর হয় দেওয়ানা রে
চতুর্দিকে চেয়ে দেখ ঢেউয়ের হানাহানিরে।
ঢেউয়ের বুকে চলবে সুখে ঢেউ নিবে দুলাইয়ারে ॥
যদি দেখ কুম্ভির ভাসে নিয়াস জলের বাঁকেরে
মুর্শিদ নামে দিও দোহাই সেই কুম্ভিরের ঝাঁকেরে।
ডংকা মারী দাওহে পাড়ি নামের সারি গাইয়ারে ॥
ঘোর বিপদে নিরাপদে থাকবেরে নাম জপিয়া
ভয় রবেনা কাল কুম্ভিরে থাকবেরে লুকি দিয়া।
কামালে কয় মাইরো বৈঠা যাইবো সেই পাড়েরে ॥

২০ ( প্রেমতত্ত্ব )
প্রেমের মরা জলে ডুবেনা
তুমি সুজন দেইখ্যা কইরো পিরীত মইলে যেন বুঝেনা।।
ও প্রেম করতে দুইদিন ভাঙ্গতে একদিন
এমন প্রেম আর কইরোনা দরদী।।
প্রেম কইরাছে আইয়্যূব নবী যার প্রেমে রহিমা বিবিগো
তারে ১৮ সাল ক্ষীরায় খাইলো তবুও রহিমা ছাড়লোনা দরদী।।
প্রেম কইরাছে ইছুব নবী যার প্রেমে জুলেখা বিবিগো
ওসে প্রেমের দায়ে জেল খাটিলো তবু সে প্রেম ছাড়লোনা দরদী।।
প্রেম কইরাছে মুসা নবী যার প্রেমে দুনিয়ার খুবীগো
হায়রে পাহাড় জ্বলে সুরমা হইলো তবু মুসা জ্বললনা।।
শিল্পী আব্দুল আলিম যেভাবে গেয়েছেন………………

(প্রেমতত্ত্ব )
প্রেমের মরা জলে ডুবেনা
তুমি সুজন দেইখ্যা কইরো পিরীত মরলে যেজন ছাড়েনা দরদী।।
ও প্রেম করতে দুইদিন ভাঙ্গতে একদিন
এমন প্রেম আর কইরোনা দরদী।।
প্রেম করিলেন আইয়্যূব নবী, যার প্রেমে রাহিমা বিবিগো
যার প্রেমে দুনিয়া খুবী, কোরআনেতে বর্ণনা দরদী।।
প্রেম কইরাছেন ইউসুফ নবী, যার প্রেমে জুলেখা বিবিগো
এতো ছিল রুপের ছবি,এমন রুপ কেউর ছিলনা দরদী।।
প্রেম কইরাছেন মুসা নবী, প্রেমিক নয় দুনিয়ার সবীগো
নূরতজল্লে জ্বলে সবী, তবু মুসা জ্বলেনা দরদী।।
প্রেম করিলেন লাইলী মজনু ,দুইজনার-ই একই তনুগো
লাইলীরে দেখিলে মজনু,বলিতেন সাই রাব্বানা দরদী।।
শিরির প্রেমে মরলো ফরহাদ,মিটিলনা মনের-ই স্বাদগো
প্রেমেতে ঘটিলে বিষাদ, এমন হয় লাঞ্চনা দরদী।।
প্রেমিক ছিলেন ওয়াজকুরুনী, প্রেমিকের হন শিরোমনিগো
জগতে রয়েছে ধ্বনী,নবীর প্রেমের দেওয়ানা দরদী।।
কামাল বলে প্রেমিক ছাড়া,বুঝেনা প্রেমেরী দ্বারাগো
ও প্রেম করছে যারা জানে তারা,অপ্রেমিকে জানেনা দরদী ।।
বাউল কামাল পাশার শিষ্য গীতিকার বাউল মজনু পাশা উপরোক্তভাবে গেয়েছেন……….

২১ ( মা ফাতেমার শানে )
এ বিশ্বজগৎ মাগো করিবেন উদ্ধার
খাতুনে জান্নাত মাগো ফাতেমা আমার।।
তুমি নবীর নন্দিনী,এ জগৎ তরাবে বলে কোরআনে শুনি।
ভবসিন্ধু পাড়ের বেলায় তরনী আমার।।
সেদিন হাশরের দিনে,নেকি বদি ওজন হবে তুলে মিজানে।
সেই পাপী উম্মতের জন্যে কান্দিবেন হাজার।।
পাপী কামালের মুখে,দুগ্ধ দিয়াছিলে মাগো তোমারী বুকে
আমি না শুধিতে পারি তোমার দুধের দ্বার।।

২২ ( রাধার বিচ্ছেদ )
মনে যারে চায় বন্ধুরে আমার দিলে যারে চায় (আমি)
তারে কি বাসতাম না ভালো পরেরই কথায় রে।।
আসবে বলে প্রান বন্ধু দিয়া গেল ফাকি
আসার আশে অভাগিনী আর বা কয়দিন থাকি।
আজ আসবে কাল আসবে বলে গিয়েছিল কইয়া
বন্ধে ছাড়িয়া গিয়াছে বোধ হয় জনমের লাগিয়ারে।।
বেশ ভালো বন্ধের পিরীতি কি সুন্দর তার কথা
চিনিয়া মিশাইতে পারে চিনিতে চিরতা।
সরলে গরল মিশাইয়া কি বা শান্তি পায়
এমন ও নিষ্ঠুরের সনে কে জাতি মজায় রে।।
কাঁদাইতে জানেগো বন্ধে কাঁদতে জানেনা
দুঃখ দিতে জানে বন্ধে দুঃখ বুঝেনা।
আমার মত চায়রে জাতি নাবুঝে সম্মান
ঘরে ঘরে মুই অবলার কলংকেরী গানরে।।
যাক জাতি মোর নাইরে জ্ঞাতি আরো যদি যায়
তবু যদি মনের মানুষ ফিরে ঘরে আয়।
আশিকের হৃদয় পিঞ্জুরে করিতো আসন
কামাল বলে মিঠে যাইতো সব জ্বালাতন রে।।
তথ্যসুত্র ঃ গীতিকার জামাল পাশা পিতামৃত ফকির মান উল্ল্যাহ
গ্রাম গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা ছাতক জেলা সুনামগঞ্জ।

২৩ ( মরমী বিচ্ছেদী )
পিরীতি করা পরানে মরাগো যেজন করেছে সেজন জানে।।
ইউনুছ নবী প্রেম করিলেন মাছের ভিতর যাইয়া
ইল্লা আন্তা ইছিম গুনে রইলেন নবী বাচিয়া।
দয়াল তুমি দয়াময় দেখাও দয়ার পরিচয়
নবী ইব্রহীম বাঁচিয়া রয় জলন্ত আগুনে।।
ইউসুফেরে কুয়ায় ফেলে উটায় সদাঘরে
জাহাজে তুলিয়া নিয়া যায় মিশির শহরে।
ইউসুফ ইউসুফ বলিয়া কাঁদিয়া কাঁদিয়া
হঠাৎ একদিন রাস্তায় নিয়া মিলাও দুইজনে।।
কাফেরের ভয়ে নবী ছিলেন গুহার ভিতর
কবুতরে ডিম পাড়ে মাকড়শার জ্বালের উপর।
কাফেরেরা ঘুরে যায় নবীর দেখা নাহি পায়
বাচাইলায় জল্লে জালাল দ্বীনের দেওয়ানে।।
নুহুকে বাচাইলায় আল্লাহ অঘোরও তুফানে
মুসাকে বাচাইলায় মাবুদ কহুতর আগুনে।
কামাল মিয়া গুনাগার ডাকি আল্লাহ বারে বার
বাচাইও পরোয়ার ঘোর নিদানে।।

২৪ (স্রষ্টা তত্ত্ব )
দ্বীন দুনিয়ার মালিক খোদা এত কষ্ট সয়না
তোমার দ্বীলকী দয়া হয়না,তোমার দ্বীলকে দয়া হয়না।।
সব কথায় যার ব্যাথায় ভরা কোন কথা সে বলবে
সব পথে যার কাটায় ঘেরা কোন পথে সে চলবে।
কাটার আঘাত সয় যার বুকে ফুলের আঘাত সয়না।।
বাতি ছাড়া এ রংমহল ঘর রুশনেআলা হয়না
আজকে বাদশাহ কালকে ফকির সমানে দিন যায়না।
সব দিয়া যার সব কেড়ে নাও তাতো প্রাণে সয়না।।
যুগ যুগান্তর যে তোমারে করে এতই পছন্দ
কোন ধর্মে কোন মর্মে তারে বলে মন্দ।
কামাল শুনে হয় আনন্দ,তোমায় কিছু কয়না।।

২৫ (বিরহ তত্ত্ব )
পাগল হইয়া বন্ধু পাগল বানাইলে
দিয়ে মুখের হাসি আগে ভালবাসি
যত দোষের দোষী তুই আমায় বানাইলে।। ১১ লাইন
আগে না জানি,করবে কলঙ্কিনী,
অন্নাথিনী করে তুই যাবে ফেলে।
কথায় না ভূলিতাম,সুখে থাকিতাম
জীবন যৌবন মোর দিতামনা ঢেলে।।
শুনিয়ে বাঁশরী,ছেড়ে ঘরও বাড়ি,
ভিখারী সাজিলাম ছিল কপালে।
কার কাছে যাবো দু:খ কারেবা জানাবো
যত দুঃখের আগুন মোর হৃদয়ে জলে।।
না দেখিলে চান্দমুখ ফেটে যায় আমার বুুক
সুখেতে কত দুঃখ তুই বাড়াইলে।
কামাল উদ্দিন কয় যদি তোমার মনে লয়
দেখিয়া যাইও তুমি মরণও কালে।।
শেষোক্ত গান দুটি নির্মলেন্দু চৌধুরী পরিবেশন করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24