বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:২০ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জে আদালতের হিসাব শাখা থেকে অর্থ আত্মসাৎ : দুই আইনজীবীর সদস্যপদ সাময়িক বাতিল

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৩০ Time View

স্টাফ রিপোর্টার ::
জালিয়াতির মাধ্যমে সুনামগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের হিসাব শাখা থেকে জমি অগ্রক্রয় মামলার ছয় বিচারপ্রার্থীর আদালতে জমা রাখা ১৭ লাখ ৭৭ হাজার ৫৭৫ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় অভিযুক্ত দুই আইনজীবীর সদস্যপদ সাময়িক স্থগিত করেছে জেলা আইনজীবী সমিতি।
বুধবার দুপুর ২টায় অনুষ্ঠিত সমিতির জরুরি সাধারণ সভায় অভিযুক্ত আইনজীবী মাজহারুল ইসলাম ও মো. রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে পেশাগত নৈতিক স্খলনজনিত কারণে এমন সিদ্ধান্ত নেয় সমিতি।
অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব সৈয়দ শায়েখ আহমদ এবং সভা পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হক।
উপদেশ ও দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন অ্যাড. আলহাজ্ব ফজলুল হক আছপিয়া, অ্যাড. আলহাজ্ব আলী আহমদ, অ্যাড. স্বপন কুমার দেব, অ্যাড. সৈয়দ শামসুল ইসলাম, অ্যাড. রবিউল লেইছ রোকেস, অ্যাড. মো. মাসুক আলম, অ্যাড. কাওসার আলী, অ্যাড. মো. বজলুর রশীদ।
জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. আব্দুল হক জানান, ‘অভিযুক্ত দুই আইনজীবীর সদস্যপদ কেন স্থায়ীভাবে বাতিল করা হবে না- এই মর্মেও তাদেরকে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।’
তিনি আরো জানান, ‘অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় জেলা ও দায়রা জজ আদালতের জড়িত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে জেলা ও দায়রা জজকে সমিতির পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।’
প্রসঙ্গত, গত রোববার বিকেলে সুনামগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের জমি অগ্রক্রয় মামলার বিচারপ্রার্থীর আমানত রাখা প্রায় ১৮ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুইজন আইনজীবী ও আদালতের একজন হিসাবরক্ষককে আটক করে পুলিশ। পরের দিন আদালতের অবসরপ্রাপ্ত এক কর্মচারীকে পুলিশ ফেনী থেকে আটক করে। সোমবার আটক চারজনের বিরুদ্ধে আদালতের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে সুনামগঞ্জ সদর থানায় মামলা দায়ের হয় এবং চার আসামিকে জেলাহাজতে পাঠায় আদালত।
উল্লেখ্য, সুনামগঞ্জ জজ আদালতে বিচারাধীন একটি অগ্রক্রয় মামলা নিষ্পত্তির পর আইনজীবী আলী আহমদ মোয়াক্কেলের আমানতকৃত টাকা উত্তোলনের জন্য আদালতে আবেদন করেন। দাপ্তরিক আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হবার পর অর্থ পরিশোধের জন্য আবেদনটি হিসাব শাখায় পাঠানোর পর দেখা যায় অগ্রক্রয়ের মামলাটি বিচারাধীন থাকা অবস্থায় আইনজীবী ও যুবলীগ নেতা মাজহারুল ইসলাম হিসাব শাখায় পেমেন্ট অর্ডার দাখিল করে অগ্রক্রয়ের ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা উত্তোলন করে নিয়ে গেছেন। বিষয়টি জানাজানির পর জালিয়াতির আরো এমন পাঁচটি ঘটনা ধরা পড়ে। ছয়টি ঘটনার পাঁচটিতে মাজহারুল ইসলাম ও একটিতে রেজাউল করিম সংশ্লিষ্ট রয়েছেন। তাদের সহযোগিতা করেছেন জজ আদালতের হিসাবরক্ষক ঘেনু চন্দ্র রায় ও অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী আব্দুস সোবহান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24