সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৫৩ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জে এসআই’র বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়েরের ঘটনায় তোলপাড়:

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১২ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১১৩ Time View

হাবিব সরোয়ার আজাদ, সুনামগঞ্জ থেকে-সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজর থানার এসআই’র বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে আদালতে তারই স্ত্রী একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলার অভিযুক্ত এসআই’র নাম হুমায়ুন কবীর। হুমায়ুন চাঁদপুর জেলার মতলব উপজেলার সরদারকান্দি গ্রামের মৃত তরিব আলীর ছেলে। মামলার বাদিনী সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার গিরিষনগর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা জালাল উদ্দিনের মেয়ে হামিদা বেগম। হামিদা হুমায়ুনের দ্বিতীয় স্ত্রী এবং বর্তমানে হামিদা ও হুমায়ুন দম্পতির এক মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে। সুনামগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালত ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. ইসরাইল হোসেন বুধবার শুনানি শেষে মামলাটি আমলে নিয়ে দোয়ারাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি)কে এফআইআর করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। বাদীনীর পক্ষ্যে আদালতে মামলাটির স্বপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন অ্যাডভোকেট শাহআলম তুলিপ।

এ মামলা নিয়ে বাদীনী ও বিবাদী একে অপরের বিরুদ্ধে পরস্পরবিরোধী বক্তব্য দিয়েছেন। এ নিয়ে গোটা জেলা জুড়ে বইনে নানা আলোচনা ও সমালোচনা।

বাদীনীর মামলার বিবরণ সুত্রে জানা যায়, মুক্তিযোদ্ধার কন্যা হামিদা বেগম বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে কনস্টেবল পদে কর্মরত থাকা অবস্থায় এসআই হুমায়ুনের সঙ্গে ২০০৪ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এসআই হুমায়ুন প্ররোচনার মাধ্যমে কাবিন নামায় নিজেকে অবিবাহিতও উল্লেখ করেন। হামিদা নববধু হিসাবে হুমায়ুনের গ্রামের বাড়ি চাঁদপুরের সরদারকান্দি গ্রামে গিয়ে দেখতে পান হুমায়ুনের প্রথম স্ত্রী সহ দু’টি সন্তান রয়েছে। এ বিষয়টি নিয়ে হামিদা হুমায়নের সঙ্গে কথা বললে তাকে চাপ প্রয়োগ করে কর্মস্থলে পাঠিয়ে দেন। এ সময় লোক- লজ্জার ভয়ে হামিদা আরা কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে কর্মস্থলে চলে যান। পরবর্তীতে ২০০৫ সালে ১৫ ফেব্রুয়ারি মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার বরাবর চাঁপ প্রয়োগের মাধ্যমে আবেদন করিয়ে হামিদাকে চাকরি থেকে অব্যাহতি নিতে বাধ্য করেন এসআই হুমায়ুন।

প্রায় ৭/৮ মাস পূর্বে এসআই হুমায়ুন সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার থানায় বদলি হয়ে আসেন। এরপর হুমায়ুন যৌতুক হিসেবে হামিদার বাবা-মার কাছ থেকে বাড়ি তৈরির জন্য ২২ শতাংশ জায়গা নিজ নামে রেজিস্ট্রি করে নেন। হুমায়ুন ওই জায়গায় বাড়ি তৈরির কাজ শুরু করেন। মাত্র ১৫ দিন পূর্বে হুমায়ুন অসমাপ্ত বাড়ির কাজ সমাপ্ত করার জন্য হামিদাকে তার বাবার বাড়ি থেকে ১০ লাখ টাকা নিয়ে আসার জন্য চাপ প্রয়োগ করতে থাকেন। যৌতুকের টাকা না পাওয়ার পর থেকে হামিদাকে মারধর শুরু করেন হুমায়ুন। গত ৬ এপ্রিল আবারো হামিদাকে মারধর করে হুমায়ুন বাড়ি থেকে বের করে দিলে নিরুপায় হয়ে হামিদা দুই সন্তান সহ বাবার আশ্রয়ে চলে আসেন। এসআই হুমায়ূনের বিরুদ্ধে আরো একাধিক বিয়ে করা ও ইয়াবার ব্যবসার সাথেও জড়িত থাকার কথা জানিয়ে হামিদা অভিযোগ তুলেছেন আদালতে মামলা দায়ের করার পর থেকে হুমায়ুন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন দু’সন্তানকে জোর করে নিয়ে যাবার জন্য প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে হুমকি ধামকি দিয়েছেন।

মামলার অভিযুক্ত বিবাদী ছুটিতে থাকা এসআই হুমায়ুন কবীরের বক্তব্য জনতে শনিবার রাতে তার ব্যাক্তিগত মুঠোফোনে কল করা হলে তিনি মামলার বিষয়টি সম্পুর্ণ মিথ্যা বানোয়াট বললেও সংসারে প্রথম স্ত্রী ও দু’সন্তান থাকার কথা স্বীকার করলেও ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগটি অস্বীকার করেছেন। তিনি আরো বলেন, আমি ২০১২ সাল থেকে ২০১৪ সালের বিভিন্ন সময় আমার শশুর (হামিদার বাবা )কে ৪৪ লাখ ২১ হাজার টাকা দিয়েছি, ঐ টাকা দিয়ে তিনি তিন দাগে জমি কিনেছেন, দালান কোটা তৈরী করেছেন , এখন মুলত আমার টাকা আত্বসাতের জন্যই মেয়েকে ফুসলিয়ে দিয়ে আমার বিরুদ্ধে আদালতে মিথ্যা মামলা দায়ের করিয়েছেন। শুশুর জলিলকে একজন এসআই থাকা অবস্থায় এত টাকা দেয়া ও ৪৪ লাখ ২১ হাজার টাকার উৎস সম্পর্কে জানতে চাইলে হুমায়ুন বলেন, এগুলো আমার ব্যবসার টাকা, আমার নামে আমার বাবা ব্যবসা করেছেন তিনি এখন জিবিত নেই, আমি সরকারকে ঐ টাকার ট্যাক্সও দিয়েছি। সরকারি চাকুরি বিধি লঙ্গন করে ব্যবসা করা সম্পর্কে এরকম প্রশ্নের উওর এড়িয়ে গিয়ে তিনি বলেলেন আমি আদালতে আইনী ভাবেই মামলাটি মোকাবেলা করব।

থানার ইন্সপেক্টর (ওসি) সেলিম নেওয়াজ বলেন, শনিবার রাতে বললেন, শুনেছি আদালতে হুমায়ুনের বিরুদ্ধে কেটি মামলা হয়েছে তবে মামলাটি এখনো থানায় এসে পৌছায়নি, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী ডিআইজি ও পুলিশ সুপার মহোদয়ের সাথে পরামর্শক্রমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। উল্ল্যেখ যে এসআই হুমায়ুন গত ৮ মার্চ থেকে ১২ মার্চ পর্য্যন্ত এক সপ্তাহের ছুটি নিয়েছেন। ১৩ মার্চ থানায় যোগদান করার কথা রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24