রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা বেড়াতে গিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল জগন্নাথপুরের এক যুবকের মাথায় ৪ ইঞ্চি লম্বা শিং এই বৃদ্ধের!

সুনামগঞ্জে কিশোরকে ছিনতাই মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ার অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই, ২০১৭
  • ৩৪ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জয়নগর বাজারে দুই কিশোরকে ডেকে নিয়ে পুলিশে ধরিয়ে দিেেয়ছে ইউনিয়ন পরিষদের সংশ্লিষ্টরা। এক কিশোরের কথিত অপরাধে তার পিতাকেও ওইদিন হাত বেঁধে ইউনিয়ন অফিসে নিয়ে শারিরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
এ ঘটনায় এলাকার সাধারণ মানুষ ক্ষুব্ধ হয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে গিয়ে কারণ জানতে চেয়েছেন। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশ দুই কিশোরের বিরুদ্ধে গত ২২ জুলাই দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেছে।
জানা গেছে, গত ২১ জুলাই সদর উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের পৈন্দা গ্রামের আলী হোসেনের মোটরসাইকেল ভাড়া নেয় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার কুতুবপুর গ্রামের রুবেল মিয়া। রুবেল মিয়া সদর উপজেলার মোহনপুর গ্রামের কামাল হোসেনের ছেলে রুয়েব মিয়া (১৪)কে নিয়ে ভাড়াটে গাড়ির চালকসহ তাঁর
বাড়ির দিকে যায়। এক পর্যায়ে চালকের সঙ্গে ভাড়া নিয়ে দ্বন্দ্ব দেখা দিলে কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে চালক মোটরসাইকেল ফেলে আসে।
এ ঘটনায় মোহনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নূরুল হক ও ইউপি সদস্য রইছ মিয়ার কাছে এ ঘটনার বিচার দাবি করে ভাড়াটে চালক আলী হোসেন ও তার স্বজনরা। অপরদিকে ইউপি সদস্য মো. শামছুন্নুর গত ২২ জুলাই বিকেলে বিষয়টি সামাজিকভাবে নিষ্পত্তির উদ্যোগ নেন।
কিন্তু অভিযোগ উঠেছে সকালেই ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য মো. রইছ মিয়া মোহনপুর গ্রামের হতদরিদ্র কামাল হোসেনের কিশোর পুত্র রুয়েব মিয়াকে ধরে কার্যালয়ে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন করে। এর আগে ঘটনার মূল ব্যক্তি রুবেল মিয়াকে ধরে কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এই সময় রুয়েব মিয়ার নীরিহ পিতাকেও কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে হাত বেধে নির্যাতন করে বাণীপুর গ্রামের কফিল মিয়া নামের এক যুবক ও তার স্বজনরা। পরে ডিবি পুলিশকে খবর দিয়ে দুইজনকে ধরিয়ে দেওয়া হয়। ইউপি কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে কথিত দোষীর পিতাকে নির্যাতনের ঘটনায় মোহনপুর গ্রামের লোকজন ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। এসব ঘটনার পর ২২ জুলাই রাতেই দুই কিশোরকে আসামী করে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেন পৈন্দা গ্রামের আলী হোসেন।
এদিকে নিরপরাধ রুয়েব মিয়াকে আসামী করে মামলা দেওয়া ও তার নীরিহ পিতাকে ইউপি কার্যালয়ে বেঁধে নির্যাতন করার প্রতিবাদে পরদিন মোহনপুর গ্রামের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে শালিসে বসে এ ঘটনার নিন্দা জানান। এক পর্যায়ে গ্রামবাসী এ ঘটনার বিচার দাবি করে মিছিল বের করে বাজারের দিকে আসতে চাইলে মুরুব্বিরা তাদের থামিয়ে গত ২৪ জুলাই ইউপি কার্যালয়ে এসে চেয়ারম্যান নূরুল হকের কাছে এসে নিরপরাধ কিশোরকে ধরিয়ে দেওয়া ও তার পিতাকে নির্যাতনের বিচার চান এবং কফিল আহমদের বিচার দাবি করেন।
রুয়েব মিয়ার পিতা কামাল হোসেন বলেন, আমি এবং আমার সন্তানরা কোন অপরাধে জড়িত নই। আমার ছেলে নিয়মিত লেখা পড়া করলে এবছর ৭ম শ্রেণিতে পড়তো। কিন্তু আরেকজনের দোষে আমার ছেলেকে বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে। আমাকেও হাত বেঁধে ইউনিয়ন কার্যালয়ে নিয়ে নির্যাতন করা হয়েছে। আমার গ্রামবাসী এ ঘটনায় বিচার চাওয়ায় এখন তাদের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।
মোহনপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. নূরুল হকের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, সদর থানার ডিবি পুলিশ আমাদেরকে দুই আসামীকে ধরে দিয়ে গেছে। পরে বাদী মামলা দায়ের করেছেন। আসামীর বয়স বেশি দেখানো হলেও তদন্তে তাদের প্রকৃত বয়স দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24