রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০২:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

সুনামগঞ্জে পল্লী চিকিৎসকের উপর হামলার ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ ২৭ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৭
  • ১৯ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা :
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার রঙ্গারচর ইউনিয়নের শাহপুর গ্রামে পল্লী চিকিৎসক হেলাল মিয়া (৫২) এর উপর হামলা ও তার বাড়ীঘর ভাংচুরসহ লুঠতরাজের দায়ে চেয়ারম্যান আব্দুল হাইসহ ২৭ জনকে আসামী করে থানায় মামলার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানায় ভূক্তভোগী পল্লী চিকিৎসক বাদী হয়ে অভিযোগটি দায়ের করেছেন। দায়েরকৃত অভিযোগে বিরামপুর গ্রামের রইছ আলীর পুত্র আব্দুল হাই ছাড়াও দক্ষিণ নৈগাং গ্রামের রহমান মিয়ার পুত্র মস্তু মিয়া, শাহপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রশীদের পুত্র সাত্তার মিয়া, মৃত সৈয়দ আলীর পুত্র আব্দুল হেলিম,লিয়াকত আলী,আব্দুল মন্নান,আব্দুল হেলিম এর পুত্র লোকমান হোসেন,সোলেমান মিয়া,আব্দুল হান্নান,আবুল হোসেন,লিয়াকত আলীর পুত্র আক্রাম হোসেন,আবুল হোসেন-২,মোবারক হোসেন,আব্দুল মন্নান এর পুত্র আলমগীর,আমজাদ,মৃত আব্দুর রশিদের পুত্র মুছা মিয়া,মুছার পুত্র হাবিবুর রহমান হাবি,আজি রহমান,আনোয়ার হোসেন,মনির হোসেন,মৃত অলিল মিয়ার পুত্র হযরত আলী,আব্দুস ছাত্তারের স্ত্রী রাশেদা বেগম,আব্দুল মন্নানের স্ত্রী আজমিলা বেগম,মুছা মিয়ার স্ত্রী নুরী বেগম,লোকমান হোসেন এর স্ত্রী নুর মোহাম্মদের মা,মৃত রইছ মিয়ার পুত্র দেলোয়ার আলী ও দোয়ারাবাজার থানার মাঠগাও গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদের স্ত্রী চানমালা বিবিকে আসামী করা হয়েছে। মামলার বিবরণে প্রকাশ,একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও আওয়ামীলীগের মাঠপর্যায়ের কর্মী-সমর্থক হওয়ায় বিএনপি দলীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হাই পল্লী চিকিৎসক হেলাল মিয়ার উপর মারাত্মকভাবে ক্ষুব্ধ ও প্রতিশোধ পরায়ন হয়ে তার উপর একের পর এক হামলা ও মামলা দ্বারা তাকে এলাকাছাড়া করার জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন। চেয়ারম্যান আব্দুল হাই এর সহযোগী মস্তু মিয়া স্থানীয় হরিনাকান্দি গ্রামের কৃষক ফয়জুল হত্যা মামলার আসামী হিসেবে দীর্ঘদিন হাজতবাসের পর প্রায় ৮ মাস আগে জামিনে বের হয়ে মস্তু বাহিনী নামে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী গঠনক্রমে এলাকায় মাদক ব্যবসা,চাঁদাবাজী,ডাকাতি-ছিনতাই ও আইন বিরোধী কার্যক্রম সংগঠন করছে।
প্রথম ঘটনার দিন গত ৮ আগস্ট মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টায় সন্ত্রাসী মস্তু সুদের টাকা আদায়ের লক্ষ্যে হেলাল মিয়ার বাড়ীতে গিয়ে তার উপর হামলা করে ও তার স্ত্রী আকলিমা বেগমের কাছ থেকে ১৬ হাজার টাকা ছিনতাই করে নেয়। এ ঘটনার দায়ে হেলাল মিয়া বাদি হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করিলে সদর থানার ওসি (নিরস্ত্র) আতিকুর রহমান সরজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে সন্ত্রাসী মস্তকে আটক ও ঘটনার তদন্ত করলে চেয়ারম্যান আব্দুল হাই আপোষে শেষ করার কথা বলে আসামীকে তদন্ত কর্মকর্তার কাছ থেকে ছাড়াইয়া নেন। পরে চেয়ারম্যান আব্দুল হাই,মেম্বার এরশাদ আলী,সাংবাদিক আল-হেলাল এর উপস্থিতিতে থানায় বসে ঘটনাটি নিস্পত্তি হয় এবং আসামী মস্তু মিয়া পুলিশ প্রশাসনের কাছে মুছলেকা দেয়।
এই ঘটনার কিছুদিন যেতে না যেতেই ২১ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১ টায় বসতঘরের ভেতর অনধিকার প্রবেশ করে মস্তু ও তার সহযোগী আব্দুল হেলিমগং হেলাল মিয়াকে ঘর হতে বাড়ীর পিছনে নিয়ে খুন করার জন্য মারপিঠক্রমে আহত করার পাশাপাশি তার ঘরবাড়ী লুঠতরাজ করে। আসামীদের দ্বারা গুরুতর আহত হেলাল জেলা সদর হাসপাতালে ডাঃ মামুনুর রশীদের তত্বাবধানে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা গ্রহন শেষে লিখিত অভিযোগ দায়ের করলেও কোন ন্যায়বিচার পাননি। হামলাকারী আসামীদের বিরুদ্ধে তার লিখিত অভিযোগটি এফআইআর না হওয়ায় চেয়ারম্যান আব্দুল হাই এর ছত্রছায়ায় তৃতীয় দফায় আসামীরা তাকে খুন ও তার বসতবাড়ী দখলে মরিয়া হয়ে উঠে।
৩য় ঘটনার দিন ১৬ অক্টোবর সোমবার বিকাল ৪ টার সময় আব্দুল হাই এর উস্কানী পেয়ে সকল আসামীরা হাতে দা লাঠি ছুলফি ও লোহার রড নিয়া বেআইনী জনতাবদ্ধে মিলিত হয়ে হেলাল মিয়ার বসতঘরে অনধিকার প্রবেশ করে পরিকল্পিত খুনের লক্ষ্যে প্রথমে তার বসতঘর ভেঙ্গে তছনছ করে দেয়। আব্দুল হাই কর্তৃক “শ্যালারে আস্ত রাখিসনা একেবারে শেষ কইর‌্যা দে”মর্মে নির্দেশ পেয়ে,মস্তু মিয়া প্রাণে হত্যার লক্ষ্যে তার কপালের উপরের দিকে বটিদায়ের কোপ মেরে রক্তাক্ত জখম করে। আসামী লিয়াকত ও তার ছেলে আক্রাম হোসেন,আবুল হোসেন-২ ও মোবারক হোসেন তার মাথার পিছনে রডের বারী মেরে রক্তাক্ত ফোলাফাটা জখম করে। আসামী আব্দুল হেলিম ও তার ছেলে লোকমান হোসেন,সোলেমান মিয়া,আব্দুল হান্নান এবং আবুল হোসেনগং,তার পিঠে উপর্যুপরী কাঠের রুইলের বারী মেরে গুরুতর জখম করে। আসামী মুছা মিয়া ও তার ছেলে হাবিবুর রহমান হাবি,আজি রহমান,আনোয়ার হোসেন এবং মনির হোসেনগং তার ডান উরুতে গোপনাঙ্গের নীচে ক্ষিরিছের ঘাই মেরে গুরুতর জখম করে। আসামী হযরত আলী তার বুকের বাম পাশে ধারালো ছুরির ঘাই দিয়ে জখম করে। আসামী আব্দুল মন্নান ও তার ছেলে আলমগীর,আমজাদ এবং স্ত্রী আজমিলাগং তার বাম পায়ের হাটুর নীচে বারী ও বটিদায়ের কোপ মেরে জখম করে। আসামী দেলোয়ার আলী তার বাম পায়ে রডের বারী ও আসামী সাত্তার মিয়া তার বাম পায়ে বটিদায়ের কোপ মেরে রক্তাক্ত জখম করে। আসামী রাশেদা বেগম,আজমিলা বেগম,নুরী বেগম,নুর মোহাম্মদের মা ও চানমালা বিবিগং হেলাল মিয়ার স্ত্রী আকলিমা বেগমকে বেদম কিলঘুষি ও লাথি মেরে ফোলা তেতলানো জখম করে। আসামীদের প্রত্যেকে তার বসতঘর সংলগ্ন গোয়ালঘর হতে কালো রঙ্গের গর্ভবতী চানকপালি গাভী,তার বসতঘর হতে নগদ সাড়ে ২৬ হাজার টাকা, তার ব্যবহৃত নকিয়া মোবাইল স্যাট,তার ছেলে মোঃ আল আমিনের ব্যবহৃত স্যামসং গ্যালাক্সি মোবাইল যার সীম নং ০১৭১৭-৪৩৪৯৫৪,তার মেয়ে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী খাদিজা বেগমের ব্যবহৃত ৩ ভরি ওজনের রুপার চেইন,আড়াই রতি ওজনের স্বর্ণের নাকফুল,আমার মেয়ে প্রথম শ্রেণির ছাত্রী রুনা আক্তারের ব্যবহৃত ২ রতি ওজনের স্বর্ণের নাকফুল,মূল্যবান কাগজপত্র,ভোটার আইডি কার্ড,জন্ম নিবন্ধন সনদপত্র,দলিলপত্র সমেত ১টি টাং,৪ টি চেয়ার,লেপ তোষক,বিছানাপত্র সমেত ৪ টি চৌকি, ১টা টেবিল,১ টা বেঞ্চ,কাপড় চোপড় সমেত ১ টা সোকেস,২ বস্তা চাল, ১ বস্তা ময়দা,৬ টা কলস, ৪ টা বড় ডেগ, ১৬টা ছোট ডেগ, ৪ টা কম্বল, ৪ টা সৌর বিদ্যুৎ চুলা, ১২ টা মোরগ মুরগী,৮ টা চিনাজাতীয় হাঁস,ঔষধ ভরি সমেত মুসলমানী কাজ অর্থাৎ পল্লী চিকিৎসার যন্ত্রপাতি,৬ বান্ডিল ঢেউটিন,২টা টেবিল ফ্যান এবং তার পুকুরের বিভিন্ন প্রজাতির মাছ প্রকাশ্য দিবালোকে লুঠতরাজ করে নেয়। সন্ত্রাসীরা হেলাল মিয়ার বাড়ীর খড়ের গাদায় এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও তার সন্তানদের বই পুস্তকে অগ্নি সংযোগ করে আগুনে পুড়িয়ে ছাইভস্ম করে দেয়। খবর পেয়ে ইউনিয়ন পরিষদের কোন কোন গ্রাম পুলিশ সদস্য,ইউপি সদস্য এরশাদ মিয়া ও আশপাশ এলাকার লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে আসামীদের তান্ডবলীলা প্রত্যেক্ষ করেন। সন্ত্রাসীদের অন্যায় অপতৎপরতার কারণে হেলাল মিয়ার অসহায় বিধবা মাতা ও তার সন্তানেরা খোলা আকাশের নীচে মানবেতর মুহুর্ত অতিক্রম করছে। ঘটনার পর কোন কোন সাক্ষীগন তাকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করলে হেলাল ও তার স্ত্রী আকলিমা বেগম বর্তমানে জেলা সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ সাইফুল ইসলাম সাহেবের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গুরুতর আহত নিরীহ এই পল্লী চিকিৎসক তার উপর বারংবার হামলা ও তার বাড়ীঘর লুটতরাজের দায়ে চেয়ারম্যান আব্দুল হাইসহ সকল আসামীদের গ্রেফতারের জন্য স্বরাস্ট্রমন্ত্রীর কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24