সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে নির্বিচারে ধরপাকড় চলছে স্মৃতির রত্নায় ঈদ ভাবনা || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরে আগুনে পুড়ল দুইটি ঘর,ক্ষয়ক্ষতি ১০ লাখ জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের

সুনামগঞ্জে প্রথমবারের মত বাণিজ্যিকভাবে গলদা চিংড়ির চাষ হচ্ছে

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ৩৮ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : সুনামগঞ্জের একমাত্র কার্প হ্যাচারিতে বাণিজ্যিকভাবে স্বাদু পানির দ্রুত বর্ধনশীল চিংড়ির বাণিজ্যিক চাষ শুরু হয়েছে। প্রাকৃতিক পরিবেশে গলদা চিংড়ি স্বাদু পানি এবং ঈষৎ লবণাক্ত পানিতে পাওয়া যায়। কিন্তু বর্তমানে সুনামগঞ্জের একমাত্র শান্তিগঞ্জ বাজার সংলগ্ন কার্প হ্যাচারি কমপ্লেক্সে গলদা চিংড়ির বাণিজ্যিক চাষ জুভেনাইল উৎপাদন শুরু হয়েছে।

হ্যচারি কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, সিলেট অঞ্চলে প্রথমবারের মতো স্বাদু পানিতে গলদা চিংড়ির বাণিজ্যিক চাষ একমাত্র শান্তিগঞ্জ কার্প হ্যাচারি কমপ্লেক্সে চালু করা হয়েছে। ইতিমধ্যে অনেক চাষি বাণিজ্যিকভাবে পুকুরে গলদা চিংড়ি চাষ শুরু করেছেন। গলদা চিংড়ি চাষে বিশেষ কোনো পরিচর্যার প্রয়োজন হয় না। অন্যান্য কার্প জাতীয় মাছের সঙ্গেই চিংড়ি সহজে চাষ করা যায়। তবে আলাদা চাষ করলে ভালো ফল পাওয়া যায়। খাদ্যের ক্ষেত্রেও বিশেষ কোনো পার্থক্য নেই। গলদা চিংড়ি পাঁচ-ছয় মাসের মধ্যেই পরিপক্ব হয়ে ওঠে। ছয় মাসের মধ্যে এদের ওজন ১২০ থেকে ১৪০ গ্রাম পর্যন্ত হয়। চিংড়ির বৃদ্ধি ভালো। লাভও প্রচুর। বাণিজ্যিক ভিত্তিতে এই মাছ চাষে চাষি ও সরকার এগিয়ে এলে এ অঞ্চলের চাষিদের ভাগ্য বদলাবে। চলতি বছরে কার্প হ্যাচারিতে রাজস্বের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১১ লক্ষ ৩৯ হাজার টাকা। ইতিমধ্যে ৮ লক্ষ ৭৬ হাজার টাকা লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে। রেণু পোনার লক্ষ্যমাত্রা ৯৫ ভাগ অর্জিত হয়েছে। কার্প হ্যাচারিতে কাতলা, রুই, মৃগেল, সিলভার, থাই শরপুঁটি, গনিয়া, কালিবাউস, গ্রাস কাপ ও দেশি শিংসহ বিভিন্ন ধরনের রেণু পোনা উৎপাদন অব্যাহত থাকলে চলতি বছরের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়ে আরো উদ্বৃত্ত থাকবে বলে জানান কার্প হ্যাচারি কর্মকর্তা।

কার্প হ্যাচারি অফিসার অশোক কুমার দাস জানান, স্বাদু পানিতে গলদা চিংড়ির চাষ সম্ভব। কারণ, গলদা চিংড়ি স্বাদু পানিতেই বেড়ে ওঠে। এ অঞ্চলের মাটি ও পানি গলদা চিংড়ি চাষে বেশ উপযোগী। গলদা চিংড়ি চাষিদের স্থায়ী করতে কিছুটা সময় লাগবে। মৎস্যচাষিদের সহযোগিতা দেয়ার জন্য আমাদের যথেষ্ট প্রস্তুতিও আছে। তিনি জানান, চিংড়ি চাষে চাষিদের উৎসাহী করতে পারলেই চিংড়ি চাষের উৎকৃষ্ট ক্ষেত্র হয়ে উঠবে এ এলাকা। খুলে যাবে এ অঞ্চলের মৎস্যচাষিদের ভাগ্য। জেলার অর্থনীতিতে যোগ হবে নতুন মাত্রা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24