রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

সুনামগঞ্জে বন্যার পানি বাড়ছে-পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৫ আগস্ট, ২০১৭
  • ২২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: সোমবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সুনামগঞ্জের কোথাও বৃষ্টিপাত না হলেও সকাল ৯ টা থেকে সুরমা নদীর সুনামগঞ্জ পয়েন্টে পানির উচ্চতা বাড়তে থাকায় এবং শহরের বিভিন্ন পয়েন্ট ও আবাসিক এলাকায় পানি ওঠা শুরু হওয়ায় শহরজুড়ে বন্যা আতঙ্ক দেখা দেয়। সকালে সুরমা নদীর ষোলঘর পয়েন্টে পানির উচ্চতা ছিল বিপদ সীমার ৮৬ সেন্টিমিটার উপরে ও বিকাল ৩ টায় ৯৪ সেন্টিমিটারের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়ায় জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলেই উৎকন্ঠার মধ্যে পড়েন। বিকাল ৬ টায় নদীর পানি ৬ সেন্টিমিটার নেমে আসায় কিছুটা স্বস্তি আসে সকলের মাঝে। এদিকে সুনামগঞ্জ সদর ও দোয়ারাবাজার উপজেলায় বন্যার পানিতে ডুবে দুপুরে দুই শিশুর মৃত্যু ঘটেছে।
দুপুর ১২ টায় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্, সুনামগঞ্জ- মৌলভীবাজারের সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড, শামছুন নাহার বেগম শাহানা, জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম, পুলিশ সুপার বরকতুল্লাহ্ খানসহ জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে তাৎক্ষণিক বৈঠকে বসেন।
বৈঠক শেষে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেন, ‘জেলার সকল উপজেলায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি সক্রিয়ভাবে কাজ করছে। জেলা প্রশাসক সাবিরুল ইসলাম ইতিমধ্যে প্রত্যেক উপজেলায় ১৩ মে.টন চাল, শুকনো খাবার পাঠিয়েছেন। ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে আরো ১০০ মে.টন চাল পাঠানো হচ্ছে। জেলার সকল ইউনিয়নেই বন্যার্তদের জন্য আশ্রয় কেন্দ্র খোলার প্রস্তুতি রেখেছে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন।’
সুনামগঞ্জ পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বখর সিদ্দিক ভুইয়া জানান, বৃষ্টি না হলে পাহাড়ী ঢলের কারণে সুনামগঞ্জে সুরমা নদীর পানি সকাল ৯ টা থেকে বেড়েছে। অন্যদিকে ভাটিতে নেত্রকোনার খালিয়াজুরি’র বৌলাই নদীতে সোমবার সকাল থেকে ৬ সেন্টিমিটার বেড়ে যাওয়ায় ভাটিতে পানি নামতে পারেনি। এই অবস্থায় দিনভর আমরা উৎকন্ঠায় ছিলাম। তবে সন্ধ্যার পর সুরমা নদীর সুনামগঞ্জ পয়েন্টে পানি বিপদ সীমার ৯৪ সেন্টিমিটার থেকে নেমে ৮৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছিল।
দুপরে দোয়ারাবাজার উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের আজবপুর গ্রামের আব্দুল জব্বারের শিশু পুত্র মৃদুল মিয়া’র (৪) মৃত্যু হয়েছে। পরিবারের সকলের অজান্তে ঘরের পাশের বন্যার পানিতে ডুবে মারা যায় শিশুটি।
পরিবার ও স্থানীয় লোকজন মিলে অনেক খোজাখুঁজির পর শিশুটিকে কোনা জাল দিয়ে উদ্ধার করে দোয়ারাবাজার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন।
ওদিকে, সন্ধ্যায় বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের কলাইয়ায় খেলারচ্ছলে বাড়ীর পাশের বন্যার পানিতে ডুবে সাহার মিয়া (৪) নামের এক শিশু’র মৃত্যু ঘটেছে। শিশু সাহার ডুংরিয়া গ্রামের রকিব উদ্দিনের ছেলে। সে মামার বাড়ীতে বেড়াতে এসেছিল।
দোয়ারাবাজার
নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় দোয়ারাবাজার উপজেলার সহ¯্রাধিক পরিবার পানিবন্দী রয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের ত্রাণ সহায়তা অপ্রতুল বলে দাবি করেছের বন্যার্তরা। সদ্য রোপণ করা আমন ফসল পানির নিচে চলে যাওয়ায় কৃষক কূল দিশেহারা।
পাহাড়ী ঢল আর অতি বৃষ্টির কারণে সুরমা নদীর পানি এখন বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে প্রতিদিনই উপজেলার নতুন নতুন এলাকার নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে সুরমা নদীর ভাঙ্গনের ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে ছাতক-দোয়ারার যোগাযোগের একমাত্র রাস্তাটি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া জানান, উপজেলার ক্ষতিগ্রস্ত ও পানিবন্দি পরিবারের মাঝে চাল ও নগদ সহায়াতা প্রদান করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসন থেকে চাল ও নগদ টাকা বরাদ্দ পেয়েছি। জেলা প্রশাসক বরবার আরো ত্রাণ সহায়তা চেয়ে চাহিদাপত্র প্রেরণ করা হয়েছে।
ছাতক
ছাতকে বন্যা পরিস্থিতি ক্রমেই ভয়াবহ অবস্থার দিকে ধাবিত হচ্ছে। প্লাবিত হয়েছে উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকা। শহরের মাছবাজার, পুরাতন কাস্টম, সোহরাব নগর হাসপাতাল রোড, চরেরবন্দ, জালালিয়া আলিম মাদ্রাসা, কানাখালীসহ অলি-গলিতে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। ছাতক-গোবিন্দগঞ্জ সড়কের ফায়ারসার্ভিস সংলগ্ন সড়কের উপর দিয়ে প্রবল বেগে বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। বর্তমানে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৬৫ সেন্টিমিটার, চেলা নদীর পানি বিপদসীমার ৮০ সেন্টিমিটার ও পিয়াইন নদীর পানি বিপদসীমার ৯০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। শতকরা ৮০ভাগ রোপা-আমন জমি ও বীজতলা ইতিমধ্যেই বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। নতুন করে আমন জমি ও বীজতলা পানিতে নিমজ্জিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সোমবার সকালে স্থানীয় এমপি মুহিবুর রহমান মানিক ইসলামপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন করে বন্যার্তদের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করেছেন।
কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, বন্যার পানিতে এখন পর্যন্ত রোপা আমন ৬০০ হেক্টর ও ৩১০ হেক্টর বীজতলা তলিয়ে গেছে। উপজেলার বঙ্গবন্ধু সড়ক, মুক্তিরগাঁও সড়কসহ অন্তত অর্ধশতাধিক কাঁচা-পাকা সড়ক বন্যার পানিতে তলিয়ে গিয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। পানিবৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24