রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০২:০৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা ছাত্র সাব্বিরের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি সাংবাদিকতার উজ্জ্বল পরিম-লে কামকামুর রাজ্জাক রুনু এক স্বপ্নচারী পুরুষ শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে আ.লীগের আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে শ্রমিকলীগের কমিটি বিলুপ্ত জগন্নাথপুরের তিন রাজনীতিবীদ জেলা আ,লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মনোনীত হলেন জগন্নাথপুরে দুইপক্ষের বিরোধে বলি হলো মাদ্রাসার ছাত্র সাব্বির জগন্নাথপুরে ছিনতাইকৃত গ্রামীণফোনের রিচার্জ কার্ড-অর্থসহ ডাকাত গ্রেফতার জগন্নাথপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে শিশু নিহত জগন্নাথপুরে অটোচালককে হত‌্যা করে লাশ ডোবায় ফেলে দিল দুবৃর্ত্তরা

সুনামগঞ্জে সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবারের সদস্যদের মুঠোফোনে হয়রানী এবং হত্যার হুমকি দাতা দু’যুবককে তদবীরের মুখে আটকের পর পুলিশ ছেড়ে দিয়েছে

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৮ আগস্ট, ২০১৬
  • ২০ Time View

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি-
দেশের বিভিন্ন স্থানে মন্দির-গীর্জায় পুরোহিতদের ওপর যখন হামলা ও হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটছে ঠিক এমননি সময়ে সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে সংখ্যালঘু এক হিন্দু পরিবারের সদস্যদের মুঠোফোনে হয়রানী এবং হত্যার হুমকি দাতা দু’যুবককে প্রভাবশালী মহলের তদবীরে আটকের পর পুলিশ ছেড়ে দিয়েছে। আটক দু’যুবকের একজন পুলিশ ফাঁড়িতেই তদন্ত কর্মকর্তার সাথে বেপরোয়া আচরন করার পরও তাকে গ্রেফতার না করে ছেড়ে দেয়ার ঘটনাটি নানা রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে।

ঘয়রানী ও হত্যার হুমকির শিকার উপজেলার বাদাঘাটের মৃত হরেন্দ্র তালুকদারের ছেলে শ্রী স্বপন তালুকদার জানান, চলতি বছরের ৭ জুলাই সন্ধায় ০১৭৫৬-৩৬৪১৮৪ নং থেকে তার পারিবারীক একটি মোবাইল ফোনে কয়েকদফা কল করে হয়রানীমুলক কথাবার্তা এমনকি তার ১০ শ্রেণীতে স্কুলে পড়–য়া ছেলে অমিত তালুকদারকে হত্যার হুমকি প্রদান করে। এতে ভীত হয়ে অমিতের স্কুলে আসা যাওয়া বন্ধ করে দেয়ার পর তাকে নিরাপদে রাখতে এক আত্বীয়ের বাড়িতে পাঠিয়ে দেযা হয়। এরপরও হুমকি আসা বন্ধ হয়নি। এক পর্যায়ে জীবনের নিরাপক্তা চেয়ে স্বপন তালুকদার গত ১৩ জুলাই থানায় একটি সাধারন ডায়রী করেন। যার নং ৪৪৮।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সুত্রে জানা যায়, সাধারন ডায়রী করার পর তদন্তকারী কর্মকর্তা তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় মোবাইল ফোনের কল লিষ্টের সুত্র ধরে রবিবার রাতে প্রথমে উপজেলার শিমুলতলা গ্রামের খেজুর মিয়ার ছেলে নাজুমুল (২২)কে গ্রেফতার করেন। নাজমুলের দেয়া তথ্যের সুত্র ধরে তারই প্রতিবেশী ব্যবসায়ী জহিরুল ইসলামের ছেলে বদরুল মনির (২২) কে আটক করতে বাড়িতে গেলে সে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে অভিভাবকের মাধ্যমে তাকে ডেকে এনে আটক করা হয়। মোবাইলের কল লিষ্টে বদরুল মনিরের নং ও রয়েছে। এমনকি একাধিবার হয়রানী ও হত্যার হুমকি দেয়ার ভয়েজ রেকর্ডও রয়েছে। বদরুল পুলিশ ফাঁড়িতে আসার পর কয়েকদফা ঐ তদন্তকারী কর্মকর্তার জিজ্ঞাসাবাদে বেপরোয়া আচরন করে। তদন্তকারী কর্মকর্তা ঘটনার সম্পর্কে তদন্তকাজ অসমাপ্ত রেখেই বদরুল মনিরকে ছাড়িয়ে নিতে আসা তার প্রভাবশালী আত্বীয় স্বজনদের চাঁপে পড়ে ও রহস্যজনক কারনে নাজমুল ও বদরুলকে পুলিশ ফাঁড়ি থেকে রাতেই ছেড়ে দেন।

অভিযোগকারী স্বপন তালুকদার বলেন, আমি আমার পরিবার হয়রানীর শিকার হয়েছি, হত্যার হুমকি পাবার পর আমার ছেলের লেখাপড়া বন্ধ করে তাকে নিরাপদে আত্বীয়ের বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছিলাম। এখন ঘটনার মুল রহস্য উদঘাটনের আগেই বদরুলের আত্বীয় স্বজনারা অভিযোগ তুলে নেয়ার জন্য আমাকে রবিবার রাত থেকে নানা ভাবে চাঁপ সৃষ্টি কওে আসছে, আমি আইনের আশ্রয় নিয়েছি, আমি আইনের মাধ্যমেই এর সুষ্ট বিচার চাই।

তদন্তকারী কর্মকর্তা বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়ির ক্যাম্প ইনচার্জ একেএম জালাল উদ্দিনের নিকট ,আটককৃত হুমকিদাতা যুবকের রাতে ছেড়ে দেয়ার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তাই কোন সদুক্তর দিতে পারেননি এমনকি প্রসঙ্গ বার বার এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টাই করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24