শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০২:৩২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
দেশে দারিদ্র কমলেও বৈষম্য বাড়ছে:পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে শুক্রবার সকাল ৬টা ১২টা ও শনিবার ৮ থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না জগন্নাথপুরে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত প্রমাণ পেলে বহিরাগতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব- জগন্নাথপুরে ডিসি জগন্নাথপুরে কলেজছাত্রীর ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযাগ,বখাটের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার জগন্নাথপুরে দিনভর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরির্দশন শেষে ডিসি-জনগনের দোরগোড়ায় সেবা পৌছে দেয়া হচ্ছে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সন্মেলন ৬ নভেম্বর যুবলীগের চেয়ারম্যানের গণভবনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা! সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৫ তুহিন হত্যা:জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন

সুনামগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময়কালে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু : প্রজাতন্ত্রের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীদেরকেই তথ্যদানে বাধ্য করার জন্য তথ্য অধিকার আইন প্রণয়ন করা হয়েছে

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৫
  • ৫৯ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা ঃ তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, জেলা প্রশাসক কেন প্রজাতন্ত্রের সকল কর্মকর্তা কর্মচারীদেরকেই তথ্যদানে বাধ্য করার জন্য তথ্য অধিকার আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। শুধু সরকারী কর্মচারীই নয় এনজিও এবং সরকারী বেসরকারী সকল প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিবর্গরা তথ্য দিতে বাধ্য। সুনির্দিষ্ট ফরমে আবেদন করে সাংবাদিকদের পাশাপাশি সাধারন নাগরিকেরাও তথ্য পাওয়ার অধিকার রাখেন। শেখ হাসিনার সরকার অবাধ তথ্য প্রবাহের মাধ্যমেই দেশে জবাব দিহীতামূলক সংসদীয় সরকারের শাসন ব্যবস্থা কায়েম করেছে। তথ্য কমিশনে অভিযোগ করার পরও তথ্য না পেলে তথ্য মন্ত্রণালয়ের দ্বারস্থ হওয়ার জন্য তিনি সাংবাদিকদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানিয়েছেন। শনিবার রাত সাড়ে ১০টায় জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে জনগনের তথ্য অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে তথ্য অধিকার আইন ও নৈতিকতা বিষয়ে সাংবাদিকদের সাথে এক মত বিনিময় সভায় তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু একথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, সাইবার অপরাধীদের অপতৎপরতা রুখতে সরকার সমন্বিত সাইবার আইন প্রনয়নের লক্ষ্যে কাজ করছে। এ সংক্রান্ত খসড়া আইন নিয়ে এখন পর্যালোচনা চলছে। এ আইন প্রনয়নের কাজ শেষ হলে সাইবার জগতে মানুষের ব্যক্তিগত,পারিবারিক,সামাজিক নিরাপত্তা এবং রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা হুমকীতে পড়বেনা। আইনের মাধ্যমেই বিচরন বন্ধ করতে হবে সাইবার অপরাধীদের। মন্ত্রী বলেন,সংবাদপত্রের স্বাধীনতার নামে হলুদ সাংবাদিকতা,উস্কানী,খন্ডিত ও মিথ্যা তথ্য পরিবেশন বন্ধ করে সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে গণমাধ্যমকে আরো জনপ্রিয় করে তুলতে হবে। অনলাইন সাংবাদিকতাকে জবাবদিহীতার আওতায় আনার প্রক্রিয়ার কথা জানিয়ে মন্ত্রী বলেন,তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারার ক ও খ ধারা কেবল সাংবাদিকদের জন্য নয়। এটি সকল সাগরিকের জন্য। অনলাইনে কেউ ব্যক্তিগত আক্রমন,সাম্প্রদায়িক উস্কানী,চরিত্র হনন করলে এ আইনের প্রয়োগ করা হয়। তথ্যমন্ত্রীকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন করেন সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি এডভোকেট আজিজুল ইসলাম চৌধুরী, দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর পত্রিকার সম্পাদক পংকজ দে, দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি আল-হেলাল,দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি মাহবুবুর রহমান পীর,সাপ্তাহিক হাওরাঞ্চলের কথা ও এসএ টিভির জেলা প্রতিনিধি মাহতাব উদ্দিন তালুকদার, দৈনিক দিনকালের জেলা প্রতিনিধি সেলিম আহমেদ তালুকদার,দৈনিক জনকন্ঠ প্রতিনিধি এমরান আহমেদ চৌধুরী,বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি মাসুম হেলাল,চ্যানেল টুয়েন্টি ফৌর এর জেলা প্রতিনিধি মাইদুল রাসেলসহ স্থানীয় প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘বর্তমান সরকার একই সঙ্গে জঙ্গীবাদ ও আগুন সন্ত্রাসীদের মোকাবেলা করে দেশের পাহাড়, সমতল ও হাওর এলাকার উন্নয়ন করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া স্বাভাবিক রাজনীতিতে ছিলেন, তিনি পেট্রোল বোমা, আগুন সন্ত্রাসী ও জঙ্গীবাদ লালন করে গণতান্ত্রিক রাজনীতির বাইরে চলে গেছেন। গণতান্ত্রিক রাজনীতির ঘরে উনার এখন জায়গা নেই। দেশে ফিরে তাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে তিনি স্বাভাবিক রাজনীতি করবেন না অস্বাভাবিক রাজনীতি করবেন, সেটার উপরই নির্ভর করছে তাঁর ভবিষ্যত। তিনি দেশে ফিরে আগুন সন্ত্রাসীদের না ছাড়তে পারলে গণতান্ত্রিক রাজনীতির ঘরের চৌকাটের ওপারেই তাকে থাকতে হবে। বিদেশীদের হত্যা নিয়ে তদন্ত চলছে। তদন্তের প্রাথমিক পর্যায়েই দেশে বিএনপি-জামায়াতের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। যাচাই করা হচ্ছে এটি নাশকতা, জঙ্গিবাদ না সরকারের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করা, তদন্তের পরই সকল সত্যতা বেরিয়ে আসবে। মন্ত্রী ২দিনের সফরে এসে শুক্রবার বিকাল ৫টায় তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চত্বরে বেসরকারি সংগঠন হাওর পাড়ের ধামাইল (হাপাধা) আয়োজিত দুই দিনের জাতীয় হাওর উৎসব এর শুভ উদ্বোধন উপলক্ষ্যে এক জনসভাবেশে বক্তব্য রাখেন। শনিবার রাত ১১টায় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ের পর সুনামগঞ্জ সার্কিট হাওজে জেলা ও উপজেলা জাসদ নেতাদের সাথেও বৈঠক করেন। শনিবার সকালে টাংগুয়ার হাওড় পরিদর্শনের লক্ষ্যে সার্কিট হাওজ ত্যাগ করেন তিনি।

দেশ স্বাধীনের পর থেকে আজোবদি সুনামগঞ্জ জেলার বালিপাথর মহালগুলো প্রকাশ্য টেন্ডারের মাধ্যমে নীলাম না দেয়ার কারণ অবশ্যই দূর্নীতি হচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী সাংবাদিক আল-হেলালের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন,তথ্য না দিলে প্রশাসনের বিরুদ্ধে তথ্য কমিশনে অভিযোগ দায়ের করা ছাড়াও ভূক্তভোগীরা আদালতের আশ্রয় নিতে পারেন। আদালত অবমাননার মামলা করলে এসব ক্ষেত্রে অবশ্যই ইনসাফ পাবেন। উল্লেখ্য সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কাছে ১৪টি বিষয়ে তথ্য চেয়ে সাংবাদিক আল-হেলাল সুনির্দিষ্ট ফরমে আবেদন করেন। জেলা প্রশাসক চাহিতো তথ্য না দেয়ায় জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে তিনি বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে আপীল আবেদন করেন। তারপরও এখন পর্যন্ত আবেদনকৃত তথ্য না পাওয়ায় আল-হেলাল শনিবার রাতে বিষয়টি তথ্যমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করেন। তথ্যমন্ত্রী তাকে তথ্য কমিশনে অভিযোগ দায়ের ও অভিযোগের অনুলিপি মন্ত্রীকে প্রেরনের পরামর্শ দেন। তথ্য অধিকার আইন-২০০৯ এর ধারা ২৪ বিধি ৬ ফরম গ অনুসারে চাহিতো তথ্যগুলো নি¤œরুপ (ক) ১৪২২ বাংলা সন মেয়াদে তাহিরপুর উপজেলার ফাজিলপুর বালি মহালের ইজারামূল্য কত টাকা আদায় করা হয়েছে ? বর্তমানে মহালটির ইজারাদার কে ? (খ) ফাজিলপুর বালি মহাল কত তারিখে কত নং স্মারকের আদেশবলে কাকে দখলদেহী সমজিয়ে দেয়া হয়েছে ? (গ) ইজারাদারের সাথে ইজারাচুক্তির বিবরণে কি কি শর্ত আরোপ করা হয়েছে (ইজারা চুক্তির ফটোকপিসহ) ? (ঘ) ফাজিলপুর বালিপাথর মহাল মহামান্য হাইকোর্টের ৮৩৭৪/২০০৯ নং রীট পিটিশন মামলার ২০১১ ইং সনের ২৭ জানুয়ারীর রায় অনুযায়ী সর্বোচ্চ দরদাতা রীট পিটিশন মামলার বাদী এটিএম হায়দার বখত কে ইজারা না দেয়ার কারণ কি ? (ঙ) কেন এবং কি কারণে জেলা প্রশাসক মহোদয় ফাজিলপুর বালিপাথর মহাল নিয়ে মহামান্য হাইকোর্টের ৮৩৭৪/২০০৯ নং রীট পিটিশন মামলার ২০১১ ইং সনের ২৭ জানুয়ারীর রায় অবমাননা করলেন ? (চ) ১৪২২ বাংলা সন মেয়াদে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ধোপাজান নদী বালি মহালের ইজারামূল্য গত ১৩/৮/২০১৫ইং বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় কার কাছ থেকে কত টাকা আদায় করা হয়েছে ? (ছ) ধোপাজান নদী বালি মহাল কত তারিখে কত নং স্মারকের আদেশবলে কোন ইজারাদারকে দখলদেহী সমজিয়ে দেয়া হয়েছে ? (জ) ধোপাজান নদী বালি মহালের ইজারাচুক্তির বিবরণে কি কি শর্ত আরোপ করা হয়েছে (ইজারা চুক্তির ফটোকপিসহ) ? (ঝ) ধোপাজান নদী বালিপাথর মহাল মহামান্য হাইকোর্টের ৪৭৯৪/২০১৫ নং রীট পিটিশনের আদেশ অনুযায়ী রীট পিটিশন মামলার বাদী আওয়ামীলীগ নেতা বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী আপ্তাব মিয়াকে ১০০% বর্ধিত ইজারামূল্যে ইজারা না দেয়ার কারন কি ? (ঞ) কেন এবং কি কারণে জেলা প্রশাসক মহোদয় ধোপাজান নদী বালিপাথর মহাল নিয়ে মহামান্য সুপ্রীম কোর্টের সিভিল পিটিশন ফর লীভ টু আপীল ২২২১/২০১৫ মামলার ২০১৫ ইং সনের ১১ আগস্ট তারিখের স্থগিত আদেশ অবমাননা করলেন ? (ট) অভিযোগ উঠেছে জেলা প্রশাসনের ২ জন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা জেলার মাননীয় মন্ত্রী, এমপিসহ বালি মহাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা ও সিদ্বান্ত ব্যতিরেকে এবং মহামান্য সুপ্রীম কোর্টের আদেশ ও মহামান্য হাইকোর্টের রায় অমান্য করে প্রকাশ্য নীলাম ছাড়াই সরকার বিরোধী সিন্ডিকেটের কাছ থেকে নগদ ২ কোটি টাকা ঘুষ নিয়ে সরকারকে তার প্রকৃত রাজস্ব বঞ্চিত করে এক ব্যক্তিকে জেলার ৩টি বালিমহাল বেআইনীভাবে ইজারা দিয়েছেন। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসকের মতামত কি ? (ঠ) গত ১৫ জুন ২০১৫ইং দৈনিক খবরপত্র পত্রিকায়,“আজম খান ওয়াকফ এস্টেট এর মুতওয়াল্লী রাজাকার শাহ সাজ্জাদুর রহমান সুজাত মিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী” শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের পেপার কাটিং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দেবজিৎ সিংহ মহোদয় কর্তৃক জেলা প্রশাসকের নজরে আনার পরও তাতে কোন আদেশ না লেখা অথবা কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন না করার কারণ কি? (ড) জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের রাজস্ব শাখার অফিস সহকারী মোঃ মুজিবুর রহমান এর এসএসসি পাশের সনদ অনুযায়ী তার শিক্ষা প্রতিষ্টানের নাম কি? প্রতিষ্টানটি কোন জেলা ও থানায় অবস্থিত ? অফিস সহকারী মোঃ মুজিবুর রহমান এর নিয়োগপত্রে স্থায়ী ঠিকানা গ্রাম ডাকঘর থানা ও জেলা কোথায় এবং তিনি কত তারিখে ও সনে চাকুরী লাভ করেছেন ? (ঢ) মাননীয় জেলা প্রশাসক মহোদয়ের আইডি নং ও তার পিতা মাতার নাম ওয়েবসাইটে/ওয়েবপোর্টালে না থাকার কারন কি ?

কর্মসুচিগুলোতে আরো বক্তব্য রাখেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান,জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুহিবুর রহমান মানিক, স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, সাবেক সংসদ সদস্য মঞ্জুর কাদের কোরাইশি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়ো কেমিস্ট্রি বিভাগের ডিন ড. আনোয়ার হোসেন, হাপাধার সভাপতি সজল কান্তি সরকার, সিলেট পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান বাবরুল হোসেন বাবুল,সিলেট জেলা জাসদ সভাপতি লোকমান আহমদ, সিলেট বেতারের আঞ্চলিক পরিচালক এস.এম জাহিদ হোসেন, উপ-আঞ্চলিক পরিচালক ফখরুল আলম, জেলা তথ্য অফিসার আনোয়ার হোসেন,জেলা আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট আলী আমজাদ,করুনাসিন্দু চৌধুরী বাবুল,সুনামগঞ্জ জেলা জাসদ সভাপতি আতম সালেহ, সাধারন সম্পাদক এনাম আহমেদ চৌধুরী,জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট রবিউল লেইস রোকেশ,এডভোকেট রুহুল তুহিন,সহ-সভাপতি মিছবাহ আহমেদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা সালেহীন চৌধুরী শুভ,দিরাই উপজেলা জাসদের সভাপতি জয়নাল আবেদিন,সাধরিন সম্পাদক আমিনুল ইসলাম চৌধুরী ছোট মিয়া,মোজাম্মেল হক প্রমুখ।

ইতিমধ্যে একজন ডিজি নিয়োগের মাধ্যমে হাওড় উন্নয়ন বোর্ড গঠন করা হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, দেশের কৃষি ও হাওর উন্নয়নে আলাদা পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে সরকার। শেখ হাসিনার সরকার কৃষি ও হাওরবান্ধব সরকার বলেই বিভিন্ন পদক্ষেপ বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24