শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন

সুনামগঞ্জে ১০০% বর্ধিতহারে ধোপাজান নদী মহালের ইজারামূল্য গ্রহনের জন্য শিল্পী আফতাব মিয়ার আবেদন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৩ আগস্ট, ২০১৫
  • ৫৬ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা :সাবেক ইজারাদার তোফাজ্জল হোসেন এর চাইতে ১০০% বর্ধিত ইজারামূল্যে ধোপাজান নদী বালিপাথর মহালটি ইজারা নিতে কর্তৃপক্ষের কাছে আবারও আবেদন করেছেন দেশের বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী আওয়ামীলীগ নেতা ব্যবসায়ী আফতাব মিয়া। এ লক্ষ্যে রোববার বেলা ১টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মহামান্য হাইকোর্টের ৪৭৯৪/২০১৫ নং রীট পিটিশনের আদেশ বলে লিখিত আবেদন করেছেন সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের ইব্রাহিমপুর গ্রামের এই বাসিন্দা। উল্লেখ্য সুনামগঞ্জ মহকুমা যুবলীগ নেতা সঙ্গীত শিল্পী আফতাব মিয়া ছাত্রজীবনে মহকুমা ছাত্রলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদকসহ দলের দু:সময়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে সততা ও বিশ্বস্থতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদ ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুজ জহুরের অত্যন্ত ¯েœহাস্পদ শিল্পী তিনি। বাংলাদেশের মরমী সাংস্কৃতিক অঙ্গনের একজন প্রিয়শিল্পী হিসেবে রাজধানীতে দলীয় হাইকমান্ড থেকে সচিব পর্যায়ে সকলের কাছে ন্যায়সঙ্গত সহযোগীতা পেলেও নিজ জেলা সদরে প্রশাসনের কাছে বারংবার উপেক্ষিত রয়েছেন। জানা যায়, গত ১৭ এপ্রিল ইজারাবিহীন ধোপাজান নদী বালিমহালটি ১৪২২ বাংলা সনে ১০০% বর্ধিত মূল্যে ইজারা বা খাস কালেকশন প্রদানের জন্য তিনি জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত আবেদন করেন। কিন্তু জেলা প্রশাসন তার আবেদনটি আমলে নেয়নি। পরে তিনি বাধ্য হয়ে মহামান্য হাইকোর্টে ৪৭৯৪/২০১৫নং রীটি পিটিশন মামলা দায়ের করলে মহামান্য হাইকোর্ট তার আবেদনটি সঠিক বলে ফায়সালা দেন। এরই ভিত্তিতে রোববার নিজগ্রামে ধোপাজান নদীতে চাঁদাবাজী বন্ধে বিশাল প্রতিবাদ সভা শেষে তিনি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মহামান্য হাইকোর্টের আদেশ এর সার্টিফাই কপি সহকারে লিখিত আবেদন করেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন, আজ আমরা একটি আবেদন পেয়েছি সত্য। এর আগেও অনেকে সাবেক ইজারাদারের চাইতে বর্ধিত মূল্যে খাস কালেকশন এবং ইজারা চেয়েছেন। বিষয়টি হচ্ছে এখন অনেকেই বর্ধিতমূল্যে ইজারা চাইবেন এটাই স্বাভাবিক। তবে এই মুহুর্তে ইচ্ছে করলেই কাউকে হুট করে লীজ দেয়া যাবেনা। আমরা আগে সকল দরদাতাদের আবেদনগুলো কমিটিতে উত্থাপন করবো। এক্ষেত্রে মামলা মোকদ্দমার ঝামেলাও নিরসন করতে সচেষ্ট হবো। প্রকাশ্য নীলামের ব্যবস্থা করতেও পিছপা হবোনা। সংম্লিষ্ট এলাকার মাননীয় সংসদ সদস্য যারা পদাধিকার বলে কমিটির উপদেষ্টা থেকে শুরু করে কমিটির সকলকে নিয়ে বসে সিদ্ধান্ত নেবো। আমি সকলকে কথা দিতে পারি আমি অন্তত যতদিন আছি এ ব্যাপারে কাউকে কোনরকম স্বজনপ্রীতি বা অন্যায় লাভের সুযোগ নিতে দেবোনা। সর্বোচ্চ দরদাতা তিনি যেই হউননা কেন তাকেই ইজারাদার নিয়োগ করবে জেলা প্রশাসন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24