রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের ২ জনের কমিটি অবশেষে পূর্ণাঙ্গ হবার প্রক্রিয়ায়

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭
  • ১৪৩ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। রোববার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্মসম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ এমপি ও কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন (সিলেট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত) দুপুর ১ টায় এবং সন্ধ্যায় দুই দফায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমনের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। মাহবুবুল আলম হানিফের কাওরানাবাজারের ব্যক্তিগত কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দেওয়া কমিটি নিয়ে কেন্দ্রীয় এই দুই নেতা আলোচনা করেছেন।
সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ প্রায় ২০ বছর কেটেছে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সম্পাদক দিয়ে। এই দীর্ঘ সময়ে জেলার বেশিরভাগ উপজেলায়-ই সংগঠন ছিল দ্বিধাবিভক্ত। ২০ বছর পর ২০১৬ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ঘটা করে সম্মেলন করে সভাপতি ও সম্পাদকের দুই পদ ঘোষণা হয়। সম্মেলনের প্রায় ১০ মাস দুই পদের (সভাপতি ও সম্পাদক) সমন্বয় থাকলেও গত প্রায় ৮ মাস হয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উত্তর মেরু এবং দক্ষিণ মেরু’র মতো। অর্থাৎ সভাপতি ও সম্পাদক দুজনেই উল্টোপথে হাঁটছেন। অভ্যন্তরীণ কোন্দলে দুই জনের অবস্থান দুই বলয়ে।
মূলত. গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর জেলা পরিষদের নির্বাচনকে ঘিরে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দূরত্ব তৈরি হয়। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে দলীয় সমর্থিত প্রার্থী ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে ঐ সময় কেন্দ্রে নালিশও করেন।
এরপর থেকে সুনামগঞ্জের ৫ সংসদ সদস্য (সংরক্ষিত নারী আসনসহ) ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন একপক্ষে এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট আরেক পক্ষ হয়ে কাজ করছেন। এই দ্বন্দ্বের প্রভাব পড়েছে জেলার প্রায় সব কয়টি সাংগঠনিক ইউনিটে।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগও দ্বিধাবিভক্ত। সভাপতি আবুল কালাম মতিউর রহমানের বলয়ের সঙ্গে কাজ করেন। সম্পাদক মোবারক হোসেন আছেন ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমনের বলয়ে।
সুনামগঞ্জ পৌরসভা আওয়ামী লীগের কমিটি দুটি। তাহিরপুরের আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খান এবং সাধারণ সম্পাদক অমল কর। এখানে প্রকাশ্যে আলাদা আলাদা মিছিল-সমাবেশ না হলেও সংগঠনের সিনিয়র সহসভাপতি আলী মর্তুজা, আলকাছ উদ্দিন খন্দকার, জালাল উদ্দিন এবং মোশারফ আলম স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের ঘনিষ্টজন হিসাবে পরিচিত এবং আবুল হোসেন খান এবং অমল কর মতিউর রহমানের ঘনিষ্ট হিসাবে পরিচিত।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগেও একই অবস্থা। এই উপজেলার সভাপতি বেনজির আহমদ মানিক ও সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার বর্মণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দুই জনের সঙ্গেই যোগাযোগ রাখেন। এই উপজেলার যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অঙ্গসংগঠনগুলো মতিউর রহমান ও ব্যারিস্টার ইমনকে ঘিরে বিভক্ত।
মধ্যনগর থানায় বলা হয়ে থাকে শতকরা ৮৫ ভাগই আওয়ামী লীগের ভোটার। থানার ৪ ইউনিয়নের ৩ টিতেই আওয়ামী লীগের ইউপি চেয়ারম্যান। দলীয় অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে একটিতে কেবল আওয়ামী লীগ হেরেছে। অথচ. এই থানায় আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি দু’টি। দুই কমিটির নেতৃবৃন্দই নিজেদের বৈধ দাবী করেন।
২০১৪ সালের ২১ এপ্রিল জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক (মতিউর রহমান এবং নুরুল হুদা মুকুট) মধ্যনগর থানা আওয়ামী লীগের কমিটি বিলুপ্ত করে দলীয় নেতা এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্মআহ্বায়ক গিয়াস উদ্দিন নূরীকে আহ্বায়ক, পরিতোষ সরকার, মোবারক হোসেন ও জামাল হোসেনকে যুগ্মআহ্বায়ক করে ৪১ সদস্যের কমিটি করে দেন।
একই বছরের ১৮ ডিসেম্বর আবার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পুরাতন কমিটি স্থগিত করে ধর্মপাশার সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সদ্য প্রয়াত আব্দুল আউয়ালকে আহ্বায়ক, নিপেন্দ্র রায়, প্রভাকর তালুকদার পান্না, আব্দুল খালেক, আলমগীর খসরু, প্রবীর বিজয় তালুকদার, ও মনোরঞ্জন তালুকদারকে যুগ্মআহ্বায়ক করে ১১ সদস্যের থানা সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করে দেয়। এখন দুই কমিটিই নিজেদের থানা কমিটি দাবি করছে।
ধর্মপাশায় স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন সভাপতি এবং শামীম আহমদ বিলকিস সাধারণ সম্পাদক। এই উপজেলায় দলীয় কর্মসূচী আলাদা না হলেও সহ-সভাপতি আলমগীর কবির এবং আরেক সহসভাপতি ফখরুল ইসলাম এই বলয়ের সঙ্গে নেই। এরা মতিউর রহমানের সঙ্গেই যোগাযোগ রাখেন।
জামালগঞ্জে অবশ্য সভাপতি মোহাম্মদ আলী ও সাধারণ সম্পাদক নবী হোসেন সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এবং মতিউর রহমানের বলয় দুটোর সঙ্গেই যোগাযোগ রাখেন বলে দলের নেতা কর্মীরা জানিয়েছেন।
দিরাইয়ে আছাব উদ্দিন সর্দার সভাপতি এবং প্রদীপ রায় সাধারণ সম্পাদক। এরা সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তা এবং ব্যারিস্টার ইমনের বলয়ের হিসাবে পরিচিত। এই উপজেলার সাবেক সভাপতি আলতাব উদ্দিন স্থানীয়ভাবে মতিউর রহমানের ঘনিষ্টজন হিসাবে পরিচিত। তাঁর নেতৃত্বে কয়েকজন নেতা কর্মী গত ৩০ মার্চ দিরাই-শাল্লা’র উপ-নির্বাচনে প্রকাশে দলীয় প্রার্থী’র বিরোধিতা করেন।
দোয়ারাবাজার উপজেলায়ও কমিটি দুটি। সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক এবং ব্যারিস্টার ইমন এখানে ইদ্রিছ আলী বীরপ্রতীককে আহ্বায়ক বললে মতিউর রহমান এই উপজেলায় ফরিদ আহমদ তারেককে আহ্বায়ক বলে দাবি করেন।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হেকিম মতিউর রহমান বলয়ের রাজনীতিরি সঙ্গে যুক্ত। সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান স্থানীয় সংসদ সদস্য, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এবং ব্যারিস্টার ইমনের সমর্থক।
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আকমল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু। জগন্নাথপুর পৌরসভায় সভাপতি ডা. আব্দুল আহাদ এবং সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন ভুইয়া। এরা ৪ জনই স্থানীয়ভাবে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি এবং ব্যারিস্টার ইমনের সমর্থক। তবে জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল মনাফের নেতৃত্বে একটি অংশের সঙ্গে মতিউর রহমানের যোগাযোগ রয়েছে। এরা স্থানীয়ভাবে আজিজুস সামাদ ডনের (প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদের ছেলে) অনুসারী।
ছাতক উপজেলায় আবরু মিয়া তালুকদারকে আহ্বায়ক করে করা কমিটির নেতৃত্বে মতিউর রহমান এবং স্থানীয় পৌর মেয়র আবুল কালাম সমর্থকরা কার্যক্রম চালান। অন্যদিকে, ছানাউর রহমান ছানাকে আহ্বায়ক করে স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ও ব্যারিস্টার ইমন সমর্থকরা কার্যক্রম চালায়। ছাতক পৌরসভায় একাংশের (কালাম সমর্থক) সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শাহাব উদ্দিন এবং সাধারণ সম্পাদক মৃদুল কান্তি দাস মিন্টু। অন্যদিকে, এই পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহিদ মজনুও দাবি করেন তিনি পৌর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ছিলেন, পরে আর কমিটি হয়নি।
অর্থাৎ জেলার প্রত্যেক ইউনিটেই ২০ থেকে ২৫ বছর আগের গ্রুপিং এখনো চলছে। কোন কোন স্থানে গ্রুপের নেতা বদলেছে। কর্মীরা গ্রুপ বদল করেছেন কিন্তৃ দ্বন্দ্ব-কোন্দল অব্যাহত রয়েছে।
এই অবস্থায় রোববার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমনকে নিয়ে সংগঠনের সিলেট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা কেন্দ্রীয় যুগ্মসম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ এমপি ও সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন দুই দফায় (দুপুরে এবং সন্ধ্যায়) বৈঠক করেছেন।
জানা গেছে, প্রথম দফার বৈঠকে মাহবুবুল আলম হানিফ দুই জনের (মতিউর-ইমনের) দেওয়া কমিটিতে বিগত জেলা কমিটির সদস্য যারা জীবিত বা দেশে আছেন, তারা আছেন কী-না মিলিয়ে দেখেছেন।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন বৈঠকের কথা স্বীকার করলেও বৈঠকের আলোচনা নিয়ে কথা বলতে রাজি হননি। সূত্র দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24