শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১ জেলা আ.লীগের গণমিছিল ৫ বছরেও শেষ হয়নি জগন্নাথপুরের ভবেরবাজার-গোয়ালাবাজার সড়কের কাজ,দুর্ভোগ লাখো মানুষের “জুম্মু কাশ্মীরে,গণতহ্যা শুরু করেছে মোদী সরকার”

সুনামগঞ্জ শহরের ১০টি পয়েন্টে বখাটেদের আনাগোনা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১০ আগস্ট, ২০১৭
  • ৪৩ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
‘গত সোমবার সন্ধ্যার পর একদল বখাটে বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেলে করে শহরের প্রিয়াঙ্গন কমিউনিটি সেন্টারের সামনের গেটে জড়ো হয়। পরে ওই বখাটেদের মধ্যে মারামারিও হয়। শুধু সোমবারই নয় প্রিয়াঙ্গন মার্কেটের সামনে প্রতিদিনই বখাটেরা মোটরসাইকেল মহড়া ও রাস্তা দিয়ে আসা-যাওয়াকারী স্কুল কলেজের ছাত্রীদের উত্যক্ত করে।’
বখাটেদের উপদ্রবের কথা জানান এক ব্যবসায়ী। ওই ব্যবসায়ী জানান, বখাটেরা স্বাবলম্বী ও প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান। তাই ভয়ে কেউ কিছু বলতে চায় না। কারণ ওদের পকেটে ধারালো ছুরিও থাকে, দামী মোটরসাইকেলে করে ঘুরে বেড়ায়। প্রতিবাদকারীদের এরা যে কোন সময় অপদস্থ ও হয়রানী করতে পারে।
তিনি আরো জানান, শহরের সরকারি সতীশ চন্দ্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সুনামগঞ্জ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, সরকারি মহিলা কলেজ, সরকারি কলেজ, বিভিন্ন কমিউনিটি সেন্টার প্রাঙ্গণ, সুরমা মার্কেট, শহরের বিভিন্ন লেডিস টেইলার, বিউটি পার্লার, ষোলঘর দ্বীনি সিনিয়র মাদ্রাসা, আব্দুর জহুর সেতুসহ আরো কিছু এলাকায় বখাটেরা ছাত্রীদের নিয়মিত উপদ্রব করে।
তবে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. শহীদুল্লাহ জানিয়েছেন, ইতোপূর্বে বখাটেপনার দায়ে বিভিন্ন সময়ে ১৯ জনকে আটক করা হয়েছিল। এখন পুলিশের এই অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
হাছননগরের ওই ব্যবসায়ীর অভিযোগের পর খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শহরের চিহ্নিত বখাটেরা স্কুল-কলেজ খোলার সময় ও বিকালে ছুটির পর মমিনুল মউজদীন রোড, উকিল পাড়া পয়েন্ট থেকে বরুণ রায় রোড ও পাশের সরকারি কলেজের হিন্দু হোস্টেলের রাস্তা, সরকারি মহিলা কলেজ রোড, ট্যাকনিক্যাল কলেজ এলাকা, লবজান চৌধুরী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় এলাকা, সদর হাসপাতাল ও সরকারি কলেজ রোড, এইচএমপি উচ্চ বিদ্যালয় সামনের মোড় থেকে মরাটিলা রোড, স্টেডিয়াম মোড় থেকে কালী বাড়ি রোডের বুলচান্দ উচ্চ বিদ্যালয় গেট এলাকা, বিহারি পয়েন্ট, ময়নার পয়েন্ট, পৌর কলেজ প্রাঙ্গণ এলাকা ও দ্বীনি সিনিয়র মাদ্রাসা রোডে দল বেঁধে ও একা ছাত্রীদের বিরক্ত করে থাকে। এছাড়া বিকালে শহরের নতুনপাড়া, মুক্তারপাড়া, উকিল পাড়া, হাছন নগর, বাঁধন পাড়া ও ষোলঘরের পাড়া-মহল্লায় ঢুকে বখাটেরা মোটরসাইকেল নিয়ে মহড়া দেয়।
মল্লিকপুরের অবসরপ্রাপ্ত এক স্কুল শিক্ষক জানান, বখাটেরা স্কুল কলেজে পড়ুয়া অপক্ষোকৃত ধনী ও ভদ্র পরিবারের সুন্দরী মেয়েদের টার্গেট করে পিছু নেয়। সপ্তাহের পর সপ্তাহ ধরে নানাভাবে প্রেমের প্রস্তাব দেয়াসহ নানাভাবে বিরক্ত করতে থাকে। একা ব্যর্থ হলে দল বেঁধে বন্ধু-বান্ধব নিয়ে স্কুল-কলেজ ছুটির পর দামী মোটরসাইকেল নিয়ে বাসা পর্যন্ত পিছু নেয়। পেছনে পেছনে গিয়ে শিষ দেয়, নানা বাজে মন্তব্য করে। এমনকি বাসায় উপহার (মোবাইল ফোন) পর্যন্ত পাঠিয়ে ফাঁদে ফেলার চেষ্টাও করে থাকে।
তিনি আরো জানান, ছাত্রীরা লজ্জার কারণে অনেক সময় মা-বাবা ও পরিবারের লোকজনকেই উত্যক্তের বিষয় জানায় না। মান সম্মানের ভয়ে পরিবারের লোকজনও পাড়া-প্রতিবেশীকে পর্যন্ত জানাতে চান না। জানা-জানি হয়ে যাওয়া ও পরবর্তীতে আরো হয়রানী করবে এই ভয়ে অনেকেই আইনশৃংখলা বাহিনীর দ্বারস্থ হন না। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে ও চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছলেই কেবল আইনী পদক্ষেপ নিতে অনেকেই রাজী হন।
অভিযোগ রয়েছে, চিহ্নিত বখাটেদের অনেকেই কৌশল হিসেবে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যের সাথে দহরম-মহরম বজায় রাখেন। যাতে রাস্তা-ঘাটে অনায়াসে অপকর্ম করে বেড়াতে পারে। ওই বখাটেরা মদ-গাঁজা, ইয়াবা ও হেরোইন সেবন করে। এরা জুয়া ও তীর সিলং খেলার সাথে জড়িত রয়েছে।
জানা যায়, বেশ কয়েক মাস আগে শহরের তেঘরিয়ার ও বড়পাড়ার দুই বখাটে ঘোলঘরের এক স্কুল ছাত্রীকে বিরক্ত করছিল। হঠাৎ একদিন বিদ্যালয় যাওয়ার পথে ওই ছাত্রীর অটো রিকশায় জোর করে উঠে পড়ে বখাটেরা। ছাত্রী চিৎকার করলে পাড়ার ছেলেরা এক বখাটেকে আটক করে গণধোলাই দেয়। এই ঘটনার জের ধরে ওই বখাটের দল ষোলঘরের এক ছেলেকেও উকিল পাড়ায় মারধর করে।
সম্প্রতি শহরের নতুন পাড়ার নিরীহ পরিবারের এক স্কুল শিক্ষিকাকে রাস্তা-ঘাটে নানাভাবে বিরক্ত করছিল জামতলার বখাটে বক্কর, শিহাব ও প্রমি। এক পর্যায়ে ওই শিক্ষিকার বাসা পর্যন্ত হানা দেয় বখাটেরা। শিক্ষিকার ভাই প্রতিবাদ করলে গত ১ আগস্ট রাত পৌনে ৮ টায় বাসায় হামলা করে বখাটের দলবল। পরিবারের লোকজন বিষয়টি পুলিশকে অবগত করেন। এ ঘটনায় শিক্ষিকার ভাই ওই রাতেই জামতলার বারিক মিয়ার ছেলে শুভ, নুর ইসলামের ছেলে শিহাব, একই এলাকার ফাহিম, বক্কর, নওশাদকে অভিযুক্ত করে সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এই ঘটনাটি শালিসের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন ওই শিক্ষিকার ভাই।
ঘোলঘর মাদ্রাসা এলাকার একাধিক বাসিন্দা জানান, মাদ্রাসা খোলা ও ছুটির সময় এদের আনাগোনা বেড়ে যায়। মোটরসাইকেল ও রিকশা যোগে ছাত্রীদের পিছু নেয় বখাটেরা। অনেক সময় যাত্রী বেশে ছাত্রীদের অটো রিকশায় উঠে পড়ে। রাস্তার আশপাশে থেকে দাঁড়িয়ে থেকেও ছাত্রীদের বিরক্ত করে। হয়রানীর ভয়ে পাড়ার লোকজন কোন কিছু বলতে সাহস পায় না।
জানা যায়, সদর মডেল থানা পুলিশ গত কয়েকমাস আগে বিশেষ অভিযান চালিয়ে এক দিনেই শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে চিহ্নিত ৮-১০ বখাটেকে আটক করেছিল। পরে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আটককৃত ওই বখাটেদের অভিভাবকদের ডেকে থানায় আনেন। ওই সময় বখাটেদের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে প্রচার হয় এবং কিছু দিন নিরব ছিল বখাটেরা। এখন নতুন করে আবারো উপদ্রব শুরু হয়েছে। বখাটেরা বিকালে উকিলপাড়ার রিভার ভিউ, নবীনগর, ষোলঘর, শহরের সুরমা ভ্যালী পার্ক এলাকায় মেয়ে ও নারীদের নানাভাবে উত্যক্ত করে।
সদর থানা সূত্রে জানা যায়, শহরে বখাটে হিসাবে যাদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রয়েছে তাদের মধ্যে ইতোপূর্বে ১৯ জনকে আটক করা হয়েছিল। যাদের আটক করা হয়েছিল, তারা হলেন- শহরের বড়পাড়ার শাহাবুদ্দিন রুমান (১৯), বিসিক শিল্পনগরী এলাকার রায়হান আহমেদ আকাশ (১৭), মাইজবাড়ির মোনায়েম (১৯), মরাটিলার জাকির হোসেন রাজ (১৭), মোহাম্মদপুরের মাহমুদুল হাসান সাব্বির (১৭), বুড়িস্থলের রুবেল মিয়া (২০), শহরতলীর ইব্রাহিমপুরের মনির হোসেন (১৭), মল্লিকপুরের সৌরভ আহমদ (১৮), গিয়াস উদ্দিন (১৮), নাহিদ (১৮), ফেরদৌস হাসান সায়েম (১৯), নতুন হাছন নগরের মইনুল ইসলাম (২৩), কালী বাড়ির রাব্বি (২২), তেঘরিয়ার ফজলে রাব্বী (২৩) আরপিননগরের ইফতিয়াজ খান নির্জন (১৯), একই এলাকার রাফি (১৭), দীপ্ত আহমদ অয়ন (২২), তেঘরিয়ার সোনাই (২২), আলামিন জুসেফ (২৩)। ওই ১৯ জনের মধ্যে আটককৃত কিশোরদের অভিভাবক ডেকে জিম্মায় দেয়া হয়েছে।
শহরের উকিলপাড়ার এক ছাত্রীর অভিভাবক বলেন, ‘বখাটেরা সমাজের প্রভাবশালী ও রাজনৈতিক পরিবারের সদস্য। তাই ওদের আটক করে ফেইসবুকে ছবি ও ভিডিও প্রচার, সম্ভব হলে সামাজিক শাস্তির ব্যবস্থা করলে কিছুটা হলেও রোধ হবে। শুধু বখাটেদের শাস্তি দিলেই হবে না, প্রয়োজনে ওদের অভিভাবকদের পাড়া-মহল্লায় শালিসে ডেকে চিহ্নিত করতে হবে।’
নতুন পাড়ার বাসিন্দা এক সরকারি কর্মচারী বলেন,‘ বখাটেরা মোটরসাইকেলে করে দ্রুত বেগে আসা-যাওয়া করে। ওদের মোটরসাইকেলে বিকট শব্দ করে। এরা পাড়ার একদিকে প্রবেশ করে অন্যদিকে বের হয়। কোন কাজ ছাড়া আসা-যাওয়াই প্রমাণ করে এরা বখাটে। ’
হাছন নগরের এক স্কুল ছাত্রীর নারী অভিভাবক বলেন,‘বখাটেপনার জন্য দায়ী আমরা অভিভাবকরা। কারণ ছেলে-মেয়েরা বাইরে কি করে তার খোঁজ খবর রাখেন না মা-বাবা। আধুনিকতা ও শিক্ষার নামে ছেলেরা বেশী স্বাধীনতা ভোগ করার কুফল এটা। ছেলে বখাটে হয়ে গেলে লজ্জায় মুখ না ঢেকে অনেকেই গর্ববোধ করেন। বখাটেপনার দায়ে ছেলে আটক হলে নেতাদের দিয়ে প্রভাব খাটিয়ে ছাড়ানোর ব্যবস্থা করেন। এছাড়াও আইনশৃংখলা বাহিনীও সঠিক দায়িত্ব পালন করেন না। ’
বড়পাড়ার এক ব্যবসায়ী বলেন,‘ ইভটিজার সামলাতে ভাই ডান্ডার উপরে আর কোন অসুদ নাই। পুলিশ যদি এই পুলা-পাইনরে ধইরা বা ইতার মা-বাপরে ধইরা ডান্ডা দিত তাইলে সব ঠিক অইয়া যাইত। পুলিশের উপর পেসার পড়লেই খালি এ্যাকশন হয়। পুলিশ ইচ্ছা করলে ইতা বিষয় দুই দিনেই শেষ করত পারে।’
সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. শহীদুল্লাহ বলেন,‘ বখাটেপনা একটি সামাজিক ব্যাধি। এই ব্যাধি থেকে সমাজকে মুক্ত রাখা ও এসব অপরাধ রোধে পুলিশের পাশাপাশি স্থানীয়ভাবে সামাজিক উদ্যোগ নিতে হবে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, পাড়া-মহল্লার মুরব্বী, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক, সাংবাদিকসহ সমাজের সচেতন মহলকে এগিয়ে আসতে হবে। আমরা আইনশৃংখলা বাহিনীর পক্ষ থেকে যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছি। পুলিশ শহরের স্কুল-কলেজের রাস্তায় সকাল-বিকাল নিয়মিত টহল দিচ্ছে। আমাদের জনবল ও গাড়ির সংকট রয়েছে। তবে যখনই কোন এলাকায় এসব অভিযোগ পাওয়া যায় সাথে সাথেই আমরা কঠোর হস্তে দমন করি। বখাটেপনা রোধে যে কেউ পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে পারেন। পুলিশ তথ্যদাতার পরিচয় গোপন রেখেই অভিযান পরিচালনা করবে। ’
পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান সম্প্রতি নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে জানিয়েছেন, শান্তির শহর সুনামগঞ্জে কাউকে কোন ধরনের অপরাধ করতে যাবে না। সকল শ্রেণি পেশার নাগরিকদের নিরাপত্তা বজায় ও আইনশৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে যা করার প্রয়োজন তাই করা হবে। তবে সমাজের সবাইকে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24