বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৪৪ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জ শিল্পকলা একাডেমী নামকরণে ক্ষুব্ধ হাসন অনুরাগীরা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৭৫ Time View

আল-হেলাল,সুনামগঞ্জ থেকে : মরমীকবি হাসনরাজার নামে প্রতিষ্টিত হাছন রাজা একাডেমীর নাম বদলের চক্রান্তে ফুসে উঠেছে ভাটি অঞ্চলের সংস্কৃতিপ্রিয় মানুষ। দীর্ঘ ৭ বছরে নির্মিত এ প্রতিষ্ঠানটিকে শিল্পকলা একাডেমী নামকরনের চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে একটি মহল। জানা যায়,মরমী কবি হাছন রাজা ছাড়াও ভাটি অঞ্চলের অন্যান্য লোক কবিদের মরমী সাহিত্য ও স্মৃতি রক্ষার্থে সরকার হাসন রাজা একাডেমী স্থাপন করে। এলক্ষ্যে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার দক্ষিণে ও বর্তমান জেলা শিল্পকলা একাডেমির উত্তরে জেলা পরিষদের মালিকানাধীন জায়গাও অধিগ্রহন করা হয়। হাসন রাজাকে সম্মান জানিয়ে একটি একাডেমী স্থাপনের জন্য সর্বপ্রথম উদ্যোগ নেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭৫ সালে ২৫ হাজার টাকা অনুদান প্রদান করেছিলেন তিনি। এজন্য সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলহাজ্ব আব্দুস সামাদ আজাদ এর প্রচেষ্টাও ছিল অব্যাহত। ২০০৪ সালে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে একটি আবেদনের প্রেক্ষিতে হাছন রাজা একাডেমীর অনুকূলে প্রস্তাবাকারে একটি প্রকল্প অনুমোদিত হয়। দ্বিতীয় প্রকল্প তৈরী হয় ২০০৮ সালে। ২০০৯ সালে তত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরীর প্রচেষ্টায় একনেকের সভায় অর্থ বরাদ্ধ হয়। একাডেমী নির্মানার্থে ২০১১ সালে প্রকল্পের কাজ হাতে নেয় সরকার। ২০১২ সালের ৫ জানুয়ারীতে অনুষ্টিত হাসন রাজা লোক উৎসবে একাডেমী প্রকল্পের কাজ শুরু করার ঘোষনা দেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক কামাল লোহানী। ২০১৪ ইং সনের ৩০ মার্চ বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর রক্ষনাবেক্ষণ প্রকৌশলী সুখদেব চন্দ্র দাস এর লিখিত “হাছন রাজা একাডেমী স্থাপন প্রকল্পের অগ্রগতির প্রতিবেদন”এ উল্লেখ করা হয়,বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর আওতায় বাস্তবায়নাধীন হাছন রাজা একাডেমী স্থাপন,সংশোধিত শীর্ষক প্রকল্পের নির্মাণ কাজের জন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্টান দি ইউনাইটেড কন্সস্ট্রাকশন কো: এর সাথে ২৩/৬/২০১০ তারিখে ৫,২২,৭৯,৭৮৫ টাকার চুক্তি সম্পাদন করা হয়। এপ্রিল ২০১৩ পর্যন্ত এ প্রকল্পের আওতায় ৭৫ সতাংশ জমি ভরাট,প্রশাসনিক/প্রশিক্ষণ ভবনের ৩ তলা পর্যন্ত স্ট্রাকচার নির্মাণ,অডিটরিয়াম অংশের গ্যালারী,লবি ও ছাদ পর্যন্ত কলাম নির্মাণ এবং মিউজিয়াম ভবনের কাজ সমাপ্ত হয়েছে। ‘হাসন রাজা একাডেমী’ নামে একনেকের সভায় প্রকল্প অনুমোদন, অর্থ মন্ত্রনালয় থেকে অর্থ বরাদ্দ্, প্লেনিং কমিশনে পাশ, জেলা পরিষদ থেকে ভূমি বরাদ্দ এবং ‘হাসন রাজা একাডেমী’র নামেই কাজের টেন্ডার আহবান করা হয়। দীর্ঘ ৭টি বছরে নির্মাণ কাজ শেষে সুনামগঞ্জের মানুষের প্রত্যাশিত ‘হাসন রাজা একাডেমী’র ভবন যখন উদ্বোধনের অপেক্ষায় তখন ‘হাসন রাজা একাডেমী’ বদলে ভবনের প্রবেশদ্বারে লেখা হয় জেলা শিল্পকলা একাডেমী। সম্প্রতি, বিভিন্ন খবরের কাগজে ‘হাসন রাজা একাডেমী’র নামে নবনির্মিত ভবন শিল্পকলা একাডেমী নামে উদ্বোধন হচ্ছে বলে আগাম সংবাদ প্রকাশ করা হয়। এমনকি হাছন রাজার পরিবারের সাথে যেসব সংবাদকর্মী ও সংস্কৃতিসেবীদের ব্যক্তিগত মনোমালিন্য রয়েছে তাদেরকে সংঘবদ্ধ করে কোন প্রকার আনুষ্টানিক নির্বাচন না করেই গঠন করা হয় জেলা শিল্পকলা একাডেমীর কার্যকরী কমিটি। হাসন রাজা একাডেমী শেষ মুহূর্তে এসে নাম পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে এমন খবরে সিলেটবাসী তথা সারা বাংলাদেশের মরমী সাহিত্যপ্রেমীদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।

জানা যায়,একটি প্রভাবশালী মহল ইতিপূর্বে সুনামগঞ্জের ইতিহাস বদলানোর অপচেষ্টার অংশ হিসেবে হাছন রাজার ছেলের নামে স্থানীয় আফতাব নগর ইউনিয়নের নাম বদল করে। অপতৎপরতার অংশ হিসেবে হাছন রাজা একাডেমীর প্রবেশপথে সাইনবোর্ডে হাছন রাজার নামের পরিবর্তে শিল্পকলা একাডেমী লিখে রাখা হয়।

হাছন রাজার গানের ভক্ত অনুরাগীরা বলছেন,লক্ষ কোটি মানুষের প্রত্যাশিত হাছন রাজা একাডেমীর নাম বদলানোর অপচেষ্টায় জড়িতদেরকে চিহ্নিত করতে হবে। কারন এরা হাছন রাজার নামের সাথে নয় জাতির জনকের প্রচেষ্টাকে খাটো করতে চায়। দীর্ঘ ৭টি বছরের ধারাবাহিক প্রচেষ্টায় হাছন রাজা একাডেমীর নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। কাগজেপত্রে এখনও এটি হাছন রাজা একাডেমী হিসেবেই স্বীকৃত। বিশ্বের কোটি কোটি বাঙ্গালীর হৃদয়ে এই মহান মরমী সাধকের নামে প্রতিষ্টিত একাডেমীটি যখন উদ্বোধনের অপেক্ষায় তখন এর নাম পরিবর্তন আর জঙ্গীবাদকে সমর্থন একই কথা বলে আমরা মনে করি।

উল্লেখ্য নবনির্মিত হাছন রাজা একাডেমির উত্তর পার্শ্বে জেলা শিল্পকলা একাডেমির বর্তমান ভবনটি অবস্থিত। জেলা শিল্পকলা একাডেমির নির্ধারিত ভবন কাঠামো লোকবল ও দপ্তর থাকার পরও নবনির্মিত হাছন রাজা একাডেমিকে জেলা শিল্পকলা একাডেমি হিসেবে রদবদলের ঘটনাটিকে দখলবাজির আলামত বলে মনে করছেন জেলার সিভিল সোসাইটি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী বলেন,যেহেতু এটি স্থানীয় ব্যাপার সেহেতু এখানকার মন্ত্রী এমপি,জেলা পরিষদ প্রশাসকসহ জেলা প্রশাসনকেই ফায়সালা করতে হবে। সুনামগঞ্জ ৪ আসনের এমপি এডভোকেট পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ বলেন,আমি একাডেমীটি ৭ বছর আগে হাছন রাজা একাডেমী হিসেবেই নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে বলে দেখেছি। এখন এর নীতি নির্ধারকরা এটিকে কোন পথে নিয়ে যাচ্ছেন তা আমাকে কেউ জানায়নি। জেলা শিল্পকলা একাডেমির সভাপতি জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন,নাম বদল হয়েছে বলে আমি জানিনা। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির গাইড লাইন মোতাবেক নবনির্মিত ভবনটির নামকরন জেলা শিল্পকলা একাডেমি করা হয়েছে। তবে এর ভেতর ও বাইরের অডিটরিয়াম,গ্যালারী ও লবি জেলার মরমী কবিদের নামে নামকরণ এর ব্যাপারেও মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত রয়েছে। সে মোতাবেক জেলা প্রশাসন তার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। জেলা প্রশাসকের বক্তব্যকে সমর্থন করে জেলা কালচারাল অফিসার আহমেদ মঞ্জুরুল ইসলাম চৌধুরী পাভেল বলেন,মূল ভবনটিকে জেলা শিল্পকলা একাডেমি হিসেবে রেখে এর ভেতরের ৩টি স্থাপনা রাধারমন,হাছনরাজা ও শাহ আব্দুল করিমের নামেই নামকরন করা হবে। জেলা শিল্পকলা একাডেমির যুগ্ম সম্পাদক এডভোকেট দেবদাস চৌধুরী রঞ্জন বলেন,বিশেষ কোন স্থাপনায় নয় হাছন রাজার স্থান প্রতিটি সঙ্গীত শিল্পীর হৃদয়ে স্থায়ী শ্রদ্ধার আসনে স্বমহিমায় অধিষ্টিত। তবে আমার প্রশ্ন হাছন রাজা একাডেমির জন্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর দেয়া ২৫ হাজার টাকার অনুদানের যেকথা আমরা শুনছি সেই টাকাগুলো কার কাছে আছে এ প্রশ্নের মীমাংসা আমাদেরকে খুজে বের করতে হবে। জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাবেক সেক্রেটারী এডভোকেট দ্বিগ¦ীজয় চৌধুরী শর্ম্মা শিবু বলেন,শিল্পকলা একাডেমি মানেইতো সকল শিল্পী কলাকূশলী বাউল বাদক সকলের জায়গা। তাই এটি ব্যক্তি পর্যায়ে না হয়ে প্রাতিষ্টানিক পর্যায়ে হলে অসুবিধা কোথায়। তিনি আরো বলেন,সবাই শুধু হাছন রাজা ও শাহ আব্দুল করিমকে নিয়ে এটা ওটা করার কথা বলেন কিন্তু হাছন রাজার সিনিয়র সাধক রাধারমন এবং শাহ আব্দুল করিমের অগ্রজ বাউল কামাল পাশা ও দূর্বীণ শাহের নামে কিছু করার কথা কেউই বলেন না। তেলা মাথায় তেল দেয়ার প্রবণতাকে পরিহার করতে হবে। জেলা পরিষদ প্রশাসক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন বলেন,জেলা পরিষদের কাছ থেকে জায়গা নেয়ার প্রস্তাবনায় হাছন রাজা একাডেমির কথাই বলা হয়। একাডেমির কাজ শুরু ও শেষ হয় হাছন রাজা একাডেমি নামেই। পরবর্তীতে জেলা সমন্বয় কমিটির একটি সভায় সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সিদ্বান্তের অজুহাতে হাছন রাজা একাডেমি নাম পরিবর্তন করতে হলে এটিকে সার্বজনীনভাবে বাউল একাডেমি করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। কিন্তু এখন শুনছি হাছন রাজা একাডেমি বা বাউল একাডেমি না করে এটিকে জেলা শিল্পকলা একাডেমি করা হচ্ছে। জেলা পরিষদকে ডিঙ্গিয়ে কে বা কারা এই কাজগুলো কিসের স্বার্থে করছেন তা আমি জানিনা। আমার বক্তব্য হচ্ছে সাধক কবি রাধারমন,মরমী কবি হাছন রাজা,বাউল কামাল পাশা,শাহ আব্দুল করিম ও দূর্বীণ শাহ শুধু সুনামগঞ্জেরই নয় এরা সারা জাতির গর্ব ও অহংকার। যেকোন মূল্যে এসব ক্ষণজন্মা সাধকদের স্মৃতি ও কীর্তিকে ভবিষ্যত প্রজন্মের স্বার্থেই সংরক্ষণ করতে হবে। বিশেষ কোন স্থাপনা নিয়ে হাছন রাজার মতো একজন সাধকের সাথে বেয়াদবী আমি মোটেই পছন্দ ও সমর্থন করিনা। আমি জেলা প্রশাসককে অনুরোধ করবো নবনির্মিত একাডেমি নিয়ে যেকোন ধরনের সিদ্বান্ত গ্রহনের বেলায় তিনি যেন জেলার সকল সংস্কৃতসেবীসহ সিভিল সোসাইটির মতামত গ্রহন করে সিদ্ধান্ত নেন। জেলা জাসদের সভাপতি আতম সালেহ বলেন,হাছন রাজা একাডেমি বা শিল্পকলা একাডেমি হিসেবে নতুন একাডেমিকে নিয়ে ভাগাভাগি ও দলাদলি না করে সুনামগঞ্জের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে মাথায় নিয়ে “সুনামগঞ্জ লোক একাডেমি” প্রতিষ্টা করা হউক। বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর ন্যায় ফোকলোর সোসাইটির মতো লোক একাডেমি বলে শাহ আছদ আলী থেকে শুরু করে সাধক কবি রাধারমন, মরমী কবি হাছনরাজা, বাউল কামাল পাশা, শাহ আব্দুল করিম ও দূর্বীণ শাহ পর্যন্ত সকল সাধকরাই সমানভাবে মূল্যায়ন পাবেন।সর্বশেষ খবরে জানা যায়,সরকারের পূর্ব সিদ্ধান্তকে বহাল রেখে এবং হাসন রাজাসহ এ অঞ্চলের লোককবিদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে একাডেমীর নামকরন পূর্বের নামেই রাখা হোক এই মর্মে হাসন রাজা পরিষদের পক্ষ থেকে সংস্কৃতি মন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছেন হাছন রাজার প্রপৌত্র লেখক গবেষক সামারিন দেওয়ান। শেষ পর্যন্ত বিষয়টি কোন দিকে মোড় নেয় সেদিকে দৃষ্টি এখন সকলের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24