বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১১ পূর্বাহ্ন

সুমনের প্রতিবন্ধিতা জয়

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ২৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::সুমন চন্দ্র দাস। পেশায় সিলেটের গোয়াইনঘাটের সহকারী কমিশনার (ভূমি)। শারীরিক সীমাবদ্ধতায় আবদ্ধ তার পথচলা। ছোটবেলা অগ্নি দুর্ঘটনায় দুহাত কুনইসহ দগ্ধ হয়ে হাত দুটির স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। হাত দিয়ে কোনো কিছু ধরা কিংবা স্বাভাবিক কাজ চালিয়ে নেয়া দুরূহ হয়ে পড়ে। একজন স্বাভাবিক মানুষের জীবনযাপন থেকে আলাদা এবং অস্বাভাবিক হয়েও তিনি দায়িত্বপূর্ণ সরকারি চাকরি করছেন। নিজ দপ্তরে সার্বিক কার্যক্রম, বোমা মেশিনবিরোধী অভিযানসহ ধারাবাহিক মোবাইল কোর্ট পরিচালনা এবং অপরাধীদের জরিমানা, সাজা দিয়ে সর্বাত্মকভাবে দায়িত্বশীল কর্মকর্তা হিসেবে নিজেকে জড়িয়ে রেখেছেন। যাকে নিয়ে অফিসে এবং বাইরে তুমুল আলোচনায় সরব রয়েছে গোটা গোয়াইনঘাট। অফিসের কর্মরতদের সহযোগিতা করা ছাড়াই তিনি তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। অফিসের পাশাপাশি মাঠ পর্যায়ে সরজমিন পরিদর্শন করে ভুক্তভোগী এবং সেবা প্রত্যাশী মানুষের সমস্যা সমাধান করে যাচ্ছেন। সুমন চন্দ্র দাস শুধু একজন অফিসারই নন, তিনি একটি দৃষ্টান্তও বটে। শারীরিক সীমাবদ্ধতায় থাকা সত্ত্বেও তার বিচক্ষণ দৈনন্দিন কর্মকাণ্ড বুঝিয়ে দিচ্ছে ইচ্ছা থাকলে প্রতিবন্ধকতা দূর করা কোনো ব্যাপারই নয়। একান্ত আলাপচারিতায় উঠে আসে তার জীবনে ঘটে যাওয়া একটি দুর্ঘটনা এবং মেধাবী হয়ে ওঠার কাহিনী। জানা যায়, সুনামগঞ্জের অজপাড়াগাঁ বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার প্রত্যন্ত একটি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন সুমন চন্দ্র দাস। ছোটবেলাই একটি অগ্নি দুর্ঘটনায় দুহাতের কবজি, মুখমণ্ডলসহ মারাত্মক দগ্ধ হন তিনি। ওই দুর্ঘটনায় সুস্থ হলেও তার দু’হাত এবং মুখমণ্ডলে সেই ক্ষতের ভয়াবহতা রয়ে যায়। ক্রমশই তার দুহাতের কুনইসহ হাত দুটিতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। বন্ধ হয়ে যায় স্বাভাবিকভাবে কাজকর্ম চালিয়ে নেওয়া। এমতাবস্থায় মা বাবার পরামর্শ, সহযোগিতায় চরম অধ্যবসায় আর নিজের মনের প্রবল ইচ্ছা শক্তি নিয়ে লেখাপড়ায় মনোযোগী হন। সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে জন্ম নেওয়া গ্রাম্য পরিবেশে বেড়ে ওঠা সেই শারীরিক সীমাবদ্ধ বালকই হয়ে ওঠেন দেশের একজন মেধাবী চৌকস প্রশাসনিক কর্মকর্তা। ২০০৪ সালে বিশ্বম্ভরপুর পলাশ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে (বিজ্ঞান) এসএসসি, ২০০৬ সালে সিলেটের জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে (বিজ্ঞান) এইচএসসি, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০০৬-০৭ সেশনে অর্থনীতিতে অনার্স মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। ৩৩তম বিসিএস ক্যাডার উত্তীর্ণ হয়ে তিনি দেশ সেবায় নিয়োজিত হন। ২০১৪ সালে ৭ই আগস্ট সহকারী কমিশনার (এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট) হিসেবে ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে যোগদান করেন। সেখানে এনডিসি, আর ডিসিসহ প্রশাসনের অপরাপর গুরুত্বপূর্ণ শাখায় কাজ করেন। প্রতিবন্ধীসহ বিশেষ কোটা থাকা সত্ত্বেও তিনি ওইসব কোটায় সরকারি চাকরিতে অন্তর্ভুক্ত হননি। শুধু মেধার জোরে এগিয়ে যান এবং বর্তমানেও দক্ষতার সহিত কাজ করে যাচ্ছেন। চলতি বছরের ৮ই অক্টোবর গোয়াইনঘাটে সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে যোগদানের পর থেকে তিনি চ্যালেঞ্জ নিয়ে দাপ্তরিক কাজ করছেন। সরকারি খাসজমি রক্ষা, জলমহাল, বালুমহাল, পাথর কোয়ারি ব্যবস্থাপনা, ভূমিসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়াদি, মোবাইল কোর্ট, বখাটে কাউন্সেলিং, পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন নকলসহ শিক্ষক, পিয়নকে জরিমানা, বিভিন্ন স্থানে বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা জটিলতা নিরসন, গোচর নিয়ে সমস্যা সমাধান, রাতারগুলে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়কারী নৌকা চালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, পর্যটন অঞ্চল গোয়াইনঘাটে রাষ্ট্রের ভিভিআইপি, ভিআইপি অব্যাগতদের প্রটোকলসহ অর্পিত দায়িত্ব পালন করছেন।
এব্যাপারে কথা হলে গোয়াইনঘাটের সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমন চন্দ্র দাস জানান, বর্তমানে আমি বোনাস লাইফ উপভোগ করছি। আমার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে শতভাগ চেষ্টা করি, জনগণই তা উপলব্ধি করেন। শারীরিক সীমাবদ্ধতায় কিভাবে আপনার দৈনন্দিন কাজকর্ম চালিয়ে যান এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, গোয়াইনঘাট একটি বিশাল উপজেলা। পর্যটন ও বাণিজ্যিক কারণে এই উপজেলায় কাজ করা অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং ব্যাপার। আমি শারীরিক সীমাবদ্ধতায় আবৃষ্ট থাকলেও কাজকর্ম চালিয়ে যেতে কোনো সমস্যা হয় না। জনগণের সমস্যা সমাধানের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখি এবং সমাধানের পথ বের করে দিই। জনগণ উপকৃত হলে পুরো গোয়াইনঘাট উপকৃত হবে এমন চিন্তাচেতনাকে প্রাধান্য দিয়েই প্রতিদিন কাজ করে যাচ্ছি।
0

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24