রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

সেতুর নিচে জনপ্রতিনিধির সংসার

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৮ আগস্ট, ২০১৭
  • ১৮ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ব্রীজের নিচে বসবাস, তাও আবার প্রায় ১ যুগ ধরে। চোখ কপালে উঠবে যখন জানবেন তিনি ভোটে নির্বাচিত একজন জনপ্রতিনিধি।

নাগরিক সুবিধার দেখভাল করলেও নিজেরই মাথা গোঁজার ঠাঁই নেই হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের নির্বাচিত সংরক্ষিত মহিলা সদস্য রহিমা বেগমের।

শীত কি বর্ষায় অন্য কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই এই মহিলা মেম্বারের পরিবারের লোকজনের। সম্প্রতি উপজেলা প্রশাসনের তৎপরতায় ভূমিহীন হিসেবে ১২ শতক ভূমি রেজিস্ট্রি করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তা প্রভাবশালী মহলের দখলে থাকায় এই ভূমিহীন জনপ্রতিনিধিকে দখল বুঝিয়ে দেয়া হচ্ছে না।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘ এক যুগ ধরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ব্যস্ততম রাস্তা সৈয়দপুর বাজার সংলগ্ন মনু খালের ব্রিজের নিচে বসবাস করে আসছেন। সারা দিন রাত তাদের উপর দিয়ে চলাচল করে কয়েক হাজার যানবাহন। আর এবার খালে পানি বেড়ে যাওয়ায় তাদের দুর্ভোগ পৌছেছে চরমে।

এলাকাবাসী জানান, রহিমা বেগম সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্য নির্বাচিত হয়েও ভূমিহীনের তালিকা থেকে নাম কাটাতে পারেননি। মানুষের জন্য কাজ করার প্রত্যয়ে তিন বার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন রহিমা। গত বছরের গত ২৮ মে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ৩জন প্রার্থীর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন এবং মাইক প্রতীক নিয়ে অপর দুই প্রার্থীর চেয়ে প্রায় ১৮শ’ ভোট বেশি পেয়ে জনপ্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হন রহিমা।

ইউপি সদস্য রহিমা বেগমের বয়স প্রায় ৫০ এর কাছাকাছি। তিনি আউশকান্দি ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামের মকদ্দুছ মিয়ার স্ত্রী। তাদের ঔরসে রয়েছে ২ ছেলে ও ১ মেয়ে। অসুস্থ স্বামী ও অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে মেয়ের খাবার জোগাড়ে দীর্ঘদিন ঘটক হিসেবেও কাজ করেছেন তিনি। ঘটকালির সুবাধে এলাকার সকল মানুষের সাথে রয়েছে রহিমার সু-সম্পর্ক। এই সম্পর্ক থেকেই বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হন।

কয়েক মাস আগে ভূমিহীন হিসেবে রহিমাকে আউশকান্দি এলাকায় ১২ শতক খাস জমি রেজিস্ট্রি করে দেয়া হয়। সরকারি ভূমি বরাদ্দ দেয়ায় খুশি এলাকাবাসী। রহিমা বেগমের দারিদ্রতার কথা ভেবে সরকারি উদ্যোগে বাড়ি নির্মাণের অনুরোধ তাদের। এছাড়া নিজেদের সীমিত সামর্থ্যের কথা জানিয়ে রহিমা বেগমের বাড়ি নির্মাণে সরকারের সহযোগিতা চাইলেন ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যরা।

কিন্তু বরাদ্ধ পাওয়া ভূমিই দখলে যেতে পারছেন না রহিমা। কারণ রেজিস্ট্রি করে দেয়া ১২ শতক খাস জমি রয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীদের দখলে। এ ছাড়া প্রশাসনও রহিমাকে দখল বুঝিয়ে দিচ্ছে না।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য রহিমা জানান, ‘আমি দীর্ঘ ১ যুগ ধরে খুব দুঃখ কষ্টে ব্রিজের নিচে আমার পরিবার নিয়ে বসবাস করছি। কয়েক মাস আগে মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশের পর রেজিস্টি দেওয়া হইছে কিন্তু দখলে যাইতে পারছি না।’

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজিনা সারোয়ার জানান, রহিমা বেগমকে ১২ শতক জায়গা রেজিস্ট্রি করে দেয়া হয়েছে। ঈদের পরপরই তা দখল বুঝিয়ে দেওয়া হবে। আর সরকারি সহায়তা ও বিত্তবানদের সহযোগিতা নিয়ে বাড়ি নির্মাণের পরিকল্পনার কথা জানান তিনি

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24