মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন

সোনালী আঁশ পাটের সুদিন ফিরিয়ে আনতে পাটকে কৃষিজাত পণ্য ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৬ মার্চ, ২০১৬
  • ২২ Time View

স্টাফ রিপোর্টার::সোনালী আঁশ পাটকে কৃষিজাত পণ্য হিসেবে ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, পাট একটি কৃষিজাত পণ্য। অন্যসব কৃষিপণ্য বিভিন্ন সুবিধা পেয়ে থাকে, কিন্তু পাট সেটা পায় না। এটা ঠিক নয়। তাই পাটকে কৃষিজাত পণ্য হিসেবে ঘোষণা করছি।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে রবিবার (৬ মার্চ) পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন-২০১০ এর সফল বাস্তবায়ন উপলক্ষে ৪১ প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা প্রদান এবং বহুমুখী পাটপণ্য মেলার উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী এ ঘোষণা দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পাটের চেয়ে টেকশই তন্তু আর কিছুই হতে পারে না। তাই পাটের ব্যবহার বহুমুখীকরণ করতে হবে। এ জন্য সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে।

প্রসঙ্গত, পাটকে কৃষিজাত পণ্য ঘোষণার ফলে রফতানিকারকরা ২০ শতাংশ নগদ সহায়তা (ক্যাশ ইনসেন্টেভ) পাবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি বন্ধ পাটকল চালু করা হয়েছে। পুরনো পাটকলগুলো আর বন্ধ করা হবে না। মিলগুলো যেন চালু থাকে। কোনো রকম দু’নম্বরী যাতে না হয় সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে। আর কারখানার পুরনো যন্ত্রাংশের পরিবর্ত নতুন ও আধুনিক যন্ত্রাংশ স্থাপন করা হবে। পাট চাষী ও পাটকল শ্রমিকদের উন্নয়নে সরকার সহযোগিতা করবে। বিশেষ করে পাটকল শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় মিলগুলো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

একই সঙ্গে পাটকলগুলোর নিজেদের সম্পদ সুষ্ঠু ব্যবহারের আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, আজকের বাংলাদেশ তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের পাট রফতানির অর্থ পশ্চিম পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হতো। ছয় দফা ঘোষণায় বঙ্গবন্ধু অর্থনৈতিক বৈষম্যের ক্ষেত্রে পাটের এ বিষয়টি তুলে ধরেন। সত্তরের সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী পোস্টারে পাট গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু ছিল।

শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৭৪ সাল জাতির পিতা পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিজেআরই) প্রতিষ্ঠা করেন। পাটজাত পণ্য উৎপাদন ও রফতানি সংস্থা ‘বিজেএমসি’ গঠন করা হয়। কিন্তু ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পর পাটখাতে নেমে আসে ভয়াবহ বিপর্যয়।

তিনি আরও বলেন, ১৯৯১ সালে পার্লামেন্টে পাটকল বন্ধের কথা তোলা হয়। অন্যদিকে, ঠিক সেই সময়েই ভারত পাটশিল্পকে গুরত্ব দিয়ে পাটকল চালু করতে থাকে। কিন্তু সোনালী আঁশের দেশ হলেও আমাদের দেশে বন্ধ হতে থাকে পাটকলগুলো। ২০০২ সালের ৩০ জুন এশিয়ার সর্ববৃহৎ পাটকল আদমজী মিল বন্ধ করে দেয় বিএনপি। এতে মিলের হাজার হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েন। অনুষ্ঠানে সুনামগঞ্জ থেকে একমাত্র প্রতিনিধি হিসেবে যোগদেন জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যবসায়ী নেতা রেজাউল করিম রিজু। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পাটখাতের উন্নয়নে সর্বাত্বক সহযোগীতার আশ্বাস দেন। এশিল্পকে প্রসারে সবাইকে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24