সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে নির্বিচারে ধরপাকড় চলছে স্মৃতির রত্নায় ঈদ ভাবনা || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরে আগুনে পুড়ল দুইটি ঘর,ক্ষয়ক্ষতি ১০ লাখ জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের

স্কুল ছাত্র আবু সাঈদ খুনের ঘটনায় আরও দুই ‘কিলারকে’ হণ্য হয়ে খুঁজছে পুলিশ

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৯ মার্চ, ২০১৫
  • ২৮ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক- জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের খাশিলা গ্রামের সন্তান সিলেটে শহরে বসবাসকারী শিশু আবু সাঈদ অপহরণ ও খুনের ঘটনায় আরও দুই ‘কিলারকে’ হণ্য হয়ে খুঁজছে পুলিশ। তাদেরকে গ্রেফতারে পুলিশ নগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়েছে। এই দুই কিলারের মধ্যে একজন জেলা ওলামালীগের প্রচার সম্পাদক মুহিবুর রহমান ওরফে মাছুম, অপরজনকে এখনো সনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। হত্যাকান্ডের ঘটনায় ইতোমধ্যে গ্রেফতারকৃত ৩ জনের মধ্যে পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান ও জেলা ওলামালীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম রাকিব (আবদুর রাকিব) এর দেয়া ১৬৪ ধারা জবানবন্দি থেকে এ দুই ‘কিলারের’ তথ্য উঠে এসেছে। এছাড়া গ্রেফতার হওয়া অপরব্যক্তি র‌্যাবের কথিত সোর্স আতাউর রহমান গেদাকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে এবাদুর ও রাকিব জানায়, তাদের সাথে অপহরণ ও কিলিং মিশনে অংশ নেয় জেলা ওলামালীগের প্রচার সম্পাদক মুহিবুর রহমান ওরফে মাছুম ও আনুমানিক ৩০ বছর বয়সী এক যুবক। ওই যুবকটি লম্বা ও শ্যামলা বলে জবানবন্দিতে উল্লেখ করেছে এবাদুর ও রাকিব। অপহরণের পরিকল্পনা বৈঠক থেকে শুরু করে অপহরণ, চাঁদাদাবি ও খুনের সাথে ওই যুবক জড়িত ছিল সরাসরি। তবে জবানবন্দিতে যুবকটির নাম পরিচয় জানায়নি তারা। গ্রেফতার হওয়া আতাউর রহমান গেদা ওই যুবকটিকে নিয়ে এসেছিল বলে জানিয়েছে তারা।

জবানবন্দিতে এবাদ ও রাকিব জানায়, শিশু সাঈদকে অপহরণ করে মোটর সাইকেলে প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় রায়নগরস্থ গেদার বাসার পাশের একটি বাসায়। সেখান থেকে সিএনজি অটোরিকশাযোগে সাঈদকে নিয়ে আসা হয় কুমারপাড়া ঝর্ণারপাড়স্থ এবাদুরের বাসায়। জবানবন্দিতে ওই অটোরিকশা চালকের পরিচয় জানাতে না পারলেও রাকিব তাকে হালকা-পাতলা গড়নের বলে উল্লেখ করেছে। পুলিশ ওই অটোরিকশা চালককেও খুঁজছে। তাকে পাওয়া গেলে অপহরণকারীদের সম্পর্কে আরও তথ্য পাওয়া যাবে।

সিলেট কোতোয়ালী থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই ফায়াজ আহমদ জানান- হত্যাকান্ডের ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে গ্রেফতারকৃত আতাউর রহমান গেদাকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত তার কাছ থেকে নতুন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার মো. রহমত উল্লাহ বলেন- পুলিশ কনস্টেবল এবাদুল ও ওলামালীগ নেতা রাকিবের জবানবন্দিতে অপহরণ ও হত্যাকান্ডের সাথে আরও দুইজনের সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে একজন ওলামালীগ নেতা ও অপরজন এখনো সনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। এছাড়া অপহরণে ব্যবহৃত সিএনজি অটোরিকশা চালককেও খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে। তাকে পাওয়া গেলে অপহরণকারীদের ব্যাপারে আরও তথ্য পাওয়া যেতে পারে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24