সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৩৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে নির্বিচারে ধরপাকড় চলছে স্মৃতির রত্নায় ঈদ ভাবনা || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরে আগুনে পুড়ল দুইটি ঘর,ক্ষয়ক্ষতি ১০ লাখ জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের

স্বাধীনতা দিবসে সারা দেশে সশ্রদ্ধচিত্তে বীর শহীদদের স্মরণ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৭ মার্চ, ২০১৫
  • ৪২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক: হাতে ফুল, হৃদয়ে গভীর ভালোবাসা আর কণ্ঠে সন্ত্রাসমুক্ত সোনার বাংলা গড়ার দৃপ্ত শপথ নিয়ে জাতি বৃহস্পতিবার ৪৫তম স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন করেছে। এদিন ফুলে ফুলে ভরে উঠেছে স্মৃতিসৌধের শহীদ বেদি। সূর্য সন্তানদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানাতে অবনত মস্তকে লাখো মানুষের ঢল নামে জাতীয় স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে।
পরাধীনতার নিগড় ছিন্ন করে জাতিকে মুক্ত করে তোলার সংগ্রামে যে বীর সন্তানরা আত্মদান করেছিলেন, জাতি গভীর কৃতজ্ঞতার সঙ্গে বেদনাহত চিত্তে তাদের স্মরণ করেছে। বাঙালি তার ইতিহাসের এই গৌরবোজ্জ্বল দিনটিতে স্মরণ করেছে স্বাধীনতাসংগ্রামে নেতৃত্বদানকারী অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সব জাতীয় নেতাকে।
রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের মাধ্যমে পাওয়া জাতির মহান এই অর্জনকে বরাবরের মতো এবারো রাষ্ট্রীয়ভাবে দিনটিকে জাতীয় দিবস হিসেবে পালন করা হয়েছে।
রাজধানী থেকে শুরু করে শহর-বন্দর-গ্রামে প্রতিটি অনুষ্ঠানেই ছড়িয়ে পড়েছে লাল-সবুজের রঙ। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধরে রাখার দৃপ্ত শপথের পাশাপাশি স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির প্রতি ঘৃণাও উচ্চকিত হয়েছে সব শ্রেণি-পেশাজীবী মানুষের কণ্ঠে।
দেশের জন্মদিন উপলক্ষে গতকাল সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ গোটা বাঙালি জাতিই বর্ণাঢ্য সব আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করেছে। সূর্যোদয়ের মুহূর্তে তেজগাঁও পুরনো বিমানবন্দর এলাকায় ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। সব সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধা-সরকারি ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। দিনব্যাপী নানা কর্মসূচির মধ্যে জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শিশু-কিশোরদের কুচকাওয়াজ ও ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন, সরকারি ভবনে আলোকসজ্জা, দেশজুড়ে মসজিদ, মন্দির ও প্যাগোডায় দেশের কল্যাণ কামনায় প্রার্থনাসহ নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্র, হাসপাতাল, জেলখানা, সরকারি শিশুসদনসহ অনুরূপ প্রতিষ্ঠানসমূহে পরিবেশন করা হয় উন্নতমানের খাবার। এছাড়া দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে বেতার, টেলিভিশনে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করা হয়। সংবাদপত্রগুলো প্রকাশ করে বিশেষ ক্রোড়পত্র। সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন ভবনে, বাড়িঘর, যানবাহন ও দোকানে উড়েছে জাতীয় পতাকা। ভবনগুলো ছেয়ে গেছে আলোকসজ্জায়। সবমিলিয়ে আনন্দ আর উচ্ছ্ব্াসে গোটা সভার স্মৃতিসৌধসহ গোটা রাজধানী পরিণত হয় উৎসবের নগরীতে।
ভোর ৫টা ৫৫ মিনিটে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে বীর শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্যদিয়ে দিবসটির আনুষ্ঠানিক কর্মসূচি শুরু হয়। এ সময় সশস্ত্র বাহিনীর একটি সুসজ্জিত চৌকস দল এ সময় গার্ড অব অনার প্রদান করে। বিউগলে বেজে ওঠে করুণ সুর। পরে রাষ্ট্রপতি স্মৃতিসৌধের পরিদর্শন বইতে স্বাক্ষর করেন।
পরে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী হিসেবে মন্ত্রী পরিষদ, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে জাতীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি প্রদ্ধা জানান শেখ হাসিনা। এ সময় প্রধান বিচারপতি, মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রী, চিফ হুইপ, সাংসদ, তিন বাহিনীর প্রধান, কূটনীতিক, উচ্চপদস্থ সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ ও বীরশ্রেষ্ঠ পরিবারের সদস্য, গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে সূর্য ওঠার আগেই সাধারণ মানুষ ভিড় জমাতে শুরু করে স্মৃতিসৌধের সামনে। প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সব বয়সী মানুষের ঢল নামে শহীদ বেদি প্রাঙ্গণে। বেলা বাড়ার সঙ্গে বাড়তে থাকে এই ভিড়। লাল-সবুজ পতাকা হাতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা সবার কণ্ঠেই ধ্বনিত হয় সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়। এদিন সব বয়সী লোকের সঙ্গে স্মৃতিসৌধে উপস্থিত ছিলেন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধারাও। দেশাত্মবোধক গান ও মুহুর্মুহু সেস্নাগানে মুখরিত হয়ে ওঠে স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণ। শহীদদের স্মরণে শ্রদ্ধায় অবনত জাতি স্মরণ করে মুক্তিযোদ্ধা ও স্বাধীনতাযুদ্ধে শহীদ সূর্যসন্তানদের।
সকাল ৬টার দিকে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। বিরোধী দলীয় ও কূটনৈতিকদের শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য স্মৃতিসৌধ উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। একের পর এক বীরশ্রেষ্ঠ পরিবার ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এবং পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
সকাল সোয়া ৮টায় বিএনপির চেয়ারপারসনের পক্ষ থেকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান ও মাহবুবুর রহমান স্মৃতিসৌধের শহীদবেদিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এ সময় বিএনপির নেতা আলতাফ হোসেন চৌধুরী, ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল মান্নানসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
শহীদ বেদিতে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ছাড়াও বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠনের নেতাকর্মীরাও শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শ্রদ্ধা নিবেদন করা অন্যান্য সংগঠনের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ, জাতীয় পার্টি (জেপি), সেক্টরস কমান্ডারস ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ ৭১, জাতীয় পার্টি, ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি, মহিলা পরিষদ, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর, বাংলা একাডেমি, সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি প্রমুখ।
অপরদিকে স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সকাল ৭টা ১ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধানম-ি ৩২ নম্বর সড়কে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের নিয়েও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন শেখ হাসিনা। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, সভাপতিম-লীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম, মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ প্রমুখ। এরপর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জাতীয় সংসদরে স্পিকার ড. শিরিন শারমীন চৌধুরী ও ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাবি্ব মিয়া জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এছাড়াও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ, আওয়ামী যুবলীগ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে।
অন্যদিকে দিবসটি উপলক্ষে প্রতিবারের মতো এবারো বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ঢাকা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শিশু-কিশোর সমাবেশ ও কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোমুগ্ধকর এই আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন। অনুষ্ঠানে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদমুক্ত দেশ গড়ার মিছিলে দেশের সব শ্রেণিপেশার মানুষকে এক হওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। একইসঙ্গে ভবিষ্যতে দেশের নেতৃত্ব দিতে এখন থেকেই প্রস্তুত হতে শিশু-কিশোরদের প্রতি আহ্বান জানান বঙ্গবন্ধু কন্যা।
সারা দেশে গড়ে ওঠা গণজাগরণ মঞ্চও নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। কেন্দ্রীয়ভাবে শাহবাগ প্রজন্ম চত্বরে কনসার্টের আয়োজন করা হয়। বিকালে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত স্থান, জাদুঘর, বিনোদনকেন্দ্র ও স্বাধীনতা দিবসের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানগুলোকে কেন্দ্র করে ছিল সাধারণ মানুষের উপচে পড়া ভিড়। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মাজারেও ছিল নেতাকর্মী ও দর্শনার্থীদের লক্ষণীয় ভিড়। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের শিখা চিরন্তন, রমনা পার্ক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ধানম-ি লেক ও হাতিরঝিলে ঢল নামে তরুণ-তরুণীদের।
এসবের বাইরেও দিবসটি উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, ছায়ানট, জাতীয় জাদুঘর, বাংলা একাডেমি, নজরুল ইন্সটিটিউট, জাতীয় প্রেসক্লাব, অফিসার্স ক্লাব ঢাকা, কেন্দ্রীয় কচি-কাঁচার মেলা, ঢাকা মহানগরী সমিতি, বাংলাদেশ শিশু একাডেমি, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করে। ইসলামী ফাউন্ডেশনও আয়োজন করে বিশেষ অনুষ্ঠান। েএছাড়াও সিলেট সুনামগঞ্জে দিবসটি যখাযোগ্যভাবে পালিত হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24